মঙ্গলবার 21 মে 2019 - ৭, জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬

তাঁহারা বিএনপি করেননা কেন?

অজয় দাশগুপ্ত | প্রকাশিত ০৯ অক্টোবর, ২০১৮ ১২:৪১:৪৯

সাত সকালে মিডিয়ায় বড় বড় নেতাদের ছবি দেখা পুন্যের বিষয় বৈকি। কতকাল আমাদের দেশে নেতা পয়দা হয়না। দুনিয়া জুড়ে রাজনীতির আকালে তারুণ্য বা নবীনপ্রজন্ম রাজনীতিতে আগ্রহীহীন। হয়তো সে কারণে আমাদের জাতির কপালে ঘুরে ফিরে সেই পুরনো মানুষদের ছাড়া আর কাউকে দেখার সৌভাগ্য জোটেনা। যাদের কথা বলছি তাদের আমরা সবাই চিনি।

সবাই মানি এককালে তাঁরা কিছু কিছু কাজ করে লাইমলাইটে এসেছিলেন। এখন এটাও মানি অতীতের সুনাম হারিয়ে এরা এমন এক জায়গায় এসে দাঁড়িয়েছেন তাড়ালেও তাদের আর যাবার কোন জায়গা নাই। থাকলে রেল লাইন ধরে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়া এককালের রাষ্ট্রপতির এমন চেহারা দেখতে হতো না।

বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্য ধন্য আর তাঁর কৃপায় পররাষ্ট্র মন্ত্রী হতে পারা ড: সাহেব নিজের দল নামে পারিচিত আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে জোট করে বঙ্গবন্ধু কন্যাকে হটানোর চেষ্টায় মাঠে নামতেন না। একটা কথা ভুল বললাম, এরা কেউ এখন আর মাঠে নামেন না। মাঠ দূরে থাক পিচ ঢালা রাস্তায় ও নামার মুরোদ নাই তাদের। তাদের সবকিছু চার দেয়াল বন্দি। তাও বিলাসবহুল বাড়ির ড্রয়িং রুমে।  আপনি ছবিটা দেখলেই বুঝতে পারবেন জোশ খানাপিনা আর বিলাসিতার ভেতর দিয়ে জনগণের কল্যাণ কামনায় একত্রিত হয়েছিলেন তাঁরা।

আগেই বলেছি এদের আমরা অনেককাল থেকে চিনি। ড: কামাল হোসেন নতুন প্রজন্মের কাছে অচেনা মানুষ। তাদের অনেকে তাঁর নামও শোনেনি। কিন্তু ভদ্রলোক একসময় আমাদের দেশের আওয়ামী রাজনীতিতে থেকে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপতি পদে ও দাঁড়িয়েছিলেন। যে জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে তাঁর এই সংগ্রাম শেষ বয়সে এসে তিনি জিয়ার দলের মুখপাত্রের কাজ করছেন। তাঁকে আমরা তাঁর যৌবনে এমনকি মধ্যবয়সেও সাহসী মানুষ ভেবে বড় ভুল ।

ভুল অবশ্য তিনিই ভাঙিয়ে দিতেন। ঢাকার মাজেদ সর্দারের দুই জামাইয়ের এক জামাই হানিফ করতেন আওয়ামী লীগ। আর একজন বিরোধী দলে। সেই ব্যরিস্টারের হুমকির মুখে তল্পিতল্পা গুটিয়ে দেশ ছেড়ে পালানো ড: কামাল হোসেনকে দেখে আবুল হাসনাত হয়তো মুচকি হাসতেন। কারণ তারা জানতেন ইনি যতবড় আইনজীবী ততবড় পলায়নপর । কেউ তাঁকে ফুলের টোকা দিবে বললেই তার গায়ে ফোসকা পড়ে। এই ননীর পুতুল কখনো দেশ বা জাতির কোনও সাধারণ মানুষের হবে এমন কোন আইনি লড়াই করেছেন যা বিনা ফি আর দেশের কল্যাণে লাগে? এটুকু করতে না পারা মানুষ নাকি জাতিকে কঠিন শাসন থেকে উদ্ধার করবে?

বি চৌধুরীর কথা বলাই বাহুল্য। যে দল তাঁকে রাষ্ট্রপতি করেছিল সে দলের সাথে কাইজা আর বিবাদে তাঁর করুণ পরিণতির পর তিনি কত মজার মজার কথা বললেন। আজ সেসব বেমালুম ভুলে গেছেন। খুব মনে আছে চট্টগ্রামের সার্কিট হাউসে নিহত জিয়াউর রহমানের পাশের রুমে দিব্যি আরামে রাত কাটিয়ে ফিলিপিনো হাওয়াই সার্ট গায়ে বেরিয়ে আসা তাকে বিএনপি অনেকদিন সন্দেহের চোখে রাখলেও একসময় কথার তুবড়ি ফুটিয়ে জায়গা করে নিয়েছিলেন। ঐ কথাই তার সম্পদ।

যখন বিটিভিতে আপনার ডাক্তার নামে অনুষ্ঠান করতেন তখনো মুখে এক, কাজে আরেক। মুখে মুখে ভারত বিরোধিতার খৈ ফুটলেও নিজে হেমন্তের গান ছাড়া গাইতেন না। এমন স্ববিরোধী মানুষটি ছিয়ানব্বইয়ের নির্বাচনের আগে ঘোরতর সাম্প্রদায়িক বক্তব্য দিয়ে দেশ ও জাতিকে প্রলুব্ধ করতে পারেননি। টিভিতে খুব হাত নেড়ে নেড়ে বলছিলেন আগামী ৫০ বছরেও নাকি আওয়ামী লীগ সরকারে আসতে পারবেনা। অথচ সে বছরই ২১ বছর পর শেখ হাসিনার সরকার গদিতে এসেছিল। এই হচ্ছে তার ভবিষ্যদ্বাণীর ফলাফল।

এই জোটের তরুণ নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না একদা সমাজতান্ত্রিক ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচনে আওয়ামী বিরোধী ভোটে পাশ করা তিনি সমাজতন্ত্র আর আওয়ামী বিরোধিতা দুটৌকেই শিকেয় তুলে একসময় সে দলে নাম লেখালেন। অাশা ছিলো তার মত এমন বিশাল নেতা পেয়ে আওয়ামী লীগ বর্তে যাবে। ধন্য ধন্য করে তাকে বড় কোন পদে বসিয়ে কৃতজ্ঞ হবে সরকারী দল।

সেটা যখন হলোনা তখন থেকেই  তার মত বদলাতে শুরু করলো। মাঝখানে ভাইবারে কীসব আবোল তাবোল বলে ধরা খাওয়ার পর জনগণের কাছে ‘ভাইবার মান্না’ নামে পরিচিত ইনি ও পাল্টিবাজ। দেশ ও মানুষের জন্য তাঁর দরদ থাকলেও মুরোদ নিয়ে কথা আছে। জোটের শরীক হতে যাওয়া আ স ম আবদুর রব নিয়ে না বলাই উত্তম। ইনি মাথা গরম পার্টির সদস্য। চর এলাকার নেতা। তাই মারামারি কাটাকাটি ছাড়া বোঝেননা।

এককালে দৈশ স্বাধীনের সময় ভালো ও তেজি ভূমিকা পালন করলেও বঙ্গবন্ধুকে অপমান করতে ছাড়েননি। তারপর ও আসন বন্টনের সমীকরণে ইনিও শেখ হাসিনার মন্ত্রী ছিলেন। তখন কি তাঁর আওয়ামী প্রীতি! নির্বাচনের আগে অফিস ছেড়ে যাবার দৃশ্যটি এখনো চোখে ভাসে। স্তাবক আর কর্মচারীদের কাছ থেকে বিদায় নেবার আগে প্রায় কেঁদে ফেলে আবার আওয়ামী লীগের মাধ্যমে মন্ত্রী হবার প্রত্যয় ব্যক্ত করা  আ স ম রব একসময় এরশাদের ‘দালালি’ করেও বেশ সমালোচিত হয়েছিলেন। যখন কোন দল কোন নেতা এরশাদকে সঙ্গ দিতে চায়নি তখন তিনি ‘কপ’, যার অর্থ নাকি ‘কম্বাইন্ড অপজিশন পার্টি’, তার নেতা হয়ে সংসদে যেতেন। পরে মানুষ এই ‘কপ’কে কফের মত ঝেড়ে ফেলে দিলে তিনিও গায়েব হয়ে যান। এখন আবার সক্রিয়  হতে চাচ্ছেন শেষ বয়সে।

খবরে দেখলাম ঘরোয়া সভার পর গাড়ি চড়ে কাদের সিদ্দিকীও গিয়েছেন সংহতি জানাতে। সাংবাদিকদের বলেছেন সব কথা এখন বলা যাবেনা। কোনদিন তাঁর সবকথা আমরা জেনেছি? মহান মুক্তিযুদ্ধে তাঁর গৌরবময় ভূমিকা কোনদিনও ভোলার না। সেটুকু পুঁজি করে তিনি এখনো চলছেন। এইদেশ মুক্ত করা কিংবা বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর পালিয়ে গিয়ে সংগ্রাম করা কাদের সিদ্দিকী আর আজকের কাদের সিদ্দিকীকে দেখলে আমার প্রয়াত অন্নদা শংকর রায়ের উক্তিটি মনে পড়ে।

তিনি বলেছিলেন- বাঙালি জন্মে কেউটে হয়ে, তবে বেশিরভাগ সময় তাঁর শেষটা হয় বিষহীন ঢোঁড়া সাপের মত মরণ। কাদের সিদ্দিকী কীভাবে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর দলের বিরুদ্ধে বলেন- মাথায় আসেনা। এই সেদিনও শেখ হাসিনার কাছে গিয়ে তাঁকে বোন বলে সম্বোধন করা মানুষ কীভাবে এমন উল্টে যেতে পারেন? আমি বলছি না  আওয়ামী লীগ করতে হবে বা তাকেই সমর্থন করতে হবে, কিন্তু যেভাবে এরা মাঠে নামতে চাইছে তাতে এটা স্পষ্ট তাদের এজেন্ডা শেখ হাসিনাকে হটানো।

সেটা বিএনপি পারেনি বা পারছেনা বলেই এদের সামনে আনা হচ্ছে। এর পেছনে যদি সত্যি গণতন্ত্র  আর মানুষের ভাবনা থাকতো এত কথা বলতে হতো না। সোজা হিসেবে এরা সবাই শেষ বয়সে পাওনা বুঝে নিতে আর নিজেদের মান অপমানের বদলা নিতে নেমেছেন। তাই সন্দেহ আর সাবধানতার বিকল্প নাই।

বহু সমস্যা অনেক গভীরে অনেক জটিলতায় কুরে খাচ্ছে দেশ ও সমাজকে। মানুষের মনে নিরাপত্তাহীনতা। মানুষ কোনও বিচার পায়না। ভোট দিতে পারেনা। বাচ্চারা অনিরাপদ। একদিকে পেটোয়া বাহিনী, আরেকদিকে উগ্র বিরোধীদল। কোথায় যাবে তারা? যেটুকু উন্নতি-উন্নয়ন, তার সিংহভাগ বঙ্গবন্ধু কন্যার উপহার। তিনি মুক্তিযুদ্ধে নিবেদিত। এটাই হয়তো কাল ।

সুশীল কুশীল বিএনপি জামাত তাই ব্যর্থ হয়ে সরকার হঠানোর নামে তাঁকে নিশ্চিহ্ন করার অপচেষ্টায়  একত্রিত হয়েছে। এরচেয়ে তো বিএনপি ভালো। তারা তাদের ইমেজ বা অবস্থানে অটল ও পরিষ্কার। যতগুলো নাম বললাম তাদের সবার  প্রচ্ছন্ন আর আসল উদ্দেশ্য বিএনপির সাথে এখন একশ’ ভাগ মিলেমিশে একাকার। তাহলে আপনারা বিএনপি করেননা কেন? এতে তো মির্জা ফখরুলদের হাতই শক্তিশালী হতো। কেন করেন না জানেন? কারণ, আপনারা দলে মিশে গেলে আমনেতা বনে যাবেন। তাই আমেরিকার মন্ত্রী হবার চাইতে আপনারা ভূটানের রাজা হয়ে মজা লুটতে চান। এতে পদ পদবী সব ঠিক থাকে।

বড় দলে ছিলেন টিকতে পারেননি কেউ। দেশের মানুষের মনে টেকেননি। ষড়যন্ত্র বা ঘরোয়া মিটিং এ টিকে কি যে তরান্বিত করবেন  আপনারা, কে জানে!



