‘অক্টোবর থেকে’ টরন্টো যাবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি বছরের অক্টোবরে ঢাকা থেকে কানাডার টরন্টোতে সরাসরি ফ্লাইট চালুর পরিকল্পনা করছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।আর সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া যাত্রীরা টরন্টো থেকে এয়ার কানাডার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কেও যেতে পারবেন বলে জানিয়েছেন বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মোকাব্বির হোসেন।

শুক্রবার তিনি বলেন, “বিষয়টা হল এয়ার সার্ভিস এগ্রিমেন্টের আন্ডারে বাংলাদেশ থেকে আমরা টরন্টো যাচ্ছি, এটা দুই সরকারের চুক্তির কারণে। আমরা প্ল্যান করেছি অক্টোবর থেকে, মানে উইন্টার সিজন থেকে…।”

তিনি জানান, এভিয়েশন খাতে ফ্লাইট পরিকল্পনা করা হয় বছরে দুটো সূচি মেনে। এখন ‘সামার শিডিউল’ চলছে। অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে ‘উইন্টার শিডিউল’ শুরু হবে। “আমরা আশা করি ওই শিডিউলে আমরা (ঢাকা-টরন্টো) ফ্লাইট পরিচালনা করতে পারব। সেভাবেই আমরা কাজ করছি।”

আপাতত ঢাকা থেকে সপ্তাহে তিন দিন টরন্টোতে ফ্লাইট চালানোর পরিকল্পনার কথা জানিয়ে মোকাব্বির হোসেন বলেন, “এয়ার কানাডা ও বিমানের মধ্যে চুক্তির কারণে বিমানের যাত্রীরা কানাডা থেকে নিউ ইয়র্ক যেতে পারবেন। এয়ার কানাডার সাথে আমাদের চুক্তি আমরা নবায়ণ করেছি।”

ঢাকা-টরন্টো সরাসরি বিমান যোগাযোগ শুরুর বিষয়ে আলোচনা চলছে দীর্ঘদিন ধরে। বিমানের এই রুট চালু হলে কানাডার পাশাপাশি নিউ ইয়র্কে বসবাসরত বাংলাদেশিরাও উপকৃত হবে।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ২০১৩ সালে এ বিষয়ে সুপারিশ করার পর তখনকার বিমানমন্ত্রী ফারুক খান কানাডার সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের কথা জানিয়েছিলেন।

২০১৭ সালে ঢাকায় কানাডার হাই কমিশনারের সঙ্গে তখনকার বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেননের সঙ্গে এক বৈঠকও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছিল। কিন্তু ফ্লাইট আর চালু হয়নি। বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, কানাডার পাশাপাশি একই সময়ে জাপানেও সরাসরি ফ্লাইট চালানোর পরিকল্পনা করছেন তারা।

“আমরা ঢাকাকে হাব করতে চাচ্ছি। চার ঘণ্টার মধ্যে যাতে দিল্লী, কলকাতা ফ্লাইট, কাঠমান্ডু ফ্লাইট, তারপরে ব্যাংকক ফ্লাইট- এইভাবে চালানো যায়, সেইভাবে আমরা শিডিউল করছি।” কোভিড-১৯ সঙ্কটে কয়েক মাস বন্ধ থাকার পর এখন বিভিন্ন দেশে আবার যাত্রীবাহী ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে ১৭টি আন্তর্জাতিক গন্তব্যের মধ্যে এখন কেবল লন্ডন ও চীনে সরাসরি ফ্লাইট চলাচল করছে। আর ঢাকা থেকে কাতারে ট্রানজিট যাত্রীরা চলাচল করতে পারছেন। ৬ জুলাই থেকে দুবাই ও আবুধাবিতেও সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান।