বিভাগ - খেলাধুলা

অলিখিত সেমিফাইনালে স্বাগতিক নেপালের বিপক্ষে ব্যর্থ বাংলাদেশ

প্রকাশিত

স্পোর্টস ডেস্ক: অন্তত ফাইনাল নিশ্চিত করতে পারলে বাফুফের তরফ থেকে ৪০ হাজার মার্কিন ডলার (৩৪ লাখ টাকা) পেতেন বাংলাদেশের ফুটবলাররা। কিন্তু সেই পুরস্কার জেতা হলো না লাল-সবুজদের। ১৩তম সাউথ এশিয়ান গেমসের (এসএ গেমস) অলিখিত সেমিফাইনালে স্বাগতিক নেপালের বিপক্ষে ১-০ ব্যবধানে হেরে গেছে জেমি ডে’র দল।

নেপালের মুখোমুখি হওয়ার আগে বাংলাদেশের ফুটবলারদের উজ্জীবিত করতে পুরস্কারের ঘোষণা দেয় বাফুফে। কিন্তু ফাইনালে টিকেট কাটতে না পারায় বিপুল অংকের সেই পুরস্কারের অর্থ হাতছাড়া হয়ে গেলো লাল-সবুজদের। সঙ্গে ভেঙে গেলো স্বর্ণ পুনরুদ্ধারের স্বপ্নও।

রোববার (০৮ ডিসেম্বর) বিকেল সোয়া ৫টায় এসএ গেমসের ফুটবলে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ত্রিপুরেশ্বরের দশরথ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় নেপাল ও বাংলাদেশ। রাউন্ড রবিনের ম্যাচটিতে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল শুরু থেকে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করতে থাকে স্বাগতিকদের বিপক্ষে।

কিন্তু ১১ মিনিটে সুজল শ্রেষ্ঠার বাড়ানো বল থেকে সুনীল বালের আড়াআড়ি শটে গোল হজম করে বসে জেমি ডে’র দল। বাকি সময় সমতায় ফেরার জন্য জোর চেষ্টা চালিয়ে যায় জামাল ভূঁইয়ারা। পুরো ম্যাচ জুড়ে নেপালের বিপক্ষে ৭টি শট নেয় বাংলাদেশ। যেখানে স্বাগতিকদের শট ৫টি। কিন্তু গোল মিসের মহড়ায় জামাল-সাদরা ব্যর্থ হয় গোল শোধ করতে।

তারমধ্যে উল্টো মাথা গরম করে নির্ধারিত সময়ের সঙ্গে যোগ করা পঞ্চম মিনিটে লাল কার্ড দেখে বসেন জামাল ভূঁইয়া। ম্যাচ শেষ হওয়ার কয়েক সেকেন্ড আগে নিজেদের সীমান্তে বল দখলের লড়াইয়ের সময় নেপালের ১৬ নাম্বার জার্সিধারী শেশাঙ্গকে ধাক্কা দিয়ে বসেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক।

এই হারে এসএ গেমসের স্বর্ণ পুনরুদ্ধারের স্বপ্ন পূরণ হলো না বাংলাদেশের। এর আগে বাংলাদেশ দু’বার স্বর্ণ জিতেছিল এসএ গেমসে। প্রথমবার ১৯৯৯ সালে এই কাঠমান্ডুতেই। দ্বিতীয়বার ২০১০ সালে ঢাকায়।