গণমানুষের কবি ছিলেন ফররুখ আহমেদ – বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব

৪২ তম মৃত্যুবার্ষিকী স্মরণে

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশের মানুষের মাঝে সাড়া জাগিয়েছেন যে দুইজন কবি তাদের মধ্যে কবি ফররুখ আহমদ অন্যতম। তার কবিতা পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত ছিল। কিন্তু কুপমুন্ডুকতায় ভোগা শাসকেরা আবার তা পাঠ্যপুস্তক থেকে সরিয়ে দিয়েছে বলে অভিমত প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া।

তিনি বলেছেন, বাংলাদেশের কবি, গণমানুষের কবি ফররুখ আহমদ। তার কবিতায় বাংলাভাষা ও বাংলাদেশের মানুষের জীবনচিত্র অসাধারণভাবে ফুটে উঠেছে। তার কবিতায় তিনি তুলে এনেছেন বাংলার শেকড় ও সংস্কৃতি।

এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া আজ বুধবার সকালে নয়াপল্টনস্থ যাদু মিয়া মিলনায়তনে ‘জাতীয় জাগরনের কবি ফররুল আহমেদের ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ ঢাকা মহানগর আয়োজিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখছিলেন। নগর যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ আনছার রহমান শিকদারের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহন করেন ন্যাপ যুগ্ম মহাসচিব মোঃ নুরুল আমান চৌধুরী টিটো, সম্পাদক মোঃ কামাল ভুইয়া, মতিয়ারা চৌধুরী মিনু, নগর সদস্য সচিব মোঃ শহীদুননবী ডাবলু, যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, বাসন্তি বরুয়া বাবলী, সদস্য সোলায়মান সোহেল, আবদুল্লাহ আল কাউছারী, জিল্লুর রহমান পলাশ প্রমুখ।

এম. গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া বলেছেন, কবি ফররুখ ছিলেন গণজাগরণের কবি। তিনি মানুষের মধ্যে চেতনাবোধ তৈরি করে গেছেন। স্বাধীনতা, সাম্য ও মুক্তির চেতনা। আজকে কবিদের মধ্যে সেই জাগরণ নেই। দেশের মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা নেই। চলাফেরার স্বাধীনতা নেই। কিন্তু কবি-সাহিত্যিকেরা নীরবতা পালন করছেন। ফররুখ বেঁচে থাকলে অবশ্যই জাগরণের কথা বলতেন।

সভাপতির বক্তব্যে মোঃ আনছার রহমান শিকদার বলেছেন, জাতীয় ইতিহাসের বিভিন্ন স্তরে মানব সমাজের প্রয়োজন অনুসারে বিভিন্ন প্রতিভার জন্ম হয়। ফররুখের আবির্ভাবও একটি ঐতিহাসিক পটভূমিতে। উপমহাদেশের পাকিস্তান আন্দোলনের পটভূমিতে বাংলা সাহিত্যে রেনেসাঁ আন্দোলনের সূচনা।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY