ঢাকা- চাদপুর রুটের সবচেয়ে দ্রুতগামী লঞ্চ মিতালী-৪

রমজান হিরু: লঞ্চ ভ্রমণ যে কতটা অসাধারণ যারা লঞ্চ ভ্রমণ করেছেন শুধু তারাই এর মজা বুঝতে পারেবন। আর এই ভ্রমনের সঙ্গী যদি দ্রুতগামী, সুন্দর ইন্টেরিওর, পরিচ্ছন্ন কোন লঞ্চ তাহলে তো আর কোন কিছুর বাকি থাকে না।2

3যদি এমন একটি লঞ্চ ভ্রমনের আশা করেন আপনি তাহলে অবশ্যই আপনাকে চড়তে হবে মিতালী-৪ এ।

ঢাকা- চাদপুর রুটের সবচেয়ে দ্রুতগামী লঞ্চ হল মিতালী-৪। এ টাতে যাত্রা না করলে আপনি এর গতি সম্পর্কে ধারনা করতে পারেবন না। লঞ্চটিতে স্থাপিত ৫৫০ অর্শ্বশক্তির চায়না ইঞ্জিন ২টি নদীতে রিতীমতো ঝর উঠিয়ে দেয়। মিতালী-৪ আপনাকে ২ ঘন্টা ৫০ মিনিটে ঢাকা থেকে চাদপুরে পৌছে দিবে। যেখানে অন্য লঞ্চগুলো সময় নেয় ৩ ঘন্টা থেকে সাড়ে তিন ঘন্টা ।

4 5

লঞ্চের নিচতলায় রয়েছে প্রশস্ত হাঁটার জায়গা, বিনোদনের জন্য এলইডি টিভি, ক্যান্টিন আছে পর্যাপ্ত টয়লেটের ব্যবস্থা। নিরাপত্তা জন্য পুরো লঞ্চটি সিসি টিভি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।

মিতালী-৪ লঞ্চটি প্রতিদিনই ঢাকা-চাদপুর চলাচল করে। ঢাকার লালকুঠি থেকে ছাড়ে সকাল-৯.৫০ মিনিটে এবং চাদপুর থেকে ছাড়ে রাত-৯.৪০ মিনিটে।

6

ভাড়ার তালিকা: ডেক ভাড়া – ১০০ টাকা, চেয়ার – ১৫০ টাকা, সিঙ্গেল কেবিন-৪০০ টাকা, ডাবল কেবিন-৮০০ টাকা, ডাবল কেবিন (এসি) ১০০০ টাকা, ফ্যামিলি কেবিন (এসি) ২০০০ টাকা।

7-copy

9

যাত্রী ধারন ক্ষমতা- ৪৫০ জন, লাইফ বয়া- ৯২টি, ফায়ার বাকেট- ১৭টি, অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র- ১২টি, হস্ত চালিত পাম্প- ০১ টি, বালির বাক্স- ০২টি, ফায়ার এক্স- ০১টি, ফাষ্ট এইড বক্স- ০১টি, সেফটি টর্চ- ০১টি, রেডিও- ০১টি, কম্পাস- ০১ টি, জি পি এস- ০১টি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY