বিভাগ - সারাদেশ

আ’লীগের সম্মেলনকে ঘিরে কলাপাড়ায় চলছে ঠান্ডা লড়াই, উত্তপ্ত রাজনীতি

প্রকাশিত

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি ঃ কলাপাড়া উপজেলা আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ক্রমশই উত্তপ্ত হয়ে উঠছে রাজনৈতিক মাঠ। গঠনতন্ত্র ও দলীয় প্রধানের নির্দেশনা অনুযায়ী এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলে সভাপতি, সম্পাদক পদে একাধিক নেতার প্রার্থী হওয়ার কথা রয়েছে। আর এ লক্ষ্যে পদ-প্রত্যাশীরা যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন কেন্দ্রের হেভিওয়েট নেতাদের সাথে। সভাপতি পদে স্থানীয় সাংসদ যদি অধিষ্ঠিত হতে না পারেন তবে বর্তমান সাংসদের আশীর্বাদপুষ্ট কোন নেতা আসতে পারেন এ পদে। পদ ছাড়তে নারাজ বর্তমান সভাপতি ও সাবেক পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী মো: মাহবুবুর রহমান। সম্মেলনে অংশ নিতে শনিবার সন্ধ্যায় তিনি ঢাকা থেকে কলাপাড়া আসার সাথে সাথে তার বাসায় হামলা হয়েছে। তাকে এলাকা ছাড়তে উস্কানিমূলক শ্লোগানে মিছিল করা হয়েছে। তবুও সম্মেলনে যোগ দিয়ে সভাপতি পদে প্রাথীতার কথা বলেছেন মাহবুবুর রহমান। এতে আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে রাজনৈতিক অঙ্গন।

এদিকে প্রত্যাশিত এ সম্মেলনকে ঘিরে মিছিল, মাইকিংয়ে সরব হয়ে উঠছে শহর থেকে তৃনমূল। আগামী ২৭ নভেম্বর বুধবার পৌর শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে সকাল ১০টায় এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনে উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কেন্দ্রীয় আ’লীগের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আফজাল হোসেন। প্রধান অতিথি থাকবেন সাবেক জেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী সাংসদ অ্যাডভোকেট মো: শাহজাহান মিয়া। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখবেন স্থানীয় সাংসদ অধ্যক্ষ মো: মহিব্বুর রহমান মহিব। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পটুয়াখালী জেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক কাজী আলমগীর হোসেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়াম্যান এসএম রাকিবুল আহসান।

উপজেলা আ’লীগ দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালের ২০ মার্চ কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সম্মেলন সফল করতে আলাদা মঞ্চ কমিটি, আপ্যায়ন কমিটি, প্রচার কমিটি, অভ্যর্থনা কমিটি ও অর্থ কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এদিকে দীর্ঘ পাঁচ বছর পর অনুষ্ঠেয় এ সম্মেলনকে ঘিরে উপজেলা আওয়ালীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে বইছে উৎসবের আমেজ। শান্তিপূর্ণভাবে সম্মেলন সমাপ্ত করতে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্যরা ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। চলছে প্রচার-প্রচারনা। ইতিমধ্যে সম্মেলনে আগত অতিথি ও প্রার্থীদের ছবি সম্বলিত ডিজিটাল ব্যানার, পোস্টার ও ফেস্টুনে ভরে গেছে শহীদ মিনার চত্বর সহ উপজেলার সর্বত্র। সম্মেলনকে ঘিরে এখন সরব প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের নেতাকর্মীরাও।

উপজেলা সম্মেলনে কে হচ্ছেন সভাপতি, সাধারন সম্পাদক এনিয়ে পুরো উপজেলা জুড়ে চলছে চুল ছেড়া বিশ্লেষন। তবে স্থানীয় সাংসদ অধ্যক্ষ মো: মহিব্বুর রহমান মহিব, সাবেক পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী ও উপজেলা আ’লীগ সভাপতি মো: মাহবুবুর রহমান, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়াম্যান আবদুল মোতালেব তালুকদার, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ ড. শহীদুল ইসলাম বিশ্বাস, সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম রাকিবুল আহসান, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক অধ্যক্ষ সৈয়দ নাসির উদ্দীন ও আ’লীগ নেতা সৈয়দ আখতারুজ্জামান কোক্কার নাম শোনা যাচ্ছে।

কলাপাড়া উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব এসএম রাকিবুল আহসান জানান, ’সৎ, যোগ্য ও ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে। কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুসারে কাউন্সিলে অনুপ্রবেশকারীদের ঠেকাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে।’ প্রসংগত, দলের গঠনতন্ত্র ও কেন্দ্রীয় নির্দেশনা উপেক্ষা করে তৃনমূলে ভোট ব্যতীত প্রভাবশালী নেতাদের অনুসারীদের নিয়ে কমিটি গঠনে দ্বিধা বিভক্তি শুরু হয়েছে দলের অভ্যন্তরে।