এ সম্পর্কিত খবর

বাগেরহাটে জেলা বিএনপির স্বারকলিপি প্রদান

বাগেরহাটে জেলা বিএনপির স্বারকলিপি প্রদান

বাগেরহাট প্রতিনিধি: কৃষকের উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য প্রদান ও পাট কল শ্রমিকদের বকেয়া মজুরী প্রদানসহ

কেরানীগঞ্জে আদালত স্থানান্তরের প্রজ্ঞাপন বাতিলে আইনি নোটিশ

কেরানীগঞ্জে আদালত স্থানান্তরের প্রজ্ঞাপন বাতিলে আইনি নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়ার বিচারে কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতর আদালত স্থানান্তর করে সরকারের

সরকারের কলা কৌশলের কারনে বেগম জিয়াকে মুক্ত করা যাচ্ছে না: মওদুদ আহমদ

সরকারের কলা কৌশলের কারনে বেগম জিয়াকে মুক্ত করা যাচ্ছে না: মওদুদ আহমদ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদ বলেছেন, মিথ্যা ও ভুয়া মামলায় খালেদা


খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভ করেছে স্বেচ্ছাসেবক দল

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভ করেছে স্বেচ্ছাসেবক দল

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি ও সুচিকিৎসার এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক

ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার মনোনয়নপত্র বৈধ

ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার মনোনয়নপত্র বৈধ

এওয়ান নিউজ: জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত মহিলা আসনের নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার মনোনয়নপত্র

সিলেট জেলা ড্যাব সম্পাদক ডা. শাকিল অসুস্থ্য, শয্যাপাশে বিএনপির নেতৃবৃন্দ

সিলেট জেলা ড্যাব সম্পাদক ডা. শাকিল অসুস্থ্য, শয্যাপাশে বিএনপির নেতৃবৃন্দ

সিলেট জেলা ড্যাবের সাধারণ সম্পাদক ডা. শাকিলুর রাহমান অসুস্থ। সোমবার সন্ধ্যায় জালালাবাদ ক্লিনিকে অসুস্থ শাকিলকে


কলাপাড়ায় হাইব্রীড নেতার হাতে এবার গুরুতর জখম হলো আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি 

কলাপাড়ায় হাইব্রীড নেতার হাতে এবার গুরুতর জখম হলো আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি 

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি  ঃ  কলাপাড়ায় এবার হাইব্রীড নেতার হাতে গুরুতর আহত হলেন নীলগঞ্জ

লেবাননে দাওয়াতুল ইসলাম মাদ্রাসার উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল

লেবাননে দাওয়াতুল ইসলাম মাদ্রাসার উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল

জসিম উদ্দীন সরকার, লেবানন: ১৯মে রবিবার লেবাননের বৈরুতে আয়েশা বক্কর জামেয়া আল ফারুকীয়া মসজিদের হল

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে পল্টনে যুবদলের বিক্ষোভ 

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে পল্টনে যুবদলের বিক্ষোভ 

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও নিঃর্শত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে



আরো সংবাদ

আমরা কোথায় আছি

আমরা কোথায় আছি

২০ মে, ২০১৯ ১২:৫১



পাকিস্তানি ভূত

পাকিস্তানি ভূত

০১ মে, ২০১৯ ১২:২১


প্রিয় নুসরাত

প্রিয় নুসরাত

২৭ এপ্রিল, ২০১৯ ১১:৫০

ব্যর্থ বিএনপির মিডিয়া উইং

ব্যর্থ বিএনপির মিডিয়া উইং

২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:১১

“সবই আছে, নেই শুধু নুসরাত”

“সবই আছে, নেই শুধু নুসরাত”

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ১৪:২৩

আর কতো লাশ চায় রাজউক

আর কতো লাশ চায় রাজউক

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:৪৭

এ সংক্রামক ব্যাধিকে রুখতেই হবে

এ সংক্রামক ব্যাধিকে রুখতেই হবে

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ১২:২০


বিএনপির অদৃশ্য আন্দোলন!

বিএনপির অদৃশ্য আন্দোলন!

০৯ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:২৬


ব্রেকিং নিউজ











21/05/2019

21/05/2019

২১ মে, ২০১৯ ১৪:৩০