শনিবার 15 ডিসেম্বর 2018 - ৩০, অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫

কেঁচো চাষী কামরুন নাহারের গল্প

০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৬:৩৭:০৯

এওয়ান নিউজ ডেস্ক: ডাবরে কেঁচো চাষ করছিলেন কামরুন নাহার। টেলিভিশনে একদিন কেঁচো চাষের অনুষ্ঠান দেখে এর প্রতি আগ্রহ জন্মে তার। মনে মনে বলেন, কেঁচো চাষের পদ্ধতি যদি হাতেকলমে শিখতে পারতেন। সেই আগ্রহ থেকেই কেঁচো চাষের ওপর প্রশিক্ষণ নেন।
 
এ প্রসঙ্গে নওগাঁর মান্দা উপজেলার বিজয়পুর গ্রামের মৃধাপাড়ার গৃহবধূ কামরুন নাহার বলেন, মাধ্যমিকের পর আর পড়াশোনা করতে পারলাম না। কিন্তু কিছু একটা করার ইচ্ছা সবসময় আমাকে তাড়িয়ে বেড়াত। তা থেকে বাড়িতেই কেঁচো খামার গড়ে তুলি। এখন কেঁচো চাষ করছি। এলাকায় কৃষাণী হিসেবে পরিচিতিও পেয়েছি।

২০১৪ সালে একটি বেসরকারি সংস্থা সিসিডিবি থেকে বিজয়পুর গ্রামে কেঁচো চাষের ওপর একদিনের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এই প্রশিক্ষণে ৩৫ জন নারী অংশ নেয়। তাদের মধ্যে কামরুন নাহারও ছিলেন। ওই সংস্থা থেকে একটি করে ডাবর (মাটির বড় পাত্র) ও কিছু কেঁচো ও উপকরণ দেয়া হয়। এইটুকু সহযোগিতা কামরুন নাহারকে স্বপ্ন পূরণে পৌঁছে দেয়।

এরপর কেঁচো সার তৈরি করতে কামরুন নাহারকে আর বেগ পেতে হয়নি। কারণ কেঁচো সার তৈরির প্রধান উপকরণ গোবর। তার দুটি গরু রয়েছে। আছে দুটি বাছুরও। খামারে গরুগুলো সবসময় বাঁধা থাকে। সেখানে গরুগুলোকে পরিচর্যা করা হয়। কেঁচো সার তৈরিতে প্রথমে গোবরকে বালু ও আবর্জনা মুক্ত করেন। এরপর একটি প্লাস্টিকের বস্তায় ভরে মুখ বেঁধে ১০-১২ দিন ছায়াযুক্ত স্থানে রেখে দেন।

কারণ এসময়ের মধ্যে গোবর থেকে গ্যাস বেরিয়ে যায় এবং কালচে রং ধারণ করে। এরপর সেগুলো পলিথিনের বস্তার ওপর ঢেলে রিফাইন করে বা পানি দিয়ে হালকা নরম করে ডাবরে রাখা হয়। সেখানে কেঁচো ছেড়ে দিয়ে ছায়াযুক্ত স্থানে রাখা হয়। এভাবেই শুরু হয় সার তৈরির প্রক্রিয়া। কেঁচোর পরিমাণ বেশি হলে ১২-১৫ দিন।

আর যদি কেঁচোর পরিমাণ কম হয় তাহলে ১৮-২০ দিনের মতো সময় লাগে। বর্তমানে দুটি বড় এবং তিনটি মাঝারি আকারের ডাবরে কেঁচো সার তৈরি করেন তিনি। আলাদা করে তাকে আর কেঁচো কিনতে হয় না।

গোবরের মধ্যে কেঁচো ডিম দেয় এবং সেখান থেকেই কেঁচো জন্মে। আর এ সারগুলো তিনি নিজের কাজেই ব্যবহার করেন। যেমন বেগুন, লাউ, আদা, হলুদ, সিম, মরিচ চাষে এবং নারিকেল গাছের গোড়ায় ব্যবহার করেন। বাড়তিটুকু বিক্রি করেন।

এ পর্যন্ত প্রায় সাত হাজার টাকার কেঁচো বিক্রি করেছেন। আরও প্রায় চার হাজার টাকার মতো বিক্রি করবেন। প্রতি কেজি কেঁচো সারের দাম নেন ১০ টাকা। প্রতিবেশীরাই তার ক্রেতা। তার এ পদ্ধতি দেখে এখন অনেকেই কেঁচো সার তৈরিতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

এ প্রসঙ্গে তারই প্রতিবেশী গৃহবধূ জান্নাতুন নেছা বলেন, কেঁচো সার শিম গাছের গোড়ায় দিয়েছিলাম। কিছুদিন পর গাছের চেহারা সুন্দর হয়ে ওঠে। এখন গাছে শিম ধরতে শুরু করেছে। আগামীতে নিজেরাই কেঁচো সার তৈরি করব। জমিতে ফসলের ভালো ফলনের জন্য এটি খুবই উপকারী।

এ কাজে কোনো বাধার সম্মুখীন হয়েছেন কিনা এ প্রসঙ্গে কামরুন নাহার বলেন, যখন কেঁচো চাষ শুরু করি তখন বাড়ির অনেকেই বাধা দিয়েছেন। কিন্তু আমি দমে যাইনি। নিজের চেষ্টায় কেঁচো চাষে এগিয়ে চলেছি। সবজির ফলন ভালো হওয়ায় এখন আর কেহ বাধা দেয় না। আমার বাবা আনিছার রহমান মৃধাও এখন কেঁচো চাষে আগ্রহী হয়েছেন।

কেঁচো চাষ নিয়ে ভবিষৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে কামরুন নাহার জানান, আরও বড় পরিসরে কেঁচো চাষ করার ইচ্ছা আছে তার। সেক্ষেত্রে আর্থিক সহযোগিতাও দরকার। এলাকার কৃষকরা সবজি ও ধানের আবাদে রাসায়নিক সার ব্যবহার করেন।

তারা যেন ফসলে রাসায়নিক সারের পরিবর্তে কেঁচো সার বা জৈব সার ব্যবহারে আগ্রহী হয় সে ক্ষেত্রে কাজ করবেন তিনি। সবাই যখন কেঁচো সার নিজেরাই তৈরি করে জমিতে ব্যবহার করবে, তখন রাসায়নিক সারের চাহিদা কমে যাবে। এছাড়া আবাদের খরচও কম হবে।

মান্দা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, উপজেলায় বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে অনেকেই কেঁচো চাষ করছেন। বাণিজ্যিকভাবে এখনও চাষ শুরু হয়নি। তবে আগামীতে কেঁচো চাষীর সংখ্যা বাড়াতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হবে।

সরকারিভাবে এ পর্যন্ত ২০ সেট (৩টি রিং স্লাব, কেঁচো, খাদ্য) কেঁচো চাষের উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে। কৃষকরা নিজেরাই কেঁচো খাদ্য সংগ্রহ করেন।



এ সম্পর্কিত খবর

রাজারহাটে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত

রাজারহাটে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত

এ.এস.লিমন রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ- কুড়িগ্রামের রাজারহাটে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বিনম্র শ্রদ্ধায় যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ বুদ্ধিজীবী

কাউনিয়ায় আমন ধানের বাম্পার ফলন

কাউনিয়ায় আমন ধানের বাম্পার ফলন

কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি ঃ বন্যার ভয়াবহ ক্ষতি পুশিয়ে উঠে কাউনিয়া উপজেলার মাঠে মাঠে আমন ধান

জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়ন সম্পর্কে এন ইউ’তে কর্মশালা

জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়ন সম্পর্কে এন ইউ’তে কর্মশালা

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ মশিউর রহমান এর সভাপতিত্বে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট হলে


ইতোমধ্যেই ভ্রমণ করেছেন ১১০টি দেশে

সারা বিশ্ব ঘুরে দেখার স্বপ্ন বাংলাদেশী যে নারীর

সারা বিশ্ব ঘুরে দেখার স্বপ্ন বাংলাদেশী যে নারীর

এওয়ান ফিচার ডেস্ক: বিশ্বের একশোটিরও বেশি দেশে ভ্রমণ করেছেন বাংলাদেশী এক নারী নাজমুন নাহার।সুইডেন প্রবাসী

অপপ্রচার বন্ধ না হলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে: মির্জা আলমগীর

অপপ্রচার বন্ধ না হলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে: মির্জা আলমগীর

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাষ্ট্রের অর্থের অপব্যবহার করে সরকার বিরোধী দলের বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা অপপ্রচার’ চালাচ্ছে বলে অভিযোগ

ভয়ংকর গোপন তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন জেলা প্রশাসকরা: রিজভী

ভয়ংকর গোপন তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন জেলা প্রশাসকরা: রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক: পরিকল্পিত নীলনক্সার মাধ্যমে সরকারের দলীয় প্রার্থীদের বিজয়ী করার জন্য লোক দেখানো নির্বাচন আয়োজনে


উমোজা নারী গোষ্ঠী

নারীদের নিরাপদ আবাস, পুরুষ ‘নিষিদ্ধ’!

নারীদের নিরাপদ আবাস, পুরুষ ‘নিষিদ্ধ’!

এওয়ান ফিচার ডেস্ক: কেনিয়ার সুন্দর সরল এক গ্রাম উমোজা। আফ্রিকার ঐতিহ্যবাহী যে রূপ দেখা যায়,

আইয়ুব বাচ্চুর গল্প শোনাবেন তারা

আইয়ুব বাচ্চুর গল্প শোনাবেন তারা

এওয়ান বিনোদন রিপোর্ট: ব্যান্ড কিংবদন্তি আইয়ুব বাচ্চু চলতি বছেরের ১৮ অক্টোবর না ফেরার দেশে পাড়ি দিয়েছেন।

দহন

কয়েক টুকরো সাহসী গল্প!

কয়েক টুকরো সাহসী গল্প!

এওয়ান বিনোদন রিপোর্ট: টুকরো-টুকরো কয়েকটি গল্প, ছোট-ছোট অনেক চরিত্রের বুনন। অথচ তাদের গন্তব্য এক জায়গাতেই।



আরো সংবাদ



নারীদের যে অভ্যাসগুলো ক্ষতিকর

নারীদের যে অভ্যাসগুলো ক্ষতিকর

১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১২:৩০



মিয়ানমারের নারী পাচার হচ্ছে চীনে!

মিয়ানমারের নারী পাচার হচ্ছে চীনে!

০৮ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১০:২৮








ব্রেকিং নিউজ



কলাপাড়ায় সুজন’র কমিটি গঠন

কলাপাড়ায় সুজন’র কমিটি গঠন

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২২:১২



তালায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত

তালায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২২:০৬