বিভাগ - বিনোদন

‘আমার উচ্চতার সমান ছেলে পেলে যেকোনো মুহূর্তে বিয়ে করে ফেলব’

প্রকাশিত

বিনোদন ডেস্ক: এ বছরের যেকোনো সময় বিয়ের পিঁড়িতে বসবেন ছোট পর্দার ব্যস্ত অভিনেত্রী মৌসুমী হামিদ। পরিবার থেকেও বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছে বলে জানান এই তারকা। কিন্তু সমস্যা তৈরি করেছে তাঁর উচ্চতা নিয়ে। ছেলে দেখে পছন্দ হলেও তাঁর সমান উচ্চতার ছেলে মিলছে না। মৌসুমী হামিদ বলেন, ‘লম্বা ছেলে তো খুঁজেই পাওয়া যায় না। আমার উচ্চতা ৫ ফুট সাড়ে ৯ ইঞ্চি। এই উচ্চতার ছেলে মেলানোর চেষ্টা করছি। মিলছে না। আমার উচ্চতার সমান ছেলে পেলে যেকোনো মুহূর্তে বিয়ে করে ফেলব।’

উচ্চতায় বিপাকে নির্মাতা
মৌসুমী হামিদের উচ্চতা বেশি হওয়ায় অনেক নির্মাতারা তাঁকে নিয়ে কাজ করতে বিপাকে পড়ে যান। তাঁর সঙ্গে অভিনয়ের জন্য একই মাপের উচ্চতার অভিনেতার দরকার হয়। কিন্তু আমাদের মিডিয়ার বেশি ভাগ অভিনেতার উচ্চতা মৌসুমী হামিদের চেয়ে কম। লম্বা হওয়ার কারণে বিনোদনপাড়ায় মৌসুমী হামিদকে তালগাছ নামে ডাকা হয়।

অপূর্ণ ইচ্ছা সুবর্ণা মুস্তাফা
মৌসুমী হামিদের সবচেয়ে পছন্দের অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা। গুণী এই অভিনেত্রীর সঙ্গে এখনো কাজ হয়ে ওঠেনি। প্রিয় এই মানুষটার সঙ্গেই অভিনয় করার ইচ্ছেটা এখনো অপূর্ণ রয়ে গেছে। নির্মাতাদের উদ্দেশে মৌসুমী হামিদ বলেন, ‘নাটক বা সিনেমায় সুবর্ণার আপার সঙ্গে কেউ (নির্মাতা) অভিনয়ের সুযোগ দিলে ইচ্ছেটা পূর্ণ হতো।’

আমার কোনো পেয়ারের লোক নেই
তারকা জুটিতে খুব একটা বিশ্বাসী নন এই অভিনেত্রী। সবার সঙ্গে সমানতালে কাজ করেন মৌসুমী হামিদ। তিনি বলেন, ‘আমার কারও সঙ্গে কোনো “পেয়ার” নেই। সবার সঙ্গে কাজ করি।’ কার সঙ্গে সবচেয়ে বেশি অভিনয় করেছেন—এমন প্রশ্ন শুনে হেসে ফেলেন মৌসুমী হামিদ। পরে আক্ষেপের সুরে বলেন, ‘আগে আফরান নিশো ও অপূর্বর সঙ্গে আমার সবচেয়ে বেশি কাজ হতো। উচ্চতায় আমরা ছিলাম বেশ মানানসই। দর্শক আমাদের সেসব নাটক বেশ পছন্দ করত। এখন সেই সুযোগ সীমিত।’

সম্পর্ক আমাকে ধোঁকা দেয়
একজন আমাকে যখন বিশ্বাস করার অধিকার দেয়, তখন বিশ্বাস করি। যখন তারাই আবার বিশ্বাস ভাঙে তখন কষ্ট লাগে। একটা মানুষের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে যখন পরিচয় থেকে বন্ধুত্ব হয়, তখন তারা বিশ্বাসের আশা জাগায়। সম্পর্কটা আরও গভীর হয়। ভালো বন্ধুত্ব হয়। যখন একজন আশা দেখিয়ে সুযোগ নিয়ে বিশ্বাস ভঙ্গ করে, তখন মনে হয় মিডিয়া ছেড়ে দিই। বিশ্বাসের সম্পর্ক আমাকে ধোঁকা দেয়। ভেঙে পড়ি, কিন্তু পরে মনে হয় এটা তো আমার দোষ না, যে বিশ্বাস ভেঙেছে তার দোষ।

মোটরসাইকেল পেলেই হারিয়ে যান মৌসুমী হামিদ
কোন নাটকের বা সিনেমার সেটে মোটরসাইকেল পেলে তা নিয়ে ঢুঁ মারতে চলে যান মৌসুমী হামিদ। শুটিংয়ে অনেক সময় সহকারী পরিচালককে দিয়ে মৌসুমী হামিদকে খুঁজে বের করতে হয়। অনেক ছোট থেকেই মোটরসাইকেল চালান এই অভিনেত্রী। তাঁর প্রিয় শখের মধ্যে একটি মোটরসাইকেল চালানো।

চরিত্রাভিনেত্রী মৌসুমী হামিদ
দেশের বিনোদনজগতে এ বছর এক দশকে পা ফেললেন মৌসুমী হামিদ। দশকজুড়ে চরিত্র নিয়ে কোনো ছাড় দেননি এই অভিনেত্রী। পতিতা, রাস্তার মেয়ে, ভিখারি, ধনীর দুলালি, খুনি, থ্রিলার—সব চরিত্রেই সমানতালে অভিনয় করে গেছেন। সম্প্রতি ঢাকার তিন শ ফিটের একটি জেলেপাড়ায় শীতের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ পানিতে নেমে শুটিং করতে হয়েছে এই অভিনেত্রীকে। আলী সুজন পরিচালিত সেই ‘নীড়ভাঙা ঢেউ’ নাটকটি খুব শিগগির চ্যানেল আইতে প্রচার করা হবে। এখানে তাঁর সহ–অভিনেতা রওনক হাসান।