কংশ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে পৌষ মেলা

হালুয়াঘাট প্রতিনিধি, দেওয়ান নাঈম ঃ হালুয়াঘাট পৌর এলাকা সদরে বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে সবার কাছে কংশ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানটি পরিচিত। সরে জমেনি গিয়ে দেখা মেলে কংশ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানটি ১১ জানুয়ারী থেকে শুরু করে ১৩ জানুয়ারী প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত চলবে এই পৌষ মেলার আয়োজন।

সামাজিক এই সংগঠনটির কার্যালয়ের সভাপতি মোঃ খায়রুল আলম ভূঞা। সাধারণ সম্পাদক সমীর সরকার।

প্রতি বছর প্রায়ই কোনো না কোনো সময়ে সামাজিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। বুঝা যায় সমাজ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান এটি। ১১ জানুয়ারী ২০১৭ সাল শীতের পৌষ মেলা এলাকায়। বড়-সড় উৎসবের আলোয় সন্ধ্যায় শুরু এবারের আয়োজন। এই সংগঠনটি নিজেদের উদ্যোগে এলাকায় সামাজিক বিনোদনমূলক মঞ্চ নাটক করে থাকে। আর তা থেকে সংগঠনটি সমাজ সেবামূলক কাজে এলাকায় সাংস্কৃতিক, পৌষ মেলা, মঞ্চ নাটক, স্বাস্থ্যসেবা, ত্রাণ এনে এই মাঠ থেকে বিতরণ করা হয়।

নিজেরাও অর্থ সংগ্রহ করে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সংগঠনটি কাজ করে প্রসংশা পেয়েছে। যদি সরকারের তহবিল থেকে অর্থ সংগ্রহ করা যায়; তবে সংগঠনটি সমাজকে আরো ভালো কিছু দিতে পারবে। কংশ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানটির এবারের পৌষ মেলায় ব্যবস্থা রয়েছে। বিশাল মাঠ, ঢোকার পরই চোখে পড়ে সাজানো পিঠার স্টল, নাগরদোলা, পুতুল নাচ, মঞ্চ নাটক, মোটামোটি সব ধরণের আয়োজন রয়েছে।

মাঠের পূর্ব পাশে পুকুরের চারিদিকটা ঘিরে লাইটিং এর আলোক সজ্জা পুকুরের মাঝখানে এমন লাইটিং দৃশ্য। পুকুরের কেন্দ্রে আকর্ষণীয় লাইটিং এর দৃশ্যের পাশা-পাশি পুকুরের একদল রাজা হাঁসের মিলন মেলা। তেমনি শীতের কুয়াশার চাদরে ঢাকা রাতের উৎসবের এ রকম উচ্ছাস আনন্দভরা পরিবেশে বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ ভরে যায়। শিশু, কিশোর-কিশোরী, তরুন, যুবকদের সরব উপস্থিতিতে মনের উচ্ছাসে আনন্দের শীতের এই পৌষ মেলা।

এই সংগঠনটির উদ্যোগে সব সদস্যই যে যতটুকু পারেন, ততটুকু সহায়তা করেন। বিনোদন বলতে শিশুদের চিত্তবিনোদনের জন্য হালুয়াঘাট উপজেলা পৌর সদরে কোন পার্ক নেই, নেই কোনো চিড়িয়াখানা, নেই কোনো শিশু বিনোদন কেন্দ্র। এতে তাদের বুদ্ধিমত্তার সুষ্ঠু বিকাশ ঘটছে না। পৌর এলাকায় ৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৭টি কিন্ডারগার্টেন রয়েছে। এই শিশুরা বিদ্যালয়ে বিনোদনের তেমন কোনো সুযোগ-সুবিধা পায় না। শত শত শিশুরা বিনোদন থেকে বঞ্চিত। শিশুদের বিনোদনের সুযোগ করে দেয়া। শিশুদের মানসিক বিকাশ ঘটাতে হলে প্রথমেই দরকার তার উপযুক্ত বিনোদন ও আনন্দময় পরিবেশ তৈরি করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। হালুয়াঘাটে একটি শিশু পার্ক বিশেষ জরুরী। এই একমাত্র কংশ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানটি চায় সামাজিক বিনোদনমূলক আনন্দ দেওয়ার কাজটি করতে।

আজ পৌষ মেলা শীতের সন্ধ্যা রাত বাড়তে থাকে মানুষের আনাগোনাও। নানা বয়সের ছেলে, বুড়োদের আগ্রহের কমতি ছিল না। উৎসুক অনেকে দলে দলে হাজির হন স্টলে, স্টলে পৌষ মেলার শীতের পিঠার উৎসবে। ভাপা, চিতই, পুলি, বিবিকা, বিরানি, হালিম, নকশি সহ থাকবে নানান স্বাদের পিঠা। আরো থাকছে পুকুরের মধ্য খানে কফি স্টলে বসে, ঘুড়ে ঘুড়ে গরম গরম পিঠা খাওয়ার সুযোগও। শিশু-কিশোর, বয়-বৃদ্ধদের কলরবে মুখর সন্ধ্যা।

উৎসবে শামিল হলেন অনেকেই। মঞ্চে নাটক, নাচ, গান, শুনবে, চোখে দেখে মনের আনন্দ ভোগ করবে। আর এই আনন্দ চলবে একটানা ৩ দিন। দীর্ঘ পথ পেরিয়ে কংশ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের সদস্যরা চান তাদের কাজগুলো এলাকার বাইরে ছড়িয়ে দিতে। যাতে বড় ব্যাপক পরিসরে সমাজের জন্য কিছু করা যায়।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY