রংপুরকে হারিয়ে শীর্ষস্থান সুসংহত ঢাকার

ক্রীড়া প্রতিবেদক: প্রথমে ব্যাটসম্যান, পরে বোলাররা; ঢাকা ডায়নামাইটসের দুই বিভাগের খেলোয়াড়রা যেনো বোঝাতে চাইলেন দলের জয়ে কেউ কারো চেয়ে কম অবদান রাখতে চাননা! ফলে যা হওয়ার তাই হয়েছে; ডায়নামাইটসদের ব্যাটিং-বোলিং শিলপাটায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ গেছে রংপুর রাইডার্সের। বুধবার সাকিব আল হাসানের দলের ছুঁড়ে দেওয়া ১৮৯ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৪২ রানের হার নিয়ে মাঠ ছেড়েছে রাইডার্সরা। আর দাপুটে জয়ের দিনে টেবিলের শীর্ষস্থানটি সুসংহত করেছে ডায়নামাইটস শিবির।

মিরপুরের শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে বিপিএলের ম্যাচে এদিন শুরুতে নির্ধারিত ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৮৮ রান তোলে ঢাকা ডায়নামাইটস। এভিন লুইস ৭৫ ও মেহেদি মারুফের ৪০ রানে এই সংগ্রহ দাঁড় করায় দলটি। জবাবে জিয়াউর রহমানের ৬০ রানে নির্ধারিত ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৪৬ পর্যন্ত যেতে পেরেছে রংপুর রাইডার্স।

এই জয়ে ১০ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থান মজবুত করল ঢাকা ডায়নামাইটস। আর সমান ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের পাঁচে থাকল রংপুর রাইডার্স।

রংপুর বড় লক্ষ্যে ছুঁটতে যেয়ে দশ ওভারের মধ্যেই ৬টি উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায়। সেসময় স্কোরবোর্ডে জমা পড়েছে মাত্র ৪৬ রান। এরপরও দলীয় রানটা যে ভদ্রস্থ জায়গায় গেলো তার পেছনে অবদান সোহাগ গাজী ও জিয়াউর রহমানের। এই দুই অলরাউন্ডার প্রতিরোধ গড়ে ৮৭ রান যোগ করেছেন ৯.২ ওভারে।

সোহাগ গাজীর বিদায়ে ভাঙ্গে দারুণ বিনোদন যোগানো জুটিটি। ফেরার আগে ৩ চার ও ১ ছয়ে ২৬ বলে ৩৬ রান করেছেন গাজী। আর জিয়াউর রহমান ইনিংসের শেষ বলে ফিরেছেন ৬০ রানে। তার আগে ৬ চার ও ৩ ছয়ে ৪৩ বলে ঝলমলে ইনিংসটি সাজিয়েছেন তিনি।

রংপুরের হয়ে বাকিদের মধ্যে নাসির জামশেদ ২১ ও লিয়াম ডওসন ১১ রান করেছেন। আর ওপেনিংয়ে প্রমোশন পাওয়া শহিদ আফ্রিদি ২ বলে রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে হাঁটা দেন। ঢাকার হয়ে আবু জায়েদ ৪ ওভারে ২০ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন। সাকিব আল হাসান ২টি ও ১টি করে উইকেট নিয়েছেন ব্রাভো এবং প্রসান্না।

এর আগে এভিন লুইস ও মেহেদি মারুফের ব্যাটে শুরুর তাণ্ডবে বড় সংগ্রহ গড়ে ঢাকা। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে এদিন এভিন-মারুফের কল্যাণে ২৩ মিনিটেই দলীয় ফিফটি ছুঁয়ে ফেলে দলটি। ক্রিকেটের হিসেবে সেটিতে লেগেছে ৫.২ ওভার। পরে মাত্র ২১ বলে নিজের পঞ্চাশ ছুঁয়েছেন এভিন লুইস। যাতে ছিল ২টি চার ও ৬টি ছয়ের মার। শেষ পর্যন্ত ব্যক্তিগত ৭৫ রানে থেমেছেন এভিন। ৩ চার ও ৮ ছয়ে ৩৪ বলে নিজের ইনিংসটি সাজিয়েছেন তিনি।

এভিনের সঙ্গে ১০৩ রানের জুটি গড়ে ফিরে গেছেন মেহেদি মারুফ। ৩টি করে চার-ছয়ে ৩১ বলে ৪০ রানে সাজঘরে হাঁটা দেন এই উদ্বোধনী। এরপরই দ্রুত সেকুগে প্রসান্না (১) ও আন্দ্রে রাসেলকে (৮) হারায় ঢাকা। সেখান থেকে মাঝে সাকিব আল হাসান ৩ চার ও ১ ছয়ে ২০ বলে ২৯ রান তুলে রানের গতিটা ঠিক রাখেন। এছাড়া ডোয়াইন ব্রাভো ১৬, মোসাদ্দেক হোসেন অপরাজিত ১৪ রান করেছেন।

রংপুরের হয়ে দারুণ বোলিং করেছেন রুবেল হোসেন। ৪ ওভারে ২৫ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন এই পেসার। এছাড়া সৌম্য সরকার ও জিয়াউর রহমান নিয়েছেন ২টি করে উইকেট।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY