মুন্সিগঞ্জে সিএনজিতে চাঁদাবাজী বন্ধ করলেন জেলা পুলিশ সুপার

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: মুন্সিগঞ্জে সিএনজি থেকে চাঁদাবাজী বন্ধ করে দিয়েছেন পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম (পিপিএম)। মুন্সিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্পট থেকে সিএনজি ও অটোরিক্সা থেকে চাঁদা আদায় করা হতো। সিএনজি ড্রাইভারদের থেকে বাধ্যতামূলকভাবে রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থাকা কিছু নেতা প্রতিদিন মুক্তারপুর, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সামনের স্ট্যান্ড, কোর্ট স্ট্যান্ড, সিপাহীপাড়া স্ট্যান্ড থেকে প্রায় ৬০ হাজার টাকা চাঁদা উঠানো হতো। চাঁদার টাকা ভাগভাটোয়ারা নিয়েও বিভিন্ন সময় মারামারি হানাহানি হয়েছে অনেক।

মুন্সিগঞ্জ যোগদানের পর পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম (পিপিএম) অনেকগুলো জনমানুষের কল্যাণে কাজ করেছেন। তার কাজে প্রশংসা করেছেন বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। তার তত্বাবধানে এজহারভুক্ত আসামীও গ্রেফতার হয়েছে সবচেয়ে বেশী। সিএনজির চাঁদাবাজী বন্ধ হওয়ায় শ্রমিকলীগের নেতা আবুল কাশেম জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলমের প্রশংসা করে বলেন, জেলা পুলিশ সুপার চাঁদাবাজী বন্ধ করে নিশ্চিত একটা ভালো কাজ করেছেন। তিনি আরো বলেন মুক্তারপুর, সিপাহীপাড়া, কোর্টপাড়াস্থ সিএনজি স্টেশনে চাঁদাবাজির মাধ্যমে ৫০ থেকে ৬০হাজার টাকা প্রতিদিন উঠানো হতো। পুলিশ সুপারের নির্দেশে সেটা বন্ধ হয়েছে।

কাচারী চত্বরের সড়কের মধ্যে অনেক দোকান ছিল সেগুলোও তিনি উঠিয়ে পরিবেশ সুন্দর করেছেন। উত্তর ইসলামপুর পিটিআই সড়কের ভিতরে রাস্তার অনেকগুলো দোকান বসে সড়ক অবরুদ্ধ করে ফেলেছিল সেগুলো পুলিশ সুপারের নির্দেশে উঠে গেছে। উত্তর ইসলামপুরে বসবাসকারী মাসুদরানা জানান, পিটিআই স্কুলের রোডের অবৈধদখলদার দোকানদারদের উচ্ছেদের ফলে মানুষের চলাচলে একটা প্রাণ ফিরে পেয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম (পিপিএম) জানান, সড়কের মধ্যেই সিএনজি থেকে চাঁদা তুলতে দেখে বিষয়টির ব্যাপারে কড়া নির্দেশ দেই। সড়কের মধ্যে কোন চাঁদাবাজী চলবে না। এ ব্যাপারে কোন ছাড় নেই।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY