বিভাগ - সারাদেশ

অনুপ্রবেশ বেড়েছে দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্তে, সতর্ক অবস্থানে বিজিবি

প্রকাশিত

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ বেনাপোলসহ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে অবৈধভাবে নারী, পুরুষ ও শিশুদের প্রবেশ বেড়ে গেছে । সীমান্তে বিজিবিসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সতর্ক প্রহরা বাড়ানো হলেও থেমে নেই। ভারত থেকে আসা অবৈধ পারাপার। যশোর জেলা যশোর, ঝিনাইদহ, সাতক্ষীরা, বিভিন্ন এলাকা দিয়ে অনুপ্রবেশ বেশি ঘটছে বলে অভিযোগ করেছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও স্থানীয়রা। এসব সীমান্ত থেকে গত ৭ দিনে বিজিবির হাতে আটক হয়েছে ২৫১ জন অনুপ্রবেশকারী। অবৈধ অনুপ্রবেশেকর ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট থানায় পৃথক পৃথক মামলাও হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অনুপ্রবেশকারীরা নিজেদের বাংলাদেশি বলে দাবি করছেন। চাকরির সন্ধানে তারা ১০/১৫ বছর আগে ভারতের বিভিন্ন শহরে কাজ করতো । সম্প্রতি তাদের ওপর আইন শৃঙ্খলা রক্ষা কারী বিভিন্ন সংস্থা এবং ভারতীয়দের কাছে নির্যাতনের শিকার হয়ে তারা বাংলাদেশে ফিরছেন। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষিত এনআরসি আতঙ্ক নিয়েও তারা বাংলাদেশে চলে আসছে বলে দাবি করেছে।

সর্বশেষ গত বুধবার বেনাপোল পোর্ট থানার গাতীপাড়া সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে বাংলাদেশে অবৈধভাবে প্রবেশের সময় দুই শিশুসহ সাত নারী-পুরুষকে আটক করে বিজিবি । এ সময় কোনও পাচারকারীকে আটক করতে পারেননি তারা। এর আগে, গত রবিবার বেনাপোল সীমান্তে ৩২ নারী-পুরুষ ও শিশুকে আটক করে বিজিবি।

আটককৃতদের দাবি, কাজের সন্ধানে তারা অনেক দিন আগে ভারতে গিয়েছিলো। ভারতে বসবাসের বৈধ কোনও কাগজপত্র না থাকায় সেখানকার পুলিশ ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদেরকে দেশে ফিরতে বাধ্য করেছে।বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, গত দু’সপ্তাহে ভারত থেকে সীমান্তের অবৈধ পথ দিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটেছে সবচেয়ে বেশি। এরপর রয়েছে যশোরের বেনাপোল সীমান্ত।

আগের তুলনায় অনুপ্রবেশ বেড়েছে বলে দাবি করেছেন বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান। তিনি বলেন, ২০ থেকে ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে বেনাপোলের গাতিপাড়া ও দৌলতপুর বিজিবি পোস্টের টহল দলের সদস্যরা ভারত থেকে অনুপ্রবেশের দায়ে ৯৩ জন নারী-পুরুষ ও শিশুকে আটক করেছে।

এ দিকে, যশোর ৪৯ বিজিবির কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল মো. সেলিম রেজা জানান, যশোর সীমান্তে এখন পর্যন্ত খুব বেশি অনুপ্রবেশের ঘটনা না ঘটলেও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। বিজিবি সদস্যদের টহল জোরদার করা হয়েছে। যশোরের ১৫টি বিওপির সদস্যরা সীমান্ত এলাকার মানুষকে সচেতন করছে, যাতে অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটলে তাৎক্ষণিকভাবে জানানো হয়। অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তের বেশ কিছু পয়েন্টে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।