বিভাগ - বিনোদন

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে হারানোর প্রথম বছর

প্রকাশিত

বিনোদন ডেস্ক: বাংলার সংগীত জগতের উজ্জ্বল নক্ষত্র আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে হারানোর এক বছর পার হয়ে গেল। প্রায় সাড়ে তিনশ’ গানের এই অমর পরিচালক, জনপ্রিয় গীতিকার ও সুরকার এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা এক বছর আগে সবাইকে ছেড়ে না ফেরার দেশে চলে যান।

২০১৯ সালের ২২ জানুয়ারি ভোরে রাজধানীর আফতাব নগরে নিজ বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। দীর্ঘদিন ধরে তিনি হৃদযন্ত্রের জটিলতায় ভুগছিলেন। তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শোকের ছায়া নেমে আসে দেশের সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের জন্ম ১৯৫৭ সালের ১ জানুয়ারি ঢাকায়। ১৯৭১ সালে মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি মহান স্বাধীনতাযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ‘সব কটা জানালা খুলে দাও না’, ‘সেই রেল লাইনের ধারে’, ‘ও মাঝি নাও ছাইড়া দে ও মাঝি পাল উড়াইয়া দে’, ‘সুন্দর সুবর্ণ তারুণ্য লাবণ্য’র মতো জনপ্রিয় দেশাত্মবোধক গানগুলোতে তার দেওয়া সুর বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ে স্পন্দন তুলবে চিরদিন।

তিন দশকেরও বেশি দীর্ঘ ক্যারিয়ারে বহু সংখ্যক চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা করেছেন তিনি। এর মধ্যে ‘নয়নের আলো’, ‘দেশ প্রেমিক’, ‘প্রেমের তাজমহল’, ‘আম্মাজান’, ‘ইতিহাস’ অন্যতম। সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে অনন্য অবদানের জন্য আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মান একুশে পদক, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, রাষ্ট্রপতির পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননায় ভূষিত হন।