মঙ্গলবার 21 মে 2019 - ৭, জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬

আসিফ সোহান :

আর কতো লাশ চায় রাজউক

আসিফ সোহান | প্রকাশিত ২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:৪৭:৫৩

ঢাকা শহড়ে একেরপর এক ঘটে গেলো স্বরনকালের  মর্মান্তিক অগ্নিকাণ্ড, নীমতলি থেকে চুরিহাট্টা, সর্বশেষ বনানীর এফ আর টাওয়ারের প্রানহানি। এসব দুর্ঘটনায় ক্রমেই লাশের মিছিলে যুক্ত হচ্ছে শিশু, নারী, বৃদ্ধ, সন্তানসম্ভবা মা সহ শত শত নাম। প্রত্যেকটি ঘটনার পরেই নামমাত্র নড়েচড়ে বসে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা। গনমাধ্যমগুলো গরম হয়ে ওঠে কিছুসময়ের জন্যে। টকশোতে একে অপরকে দোষারোপের তীর ছোড়াছুড়ি চলে দুএকদিন। সরকারের তরফ থেকে দেওয়া হয় নানা প্রতিশ্রুতি। গঠনকরা করা হয় লোক দেখানো তদন্ত কমিটি। এরপরেই একসময় এসে থেমেযায় সবকিছু। যতদিন না আবারো কোনো নতুন দুর্ঘটনায় আপনজন হারাদের চিৎকারে ভারি না হয় নগরের বাতাস,  পুড়ে কয়লা হয়ে লাশের কাতারে নাম না লিখায় ততদিন আর কারো যেন কিছুই করার থাকে না। 

এযেন ঢাকা বাসিদের নির্মম এক নিয়তিতে পরিনত হয়েছে। চুরিহাট্টার পর  বনানীর অগ্নিকাণ্ডে মর্মান্তিক  মৃত্যুর পর দেখা গেল ভবনের মালিক ও ডেভলপার প্রতিষ্ঠান রাজউকের নকশা বহির্ভূতভাবে ভবনটি তৈরী করেছিল। যে প্রতিষ্ঠানের এসব অনিয়ম দেখা প্রতিরোধ করা দরকার সেই রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এর কোন নজরদারীই এখানে ছিলনা। বা হতেপারে যে শর্ষে দিয়ে ভূত ছারাবে সেই শর্ষের মধ্যেই ছিলো আসল ভূত। যে রাজউকের দায়িত্ব অবৈধ  স্থাপনা অনুমোদন না দেওয়া জনগণের স্বার্থদেখা তারাই টাকা খেয়ে এসকল অসাধু  নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আর ভবন মালিকের স্বার্থরক্ষা করে যাচ্ছে দিনেরপর দিন।ঢাকা

এফ আর টাওয়ারের অগ্নিকাণ্ডের পর একের পর প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে রাজউকের কর্মকান্ড। বিভিন্ন সংস্থা থেকে   রাজউকের দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরে বলা হচ্ছে  দুর্নীতিতে আকন্ঠ ডুবে আছে রাজধানী উন্নয়ন কতৃপক্ষ্য (রাজউক)। নতুন গৃহায়ন ও গনপূর্ত মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রীও দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের বলেছে এসকল অবৈধ ভবন ভেঙ্গে দেওয়া হবে আর নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এবং রাজউকে কেউ এর সাথে জড়িত আছে কিনা সেটাও খতিয়ে দেখে উভয়ের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে। 

অবাক করার বিষয় হচ্ছে যে রাজউকের কর্মকান্ড নিয়ে মন্ত্রী সাংবাদিক সম্মেলন করছে সেই রাজউকের কর্মকর্তাই দুজন সংবাদ সম্মেলন চলাকালে মন্ত্রীর পেছনে বসে ঘুমাচ্ছিলেন। বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে এবং সোশাল মিডিয়াতে হাজার হাজার মানুষ এগুলো দেখে ছিছি করে বলেছে রাজউক সবসময় এরকম ঘুমিয়েই কাটায়। জনগন ছি ছি করলেও রাজউকের ঘুম ভাঙ্গাতে যেনো নয়া এই মন্ত্রী একেবারেই অক্ষম।  অগ্নিকান্ডের পর শ ম রেজাউল করিম বলেছিলেন অবৈধ ভবন মালিক ও নির্মাতা প্রতিষ্ঠান  যত ক্ষমতাধর ব্যাক্তিই হোক তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। 

কিন্তু জনগনের দাবি বাস্তব চিত্র একেবারেই উল্টো। খোদ ঢাকার প্রানকেন্দ্র রাজউক ভবন থেকে আধা কিলোমিটার দুরত্বে শহীদবাগ এলাকা। সেখানে ক্ষমতার অপব্যাবহার করে রাজউকের কতিপয় অসাধু পরিদর্শকের যোগসাজশে  প্ল্যান ,নকশা এলাকাবাসির বাধা কোনো কিছুর তোয়াক্কা না করেই একের পর এক গড়ে তোলা হচ্ছে সুউচ্চ ভবন। এলাকাবাসীর পক্ষ্যথেকে একাধিকবার রাজউক চেয়ারম্যান বরাবর আবেদন করেও কোনো লাভ তো হচ্ছেইনা উল্টো রাজউকের পরিদর্শকদের জোকসাজশে দ্রুতগতিতে বেড়ে উঠছে অবৈধ স্থাপনা গুলো। যেন ভবন করে ফেলতে পারলেই আর ভাঙ্গে কে ?

অবৈধ স্থাপনাবন্ধে এলাকাবাসী সাংবাদিক সম্মেলন  করে রাজউকের এই অনিয়মের কথা তুলে ধরলেও কোন এক অদৃশ্য শক্তির কারনে এসকল অবৈধ ভবনের কাজ বন্ধের কোনো পদক্ষেপ নেওয়াতো হচ্ছেইনা উল্টো রাজউকের পক্ষথেকে গড়িমসি করে করে সময়ক্ষেপনের মাধ্যমে অবৈধ স্থাপনা গড়েতুলতে সহযোগিতাই করা হচ্ছে বলে এলাকাবাসীর দাবি করছেন। 

এলাকাবাসীর দাবি যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বয়ং নিজে বলেছেন রাজউকের নকশা এবং অনুমোদনহীন ভবন কোনো ভাবেই গড়ে উঠতে পারবেনা। সেখানে এসকল ভবন মালিক কিভাবে তাদের এই আইন না মেনে ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। তবেকি এরা প্রধানমন্ত্রীর চাইতেও ক্ষমতাসম্পন্ন লোক।

শহীদবাগ এলাকার স্থানীয় (হোল্ডিং-৮৮৯) বাসিন্দা মিসেস তসলিমা খোকন সাংবাদিকদের বলেন ‘রাজারবাগ পুলিশ লাইনের উত্তরপাশে ঢাকা ব্যাংক সংলগ্ন হোল্ডিং নং ১৭ ও ১৮ আউটার সার্কুলার রোড, দক্ষিণ শাজাহানপুর ঢাকা ১২১৭ নাম্বার ঠিকানায় ভাইয়া হাউজিং লি: এর নামে রাজউকের স্বারক নং অঅ-৬/১/এসি -৫৪৬/২০১৫/১৪৫ মুলে অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী কাজ না করে সম্পুর্ন ভবনটি নকশা বহির্ভূত ভাবে নির্মাণ করা হচ্ছে। আমরা একাধিকবার   রাজউক চেয়ারম্যান, গৃহায়ন ও গনপূর্ত মন্ত্রী এবং দুদক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেও কোন সমাধান পাচ্ছিনা । শেষ ১২/৩/২০১৯ তারিখে আবারো আরেকটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

আরেক অভিযোগকারি শহীদবাগের স্থানীয় (৯২২-বাসা) বাসিন্দা মো মনিরুজ্জামান এলাকাবাসীর পক্ষথেকে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেছেন ‘রাজারবাগ পুলিশলাইনের উত্তরে হোল্ডিং নং ৮৮০,৮৮১,১৫,১৬ ঠিকানায় জনাব আকরাম হোসেন হুমায়ুন গং এর নামে আপনার (রাজউক) স্বারক নং  অঅ -৬/১/৩মি -৩২৮/২০১৪/১৪৮ স্থ। তারিখ ২২/০৩/২৯১৫ মুলে ইসুকৃত নির্মাণ অনুমোদন পত্র এবং বিসি কমিটি কতৃক একটি বহুতল ভবনের অনুমোদন নেয়। কিন্তু আকরাম হোসেন গং এবং তার সমর্থিত ডেভেলপার প্রতিষ্ঠান ক্ষমতা দেখিয়ে সম্পূর্ন নিয়ম বহির্ভুত ভাবে ভবনটি নির্মাণ করে চলেছে।

মনিরুজ্জামান আরো বলেন রাজউকের মুল নকশায় ভবনের সম্মুখ ভাগের ৮০ ফুট প্রস্তুত রাস্তা হতে ভাইনের প্রবেশপথ/ রেম্পস্ দেখানো হয়েছে। অথচ নকশা অনুযায়ী সম্মুখভাগে কোন প্রবেশপথ না থাকায় ১২ ফুট একটি  সরু রাস্তাদিয়ে প্রবেশপথ তৈরি করা হয়েছে। যা সম্পুর্ন নকশা বহিভূত ভাবে বেআইনী ভাবে গড়ে তুলছে। এখানে যদি কোনোরকম দুর্ঘটনা বা আগুন লাগে তাহলে সবার একসঙ্গে পুড়েমরা ছারা আর কোন পথ থাকবেনা।এই সকল দুর্ঘটনায় মৃত্যু হলে তার দায় কী তাহলে রাজউক নেবে? 

মো শহিদুল ইসলাম ৮৯০ নং হোল্ডিং এর বাসিন্দা রাজউকের চেয়ারম্যান, গৃহায়ন গনপুর্তমন্ত্রী সহ দুদকে লিখিত অভিযোগ করেছেন যে ‘শহীদবাগ মসজিদের পশ্চিমপাশ সংলগ্ন ৮৯৫ মৌজা, শহীদবাগ, শাজাহানপুর ১২১৮ ঠিকানায় ও কে প্রপার্টিজ লি: রাজউকের স্বারক নং ২৫-৩৯-০০০০-১২২,৩৩,৬৩৯১৭-৭৪৫ ছা: তাং ৩১/১২/২০১৭ ইং মুলে অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী কাজ না করে বেআইনী ভাবে ভবন নির্মাণ করে চলেছে।

এলাকাবাসীর পক্ষে আরেক অভিযোগকারী ৮৮৮ নং শহীদবাগের স্থানীয় বাসিন্দা মো রিপন একিভাবে ১২/০৩/২০১৯ তারিখে রাজউক চেয়ারম্যান বরাবর ও গৃহায়ন ও গনপুর্তমন্ত্রী বরাবর সামিন ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের বিরুদ্ধে অভিযোগে লিখেছেন ‘শহীদবাগ মসজিদ সংলগ্ন ৮৮৭ নং মৌজা খিলগাঁও, শাজাহানপুর ঢাকা ১২১৭ নকশা অনুযায়ী ভবন নির্মাণ না করে সম্পুর্ন অবৈধ ভাবে ছয়তলা ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। 

এসকল বিষয়ে এলাকাবাসীর দাবি আমরা সংবাদ সম্মেলন করেও কোন লাভ হচ্ছেনা। এর মধ্যে একটি ভবনের মালিক ব্যাবসায়ি আকরাম হোসেন সরকারের কিছু লোকের মদদপুষ্ট হওয়ার কারনে রাজউক হুমায়ুনকে ২২/০২/২০১৭ ইং তারিখে একটা লোকদেখানো নোটিশ করেই দায়িত্ব শেষ করে বসে আছে। এদিকে নোটিসের কোনরকম তোয়াক্কা নাকরেই দ্রুতগতিতে চলছে অনুমোদিত নকশা বহির্ভূত নির্মান কাজ।

এলাকাবাসী বক্তব্য ‘যেখানে হাজার হাজার মানুষের প্রানহানী ঘটছে এসকল অবৈধ ভাবে নির্মিত ভবনের ককারনে। যেখানে গৃহায়ন গনপুর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম রাজউকের বিল্ডিং কোড ও নকশা বহির্ভূত অবৈধ স্থাপনা গুলোর বিরুদ্ধে  অভিযান পরিচালনার জন্য খোদ প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে অনুমতি প্রাপ্ত হয়ে ক্ষমতাশালীদের অবৈধ ভবন ভেঙ্গে ফেলবার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যাক্ত করেছেন। নিতিভ্রষ্ট ডেভলপার ও ভবন মালিকদের বিরুদ্ধে এমনকি রাজউকের দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধেও ব্যাবস্থা নেওয়ার কথা বলছে, সেখানে রাজউকের নাকের ডগায় ১২ ফুটের এক রাস্তায় যদি ২০/৩০ তলা এরকম অবৈধ ভবন নির্মাণ করা হয়। আর একারনে কোন দুর্ঘটনা বা অগুন লাগলে যে সকল মানুষ মারা যাবে যা ক্ষয়ক্ষতি হবে,   তার দায় কী রাজউকের চেয়ারম্যান বা মন্ত্রী নেবেন? 

জেনেবুঝে কিছু অসাধু লোকের ব্যাক্তি স্বার্থে শতশত নিরীহ মানুষকে সম্ভাব্য মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। একদিকে সংশিষ্ট মন্ত্রী, রাজউকের চেয়ারম্যান এমনকি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা হচ্ছে অবৈধ স্থাপনার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিতে হবে। অন্যদিকে খোদ ঢাকার প্রানকেন্দ্র শহীদবাগে একেরপর এক গড়ে উঠছে রাজউকের নকশাবহির্ভূত অবৈধ বহুতল ভবন। 

এই বিষয়ে গৃহায়ন ও গনপুর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিককে বলেন ‘আমার কাছে লিখিত অভিযোগ এসেছে, আমি রাজউক সহ সংশিষ্ট সবাইকে নির্দেশ দিয়েছিল অনিয়মের বিষয়ে খতিয়ে দেখে ব্যাবস্থা নিতে। 

রাউজকের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে বলেন, আমার কাছে লিখিত অভিযোগ আসার পর তাদের একটি নোটিসও দিয়েছি স্থাপনার কাজ বন্ধ রাখতে। দ্বিতীয় অভিযোগ পাওয়ার পর আমরা যথাযত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে শহীদবাগ এলাকাটি যার দায়িত্বে আছে ( ইন্জিনিয়ার আবুল কালাম আজাদ) তাকে তদন্ত করে বিষয়টা সম্পর্কে ব্যাবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এলাকাবাসী বলছে রাজউকের কেউ কখনো এখানে আসেই না।

এ ব্যাপাড়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত ইন্জিনিয়ার আবুল কালাম আজাদ কে টেলিফোন করা হলে তিনি সাংবাদিককে প্রশ্ন করেন ‘ভবনগুলো যে অবৈধ এটা আপনারা বুঝলেন কিভাবে। এর উত্তরে  তাকে প্রশ্ন করা হয়, ‘ভবন যদি অবৈধ না হবে, রাজউকের নকশা বহির্ভূত না হবে তাহলে তাদেরকে নোটিশ করেছিলেন কি কারনে? 

এটি শুনে আবুল কালাম আজাদ ‘কাগজ পত্র দেখে কথা বলতে বলবেন এবং তিনি একটি অভিযানে এসেছেন এখন কথা বলতে পারবেন না বলে টেলিফোন লাইন কেটে দেন। পরবর্তীতে তার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করাহলেও টেলিফোন রিসিভ না করায় আর কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এদিকে শহীদবাগ এলাকার জনগনের অভিযোগ রাজউকের লোকজনকে মাসোয়ারা দিয়েই এসব ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে কাজেই রাজউকের পরিদর্শক দিয়ে কোনো কাজ হবেনা। তারা জনগনের স্বার্থ না দেখে ডেভেলপারদের স্বার্থ দেখছে। অভিযোগকারি একজন প্রশ্নকরেন তাহলেকি এর কোনই প্রতিকার হবেনা। 

ভবন মালিক আর ডেভেলপার কম্পানির মালিকরা কি প্রধানমন্ত্রীর চাইতেও শক্তিশালী? তাহলে আর কতো লাশ হতে হবে আমাদের। কতো জায়গায় অভিযোগ করেও যখন এসব অবৈধ ভবন বন্ধ হচ্ছেনা। তাহলে আর কত মানুষ পুড়লে রাজউকের টনক নড়বে। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আর কত লাশ দেখতে চায় রাজউক।

****** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। এ ওয়ান নিউজ -এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য এ ওয়ান নিউজ কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না। ****



এ সম্পর্কিত খবর

লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান কেনার সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান কেনার সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

এওয়ান নিউজ: নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয়কে বেশি ধান কেনার ব্যবস্থা করতে বলেছে সংসদীয় স্থায়ী

টিকিট ছাড়া গণপরিবহন চলাচল করতে পারবে না: সাঈদ খোকন

টিকিট ছাড়া গণপরিবহন চলাচল করতে পারবে না: সাঈদ খোকন

এওয়ান নিউজ: রাজধানীতে টিকিট ছাড়া গণপরিবহন চলাচল করতে পারবে না বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি

নীলফামারীর ইট ভাটা গিলে খাচ্ছে আবাদী জমি: রাস্তাঘাটের বেহালদশা

নীলফামারীর ইট ভাটা গিলে খাচ্ছে আবাদী জমি: রাস্তাঘাটের বেহালদশা

নীলফামারী প্রতিনিধি: বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন ইটভাটা মালিকরা।কোন কিছুতেই থামানো যাচ্ছেনা তাদের দৌঁড়াত্ম। মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে


নিহত ৩০ হাজার চা শ্রমিকদের স্মরণে সিলেট ভ্যালী কার্যকরী পরিষদের শোক সভা 

নিহত ৩০ হাজার চা শ্রমিকদের স্মরণে সিলেট ভ্যালী কার্যকরী পরিষদের শোক সভা 

১৯২১ সালের ২০শে মে মুল্লুকে চল আন্দোলনে ব্রিটিশ গোর্খা বাহিনীর গুলিতে নিহত ৩০ হাজার চা

অসাধু ব্যবসায়ীরা বিষাক্ত কেমিক্যাল মিশিয়ে কৃত্রিম উপায়ে কলা পাকাচ্ছে

অসাধু ব্যবসায়ীরা বিষাক্ত কেমিক্যাল মিশিয়ে কৃত্রিম উপায়ে কলা পাকাচ্ছে

টি আই সানি গাজীপুরঃ কলা অনেকেরই প্রিয় ফল। পুষ্টিগুণেও অনন্য এই ফল। তবে ভোক্তার হাতে

শ্রীপুরের নতুন ইউএনও শেখ শামসুল আরেফীন  

শ্রীপুরের নতুন ইউএনও শেখ শামসুল আরেফীন  

টি.আই সানি গাজীপুরঃ গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার নতুন নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পদে শেখ শামসুল আরেফীনকে পদায়ন


সাধারন মানুষের খাদ্যের যোগান দিতে জমি থেকে ফসল কেটে আনছে কৃষক

সাধারন মানুষের খাদ্যের যোগান দিতে জমি থেকে ফসল কেটে আনছে কৃষক

সারওয়ার আলম মুকুল, কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি ঃ হরেক রকম পিঠা পায়েস রান্না হবে ঘরে, পাকা

গুমরে কাদছে মানবতা আর মানবাধিকার : মোস্তফা

গুমরে কাদছে মানবতা আর মানবাধিকার : মোস্তফা

কৃষক ধানের মূল্য না পেয়ে আগুন ক্ষেতে দিচ্ছে, পাট শ্রমিকরা তাদের মজুরী না পেয়ে রমজান

খাদিমপাড়াবাসীর মানববন্ধন ও সমাবেশ

শাহপরান থানার ওসি আক্তারের  অপসারন দাবিতে আলটিমেটাম

শাহপরান থানার ওসি আক্তারের  অপসারন দাবিতে আলটিমেটাম

সিলেটের শাহপরান থানার আলোচিত ওসি আক্তার হোসেনের প্রত্যাহার দাবিতে এক সপ্তাহের আলটিমেটাম দিয়েছে খাদিমপাড়া ইউনিয়ন



আরো সংবাদ

আমরা কোথায় আছি

আমরা কোথায় আছি

২০ মে, ২০১৯ ১২:৫১



পাকিস্তানি ভূত

পাকিস্তানি ভূত

০১ মে, ২০১৯ ১২:২১


প্রিয় নুসরাত

প্রিয় নুসরাত

২৭ এপ্রিল, ২০১৯ ১১:৫০

ব্যর্থ বিএনপির মিডিয়া উইং

ব্যর্থ বিএনপির মিডিয়া উইং

২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:১১

“সবই আছে, নেই শুধু নুসরাত”

“সবই আছে, নেই শুধু নুসরাত”

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ১৪:২৩

এ সংক্রামক ব্যাধিকে রুখতেই হবে

এ সংক্রামক ব্যাধিকে রুখতেই হবে

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ১২:২০


বিএনপির অদৃশ্য আন্দোলন!

বিএনপির অদৃশ্য আন্দোলন!

০৯ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:২৬

রাজনৈতিক দলে রাজনীতি নাই

রাজনৈতিক দলে রাজনীতি নাই

০৭ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:২৪


ব্রেকিং নিউজ