শুক্রবার 22 মার্চ 2019 - ৮, চৈত্র, ১৪২৫


ড. আ ন ম এহছানুল হক মিলন:

একজন সফল মন্ত্রীর ‌দুঃখগাঁথা

১৮ নভেম্বর, ২০১৮ ১৫:৫৯:০৪

ছবি- এ ওয়ান নিউজ
ছবি- এ ওয়ান নিউজ

আনোয়ার বারী পিন্টু: সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আনম ড. এহছানুল হক মিলন দেশে ফিরেছেন। বর্তমানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোরতায় আদালতে উপস্থিত হয়ে আত্নসমর্পন করতে পারছেন না তিনি।  পুরো পরিবারসহ উৎকন্ঠার মধ্যেই বর্তমানে দেশে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি।

জানা যায়, বিএনপির আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. এহছানুল হক মিলনের বিরুদ্ধে একাধিক রাজনৈতিক মামলা রয়েছে। এসব মামলায় নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর তাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়। দীর্ঘ ১৭ মাস কারাভোগ করে আদালত থেকে জামিন নিয়ে তিনি চিকিৎসা ও উচ্চ শিক্ষার জন্য বিদেশে পাড়ি জমান। যুক্তরাষ্ট্র ও মালয়েশিয়ার প্রবাস জীবনে তিনি আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর গত ১৩ নভেম্বর কৌশলে দেশে ফিরে আসেন। দেশে ফেরার এখনো আইনী সহায়তা নিতে তিনি আদালতে উপস্থিত হতে পারেননি। অপহরনের আশংকায় পুলিশের হাতে গ্রেফতার এড়াতে বর্তমানে তিনি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

এ বিষয়ে কথা হলে ড. মিলনের সহধর্মীনি নাজমুন নাহার বেবী বলেন, ড. মিলন উচ্চ শিক্ষা সম্পন্ন করে বর্তমানে দেশে ফিরেছেন। তিনি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে আদালতে আত্নসমর্পন করতে চান। কিন্তু তিনি যাতে আদালতে যেতে না পারেন সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর অবস্থান নিয়েছেন। আদালতে পৌঁছানোর আগেই তাকে গ্রেপ্তার করতে চাইছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আমরা আশংকা করছি,  রাস্তাঘাট থেকে পরিকল্পিতভাবে আটক করা হলে ড. মিলনকে অপহরন করা হতে পারে। এ বিষয়ে আদালত ও নির্বাচন কমিশনের (ইসি) হস্তক্ষেপ কামনা করি আমরা।

 

একমাত্র কন্যা এবং স্ত্রী সাথে আ ন ম হক।

বেবী আরো বলেন, সম্পূর্ণ ফিল্মি স্টাইলে আমাদের গুলশানের বাড়ি, কচুয়ার গ্রামের বাড়ি এমনকি আমার বাবার বাড়িতেও দফায় দফায় হানা দিচ্ছে পুলিশ। এতে পুরো পরিবারসহ আমাদের আত্মীয়স্বজনরাও ঘরছাড়া। পুলিশের ভয়ে আমি নিজেও পালিয়ে বেড়াচ্ছি।

একই বিষয়ে কথা হলে,  ডঃ এহসানুল হক মিলন ফ্যান ক্লাবের সহ সভাপতি  ও কচুয়া উপজেলার ১০ নং ইউনিয়ন যুবদল নেতা মো: হুসাইন জাকির বলেন, ড. এহছানুল হক মিলন দেশের শিক্ষাখাতে প্রশংসনীয় অবদান রেখেছেন। তিনি এই দেশ এবং জাতির গর্ব। অথচ প্রতিহিংসার রাজনীতির শিকার হয়ে আজ তিনি সীমাহীন কষ্টের জীবন অতিবাহিত করছেন। যতই ষড়যন্ত্র হোক কচুয়াবাসী ড. মিলনের সাথেই আছেন এবং সত্যের জয় একদিন হবেই।

উল্লেখ্য, সাবেক শিক্ষা দেশের শিক্ষা খাতে অসামান্য অবদানের রূপকার । তারুন্য নির্ভর, স্পষ্টবাদী ও অবিচল নেতৃত্বে ড. মিলনের জুড়ি নেই। কিন্তু এহছানুল হক মিলন প্রায় ৩৭ টি মামলায় রাজনীতির দীর্ঘ প্রতিহিংসার শিকার হয়ে কখনো জেলে, কখনো প্রবাসে একরকম মানবেতর জীবন যাপন করেছেন। দেশের ফিরেও পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে তাকে। মামলাগুলোতে তার বিরুদ্ধে মহিলাদের ভ্যানিটি ব্যাগ চুরি,  গলার চেইন ছিনতাই, গরু চুরি, ইভটিজিংসহ  বিভিন্ন অভিযোগ আনা হয়েছে।

ড. আ ন ম এহছানুল হক মিলন শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী থাকা কালে তিনি দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনেন। তখন তার নানা পরিকল্পনা দেশজুড়ে প্রশংসা অর্জন করেছে। নকল বিরোধী আন্দোলনে ড. মিলনের ঝটিকা অভিযান ছিলো ইতিহাসে একটি মাইলফলক। ড. মিলনের প্রচেষ্টায় সারা দেশের পরীক্ষা কেন্দ্র গুলোতে নকল সরবরাহ পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। তিনি জাতিকে একটি নকলমুক্ত শিক্ষা ব্যবস্থা উপহার দিয়েছেন। বর্তমানে ড. মিলনের উপর এমন নির্মমতা প্রগতিশীল মানুষদের নিরুৎসাহিত করবে, তারা রাজনীতি এবং রাষ্ট্র চিন্তা থেকে পিচু হটবে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। 

এমন প্রেক্ষাপটে আজ রবিবার, পুলিশের বেআইনী তৎপরতা ও হয়রানীর প্রতিকার চেয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছে পাঠানো কটি পত্রে এহছানুল হক মিলন বলেন, ২০০৯ সালের নির্বাচনের পর থেকেই আমি ভয়ানকভাবে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। কেবল মাত্র রাজনৈতিক অসৎ উদ্দেশ্যে আমাকে ঘায়েল করার জন্য নানা রকম হাস্যকর ও উদ্ভট অভিযোগে আমার বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই সংসদীয় আসনে আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বিশেষ প্রভাবশালী হওয়ার ফলশ্রুতিতে পুলিশী ব্যবস্থাসহ গোটা প্রশাসনের উপর অনৈতিক প্রভাব বিস্তারের মাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক নীপিড়নের এক নিকৃষ্ট দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। জনৈক মহিলার ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনতাই, ঘড়ি চুরি, কারো পুকুরের মাটি চুরির মতো হাস্যকর অভিযোগে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলায় আমাকে গ্রেফতার করে কারাগারে নিক্ষেপ করা হয়। দীর্ঘ ১৮ মাস কারাবাসে থাকা অবস্থায় আমি গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়ি। এরপর এক পর্যায়ে জামিনে মুক্তি পেয়ে চিকিৎসার জন্য আমি বিদেশ গমন করি। চিকিৎসকদের পরামর্শে দীর্ঘমেয়াদে চিকিৎসা গ্রহনের প্রয়োজনে আমাকে চার বছররেও অধিক সময় বিদেশে অবস্থান করতে হয়। অবশ্য এই সময়ে চিকিৎসার পাশাপাশি মালয়েশিয়ায় একটি আর্ন্তজাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আমি বাংলাদেশে কারিগরি শিক্ষার উন্নয়ন বিষয়ে পিএচডি গবেষনার কাজ সফলভাবে সম্পন্ন করি। গত ১০ নভেম্বর উক্ত বিশ্ব বিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে আমার হাতে পিএচডি ডিগ্রির সনদ তুলে দেওয়া হয়। এরপরই ১৩ নভেম্বর, ২০০৮ ইং আমি দেশে ফিরে আসি। ইতিমধ্যে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ গ্রহণের লক্ষ্যে আমার পক্ষে আমার স্ত্রী নাজমুন নাহার বেবী দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ, ও জমা প্রদানসহ যাবতীয় প্রস্তুতিমূলক কর্মকান্ড সম্পন্ন করেছেন।

চিঠিতে ড. মিলন আরো লেখেন,  আমি একাধীন বিশ্বস্তসূত্রে নিশ্চিত হতে পেরেছি যে, পুলিশ আমাকে আদালতে হাজির হওয়ার সুযোগ না দিয়ে বাহির থেকে গ্রেফতার, অত:পর নতুন নতুন মিথ্যা মামলা দিয়ে রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতনের লক্ষ্যেই এমন ত্রাসের পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে।

ড. মিলন লেখেন, যেহেতু নির্বাচনী আইন অনুযায়ী বর্তমান পুলিশসহ সমগ্র প্রশাসন নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রনাধীন, সেকারনে আমাকে ঘিরে পুলিশ প্রশাসনের এহেন বেআইনী তৎপরতা বন্ধ এবং আইনী প্রক্রিয়াসহ স্বাভাবিক নির্বাচনী কর্মকান্ডে যুক্ত হওয়ার পথে সকল প্রতিবন্ধকতা দূরীকরনে আমি নির্বাচন কমিশনের কার্যকর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।'

তার সফলতার গল্প নিয়ে লেখা বই


বার পঠিত

এ সম্পর্কিত খবর

ভোলায় লঞ্চে উঠতে গিয়ে মেঘনা নদীতে পড়ে একজন নিখোঁজ

ভোলায় লঞ্চে উঠতে গিয়ে মেঘনা নদীতে পড়ে একজন নিখোঁজ

ভোলা প্রতিনিধি: ভোলার চরফ্যাশনে বেতুয়া লঞ্চ ঘাটে ফারহান-৫ লঞ্চে উঠতে গিয়ে মেঘনা নদীতে পড়ে হানিফ(৫০)

বিশ্ব নাট্য দিবস উপলক্ষে না’গঞ্জ  শিল্পকলা একাডেমি’র প্রস্তুুতি সভা অনুষ্ঠিত

বিশ্ব নাট্য দিবস উপলক্ষে না’গঞ্জ  শিল্পকলা একাডেমি’র প্রস্তুুতি সভা অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার: আগামী ২৭ মার্চ বিশ্ব নাট্য দিবস উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত

প্রবীণ সাংবাদিক আবদুর রব’র মৃৃৃৃত্যুতে বন্দর থানা প্রেসক্লাবের  শোক

প্রবীণ সাংবাদিক আবদুর রব’র মৃৃৃৃত্যুতে বন্দর থানা প্রেসক্লাবের  শোক

স্টাফ রিপোর্টার: বন্দর থানা প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য একাত্তুরের সহ-মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রব(৭৬)আর নেই। বুধবার রাত ৮টায়


দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের অবস্থান চলছে...চলবে

দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের অবস্থান চলছে...চলবে

আজ ২১ মার্চ ২০১৯ইং বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান একযোগে এমপিও’র দাবীতে নন-এমপিও শিক্ষা

পঞ্চগড়ে মাটির নিচে চাপা পরেও বেঁচে গেলেন দুই গৃহবধূ

পঞ্চগড়ে মাটির নিচে চাপা পরেও বেঁচে গেলেন দুই গৃহবধূ

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ে দূর্ঘটনার শিকার হয়ে মাটির ১০ ফিট গভিরে চাপা

অর্ধ কোটি টাকা ব্যায়ে মাসদাইরে রাস্তা সংস্কার কাজের উদ্বোধন

অর্ধ কোটি টাকা ব্যায়ে মাসদাইরে রাস্তা সংস্কার কাজের উদ্বোধন

আজ ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের তত্বাবধানে প্রায় অর্ধ কোটি টাকা ব্যায়ে


দশ পরিবারকে দুই কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা  

দশ পরিবারকে দুই কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা  

নিজস্ব প্রতিবেদক:চিকিৎসা ও জীবিকা নির্বাহের খরচ মেটাতে দশ পরিবারকে দুই কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন

উন্নয়ন করতে গিয়ে গরিব মানুষের যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়: প্রধানমন্ত্রী

উন্নয়ন করতে গিয়ে গরিব মানুষের যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়: প্রধানমন্ত্রী

এওয়ান নিউজ: উন্নয়ন করতে গিয়ে গরিব মানুষের জীবন ও জীবিকা যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেদিকে

মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ভারতীয় ক্যাপ্টেন মারা গেছেন

মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ভারতীয় ক্যাপ্টেন মারা গেছেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতীয় মিত্র বাহিনীর হয়ে বাংলাদেশ নৌ বাহিনী প্রতিষ্ঠায় সহায়তা



আরো সংবাদ

বাংলাদেশের পূর্ণ বিজয়

বাংলাদেশের পূর্ণ বিজয়

১৬ মার্চ, ২০১৯ ১২:৪৬

‘জয় বাংলা কনসার্ট’

‘জয় বাংলা কনসার্ট’

০৭ মার্চ, ২০১৯ ১৭:০৪


মাসরুর আরেফিনের ‘আগস্ট আবছায়া’

মাসরুর আরেফিনের ‘আগস্ট আবছায়া’

১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১৮:১৭

তিস্তা নদীতে চলছে গরুর গাড়ি!

তিস্তা নদীতে চলছে গরুর গাড়ি!

১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১৭:৫১

একজন আল মাহমুদ 

একজন আল মাহমুদ 

১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১৫:০৮



এই যুবদলের প্রয়োজন কি?

এই যুবদলের প্রয়োজন কি?

০২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১১:৫৫





ব্রেকিং নিউজ






ছাতকে ভূয়া ডিবি পুলিশ আটক

ছাতকে ভূয়া ডিবি পুলিশ আটক

২১ মার্চ, ২০১৯ ২২:৩৭