মঙ্গলবার 19 মার্চ 2019 - ৫, চৈত্র, ১৪২৫


টার্নিং পয়েন্টে দেশ, উৎকন্ঠায় মানুষ

০৭ নভেম্বর, ২০১৮ ১২:৪০:৩৮

 

আনোয়ার বারী পিন্টু : সবার দৃষ্টি এখন গণভবনে।  সারা দেশেই এক ধরনের উৎকন্ঠা আর সংশয়ের মধ্যে আছে সাধারন মানুষ।  বৈরী অবস্থানে থাকা আওয়ামীলীগ এবং বিএনপি নেতাদরে এক টেবিলে বসার দৃশ্য কিছুটা স্বস্তি বয়ে এনেছিলো।  তবে রাজনীতির আকাশে কালো মেঘের ঘনঘটা এখনো কাটেনি।  আজ ৭ নভেম্বর সকালে সরকারের সাথে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দ্বিতীয় দফা বৈঠকে চূড়ান্ত হবে রাজনীতির গতিবিধি।  দৃশ্যপট সামনে আসতে আর বাকী মাত্র কয়েক ঘন্টা।

এরই মধ্যে সরকার এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট দুই পক্ষের মধ্যেই কিছুটা ছাড় দেওয়ার মানষিকতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।  সরকারের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে বলা হয়েছে ৭ দফার কয়েক দফাতো মেনে নেওয়াই হয়েছে।  গতপরশু আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন,  আগামী সংলাপে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সংবিধান অনুযায়ী যৌক্তিক যেসব দাবি জানাবে তা ভেবে দেখা হবে। সংবিধান অনুযায়ী যদি সংসদ ভেঙে দেয়ার প্রস্তাব তারা করে সেটা নিয়েও আলোচনা হবে।  এতে সরকার কোনো চাপ অনুভব করছে না।  সংবিধানসম্মত কোনো দাবি থাকলে সেগুলো মেনে নেয়া হবে।  খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি তো এ বিষয়ে কিছু বলেনি।  প্যারোলে মুক্তি যদি ঐক্যফ্রন্ট চায় তাহলে আলোচনার পথ খোলা আছে।  তবে গতকাল ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দি উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে প্যারলে মুক্তির বিষয়টি প্রত্যাখান করে নেতারা বলেছেন, প্যারলে নয় আইনী প্রক্রিয়ায় বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চান তারা।      

বলা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহন মূলক করতে সরকারের মধ্যেও কিছুটা ছাড় দেওয়ার মানষিকতা তৈরী হয়েছে।  তবে আজকের সংলাপের শুরুতেই সরকারের পক্ষ থেকে দুটি বিষয়ে শক্ত অবস্থান নেওয়া হতে পারে।  প্রথমত, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়া হবে না এবং দ্বিতীয়ত, নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান হিসেবে শেখ হাসিনাই বহাল থাকবেন।  ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে যদি বেগম জিয়ার মুক্তির বিষয়ে জোরালো দাবী তোলা হয় তাহলে আলোচনার মাধ্যমে যথাযথ আইনী প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতেও পারে সরকার।  এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নির্বাচনকালীন সময়ে সরকার প্রধান হিসেবে মেনে নিতে হবে।  এরপর ঐক্যফ্রন্টের অন্য দাবীগুলোর বিষয়েও নমনীয় হবে সরকার।  নির্বাচনের জন্য গঠিত নির্বাচনকালীন সরকারেও ঐক্যফ্রন্টের দুই তিনজনকে নেওয়া হতে পারে বলে জানা গেছে।   

এদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সংবিধাসসম্মত ভাবেই একটি রূপরেখা তৈরী করে আজ গণভবনে সংলাপে অংশ নিয়েছেন বলে জানা যায়।  এই রূপরেখায় জোরালোভাবে তিনটি দাবি তুলে ধরা হয়েছে।  প্রথমত, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিনে মুক্তি ও ভোটে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে সাজা স্থগিত করা।  দ্বিতীয়ত, সংসদ ভেঙে দিয়ে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে ভোটগ্রহণ।  তৃতীয়ত, নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় টেকনোক্র্যাট কোটায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে মন্ত্রী করে তাঁদের স্বরাষ্ট্র , অর্থ ও জনপ্রশাসনের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় দেওয়া ।

ঐক্যফ্রন্ট নেতারা মনে করেন,  সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচনের কথা সংবিধানে সুস্পষ্টভাবে বলা আছে।  আর সংসদ ভেঙে দিলেওতো বর্তমান সরকারের বেশীরভাগ সদস্যই অন্তর্বর্তী সময়ে দায়িত্ব পালন করবে।  সংবিধান অনুযায়ী মন্ত্রিসভার সদস্যদের এক-দশমাংশ টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী রাখা যায়।  বর্তমান মন্ত্রিসভায় ৫০ জনের মতো সদস্য আছেন।  অর্থাৎ এর মধ্যে পাঁচজন টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী রাখা সম্ভব।

এছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির বিষয়টিও কোনো সমস্যা নয়।  রাষ্ট্রপক্ষ যদি তাঁর জামিনের বিরোধিতা না করে বা আপিলে সাজা স্থগিতের বিরোধিতা না করে, তাহলে ভোটের সময় খালেদা জিয়ার মুক্তি ও ভোটে অংশ নেওয়া সম্ভব ।  ধারনা করা হচ্ছে, ৭ দফার মধ্যে ৩টি দফা মেনে নিলেই নির্বাচন কালীন সরকার প্রধান নিয়ে ছাড় দিতে পারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।  আশা নিরাশার দোলাচলে আজকের সংলাপ ঘিরে মানুষের দৃষ্টি এখন গণভবনে।  রাজনীতির এই টার্নিং পয়েন্টে মানুষ চায় দুই পক্ষের মধ্যে শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমােঝোতা হোক।  সাধারণ মানুষ শান্তির বার্তার অপেক্ষার।     

উল্লেখ্য, গত ১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে প্রথম দফা সংলাপে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে সাত দফা দাবি উপস্থাপন করেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।  ঐক্যফ্রন্টের ৭ দফা গুলো হলো:

১।  অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষ্যে সরকারের পদত্যাগ, জাতীয় সংসদ বাতিল, আলোচনা করে নিরপেক্ষ সরকার গঠন এবং খালেদা জিয়াসহ সকল রাজবন্দিদের মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার।

২।  গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে নির্বাচন কমিশনের পুনর্গঠন ও নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার না করার নিশ্চয়তা প্রদান করতে হবে।

৩।  বাক, ব্যক্তি, সংবাদপত্র, টেলিভিশন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও সকল রাজনৈতিক দলের সভা-সমাবেশের স্বাধীনতা এবং নির্বাচনের লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করতে হবে।

৪।  কোটা সংস্কার আন্দোলন ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন, সাংবাদিকদের আন্দোলন এবং সামাজিক গণমাধ্যমে স্বাধীন মত প্রকাশের অভিযোগে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার ও গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তির নিশ্চয়তা দিতে হবে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ সকল কালো আইন বাতিল করতে হবে।

৫।  নির্বাচনের ১০ দিন পূর্ব থেকে নির্বাচনের পর সরকার গঠন পর্য্ন্ত বিচারিক ক্ষমতাসহ সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিয়োজিত ও নিয়ন্ত্রণের পূর্ণ ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনের ওপর ন্যস্ত করতে হবে।

৬।  নির্বাচনে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক নিয়োগের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা এবং সম্পূর্ণ নির্বাচন প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণে ভোট কেন্দ্র, পোলিং বুথ, ভোট গণনাস্থল ও কন্ট্রোল রুমে তাদের প্রবেশের ওপর ওপর কোনো ধরনের বিধি-নিষেধ আরোপ না করা এবং নির্বাচনকালীন সময়ে গণমাধ্যমকর্মীদের উপর যে কোনো ধরনের নিয়ন্ত্রণ বন্ধ করতে হবে।

৭।  তফসিল ঘোষণার তারিখ থেকে নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশিত না হওয়া পর্যন্ত চলমান সব রাজনৈতিক মামলা স্থগিত রাখা এবং নতুন কোনো মামলা না দেওয়ার নিশ্চয়তা দিতে হবে।

 



এ সম্পর্কিত খবর

রডের বদলে বাঁশ দিয়ে বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখবে না: প্রকৌশলীদের রাষ্ট্রপতি  

রডের বদলে বাঁশ দিয়ে বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখবে না: প্রকৌশলীদের রাষ্ট্রপতি  

নিজস্ব প্রতিবেদক: বড় হওয়ার স্বপ্নের পেছনে ছুটতে গিয়ে অসৎ পথে পা না দিতে তরুণ প্রকৌশলীদের

বেনাপোলে সংবাদ সম্মেলন করেছে বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠন 

বেনাপোলে সংবাদ সম্মেলন করেছে বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠন 

বেনাপোল  প্রতিনিধি: যশোর-বেনাপোল সড়কের পুরাতন জীর্ণ, অকার্যকর গাছ অপসারণ ও ৬ লেনের দাবীতে যশোর প্রেসক্লাব

বাংলাদেশ বিষয়ে মার্কিন মানবাধিকার প্রতিবেদন পক্ষপাতদুষ্ট: তথ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশ বিষয়ে মার্কিন মানবাধিকার প্রতিবেদন পক্ষপাতদুষ্ট: তথ্যমন্ত্রী

এওয়ান নিউজ: তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বাংলাদেশে মানবাধিকার চর্চা বিষয়ে সাম্প্রতিক মার্কিন স্টেট ডিপাটমেন্টের


প্রবৃদ্ধি ৮.১৩ শতাংশ, মাথাপিছু আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯০৯ ডলার

প্রবৃদ্ধি ৮.১৩ শতাংশ, মাথাপিছু আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯০৯ ডলার

এওয়ান নিউজ: চলতি অর্থবছর শেষে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছাড়াবে ৮ দশমিক ১৩ শতাংশে। এছাড়া, চলতি অর্থবছরে

মানুষের দুঃখ-কষ্ট শেখ হাসিনাকে আনন্দিত করে: গয়েশ্বর চন্দ্র রায়

মানুষের দুঃখ-কষ্ট শেখ হাসিনাকে আনন্দিত করে: গয়েশ্বর চন্দ্র রায়

এওয়ান নিউজ: মানুষের দুঃখ, কষ্ট, যন্ত্রণা শেখ হাসিনাকে আনন্দিত করে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী

বাংলাদেশ এখন সন্ত্রাসের ব্যাধিতে আক্রান্ত: মির্জা আলমগীর

বাংলাদেশ এখন সন্ত্রাসের ব্যাধিতে আক্রান্ত: মির্জা আলমগীর

এওয়ান নিউজ: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, গণতন্ত্রহীনতা ও অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচনের অনুপস্থিতির


বিবিসি'র প্রতিবেদন

সুখী হওয়ার যে পাঁচটি উপায়

সুখী হওয়ার যে পাঁচটি উপায়

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আগামীকাল বুধবার 'আন্তর্জাতিক সুখ দিবস' পালন করা হবে বিশ্বের অনেক দেশে। তবে আপনি

এরদোয়ান কেন জনসভায় ক্রাইস্টচার্চ হামলার ভিডিও দেখাচ্ছেন?

এরদোয়ান কেন জনসভায় ক্রাইস্টচার্চ হামলার ভিডিও দেখাচ্ছেন?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার ভয়ংকর ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। কোন

ঐতিহাসিক আখতারুজ্জামান চত্বরের শোভা বর্ধনে কর্ণফুলী পুলিশ

ঐতিহাসিক আখতারুজ্জামান চত্বরের শোভা বর্ধনে কর্ণফুলী পুলিশ

জে.জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো: শহরের প্রবেশদ্বার কর্ণফুলী উপজেলার মইজ্জ্যারটেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা আখতারুজ্জামান চত্বরের সৌর্ন্দয্য বৃদ্ধি ও



আরো সংবাদ

বাংলাদেশের পূর্ণ বিজয়

বাংলাদেশের পূর্ণ বিজয়

১৬ মার্চ, ২০১৯ ১২:৪৬

‘জয় বাংলা কনসার্ট’

‘জয় বাংলা কনসার্ট’

০৭ মার্চ, ২০১৯ ১৭:০৪


মাসরুর আরেফিনের ‘আগস্ট আবছায়া’

মাসরুর আরেফিনের ‘আগস্ট আবছায়া’

১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১৮:১৭

তিস্তা নদীতে চলছে গরুর গাড়ি!

তিস্তা নদীতে চলছে গরুর গাড়ি!

১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১৭:৫১

একজন আল মাহমুদ 

একজন আল মাহমুদ 

১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১৫:০৮



এই যুবদলের প্রয়োজন কি?

এই যুবদলের প্রয়োজন কি?

০২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ১১:৫৫





ব্রেকিং নিউজ