কোহলির টেস্ট ক্যারিয়ার শেবাগ-ধোনিতে রক্ষা!

ক্রীড়া ডেস্ক: ভারতের তিন ধরনের ফরম্যাটেই সেরা খেলোয়াড় তিনি। পেয়েছেন টেস্ট দলের অধিনায়কত্বও। টেস্ট, ওয়ানডে কিংবা টি-টুয়েন্টি- সব ধরনের ফরম্যাটেই ব্যাট হাতে রানের ফল্গুধারা বইয়ে চলেছেন বিরাট কোহলি। অথচ চার বছর আগে জাতীয় দল থেকে বাদই পড়তে যাচ্ছিলেন তিনি। বীরেন্দর শেবাগ ও মহেন্দ্র সিং ধোনির হস্তক্ষেপেই সেই যাত্রায় রক্ষা পেলেন কোহলি। এরপর তো নিয়মিতই দ্যুতি ছড়িয়ে যাচ্ছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সেনসেশনাল বয়।

ইংল্যান্ড ও ভারতের মধ্যকার চলমান মোহালি টেস্টে সুনিল গাভাস্কার ও শেবাগ ধারাভাষ্যকারের ভূমিকা পালন করছিলেন। এমন সময় সানির এক প্রশ্নের জবাবে শেবাগ জানিয়েছেন, ২০১২ সালে অস্ট্রেলিয়া সফরে তিনি ও ধোনি কোহলিকে বাদ পড়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করেন।

চার বছর আগের অস্ট্রেলিয়া সফরের স্মৃতি রোমন্থন করে শেবাগ বলেন, ‘২০১২ সালে পার্থ টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নির্বাচকরা কোহলির পরিবর্তে রোহিত শর্মাকে খেলাতে চেয়েছিলেন। আমি তখন সহ-অধিনায়ক ছিলাম আর ধোনি দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছিল। আমরা তখন কোহলিকেই সমর্থন দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। এরপর যা হলো সেটা তো ইতিহাসই।’

পার্থে চার ম্যাচ সিরিজের প্রথমটিতে ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারেননি কোহলি। মেলবোর্ন টেস্টের প্রথম ইনিংসে ১১ রান করলেও দ্বিতীয় ইনিংসে রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফেরেন তিনি। এরপর সিডনি টেস্টের দুই ইনিংসেও (২৩ ও ৯) ব্যর্থ হন তিনি; যার কারণে নির্বাচকরা কোহলিকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

এমন বাজে সময় কোহলি পাশে পেয়েছিলেন ধোনি ও শেবাগকে; তাদের আস্থার প্রতিদান দিতেও সময় নেননি ভারতের বর্তমান টেস্ট অধিনায়ক। পার্থ টেস্টের দুই ইনিংসে যথাক্রমে ৪৪ ও ৭৫ রান করেন ভারতীয় সেনসেশনাল বয়। অ্যাডিলেডে সিরিজের শেষ টেস্টে নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পান কোহলি। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সেবার চারটি টেস্টই হেরে যায় ভারত। তবে ভারতীয় দলের একমাত্র সদস্য হিসেবে সেঞ্চুরি করে দলে নিজের আসন পাকা করে নেন কোহলি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY