এবার গ্রন্থমেলায় দি ইউনিভার্সেল একাডেমি’র ভিন্ন ব্যতিক্রম বই নিয়ে এসেছে

প্রকাশিত

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার: কল্পনা নয়, সত্য ও সুন্দরের সাথেই পথচলা দীর্ঘ কয়েক যুগ পূর্ণ করেছে জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দেশের প্রকাশনার অন্যতম প্রথম সারির সুখ্যাত হচ্ছে “দি ইউনিভার্সেল একাডেমি । বুদ্ধিবৃত্তিক জগতে বিশ্ব কাঁপিয়ে তুলতে বাংলা ভাষায় আপনার প্রিয় সংগ্রহ হোক দুনিয়া কাঁপানো বই দিয়ে। সেই আলোকে ” দি ইউনিভার্সেল একাডেমি প্রকাশনায় এমন অনেক বই রয়েছে যা আপনার ব্রেইন ফ্রিকোয়েন্সি বাইরের প্রোটনকেও ভাবিয়ে তুলবে!

বিশ্বসাহিত্য-ইতিহাস-ঐতিহ্য-ভ্রমন, গল্প উপন্যাস, কবিতা আর মুক্তিযুদ্ধের গৌরবান্বিত ইতিহাস, বাংলা ভাষায় সবার আগে তথ্য ও তত্ত্বসম্বলিত এনসাইক্লোপিডিয়া, শিক্ষা, রাজনীতি সমাজের এগিয়ে থাকা বা পিছিয়ে পড়া বা আত্মোন্নয়নের পৃথিবীখ্যাত যত বই – সব প্রকাশে এগিয়ে দেশের সর্বস্তরের পাঠক দর্শক ও শ্রোতাদের এই প্রিয় প্রতিষ্ঠান “দি ইউনিভার্সেল একাডেমি”।

সৃজনের আনন্দে হোক আগামীর পথচলা। অগনিত ভক্ত পাঠকের ভালোবাসায় সমাজ চিন্তকদের ভাবনার সাথে ‘ ইউনিভার্সেল ‘ প্রায় দুই যুগের কাছাকাছি। তারিসাথে রয়েছে সংঘবদ্ধ এক রুপান্তকর পথ চলা

এবার একুশে গ্রন্থমেলায় “দি ইউনিভার্সেল একাডেমির
প্যাভিলিয়ন-হচ্ছে ( চার নম্বর ) যাহা সোহরাওয়ার্দী উদ্যান মাঠের ঠিক মেলার মূল গেইটের সাথে। উক্ত প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের মহা- পরিচালক ও জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা সমিতির সাবেক সফল তিন/ চারবারের মেলা পরিচালক ও বর্তমান বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি রাজধানী শাখার সাধারণ সম্পাদক- এ. এস. এম. ভুঁইয়া শিহাব তাঁহার পক্ষ থেকে মেলায় আগতক বইপ্রেমী সকল পাঠক/বন্ধুরা ও দর্শক শ্রোতাদের প্রতি আহবান জানিয়ে উক্ত ” দি ইউনিভার্সেল একাডেমি প্যাভিলিয়নে” সকলকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

এ. এস. এম. ভুঁইয়া শিহাব বলেন লেখক – সাহিত্যিকেরা এখনো খুব একটা আসছেন না। চতুর্থ দিন পার হলো আজ। কিন্তু ঠিক মতো জমে উঠেনি মেলা। তিনি বলেন বইমেলাকে তার চিরচেনা রুপে ফিরে যেতে অপেক্ষা করতে হবে আরও দুই দিন। অর্থাৎ আগামী শুক্রবার ৬ ফেব্রুয়ারি ছুটির দিন অপেক্ষাতেই রয়েছি আমরা প্রকাশকগণ। এক প্রশ্নের জবাবে শিহাব বলেন এখন পর্যন্ত জমে না উঠলেও মেলার সার্বিক পরিবেশ নিয়ে আমরা খুশি প্রকাশকরা । তিনি বলেন বাণিজ্য মেলা চলমান থাকায় লোকজন বইমেলায় এখন আসছে না। তবে আশা করছি আগামী শুক্রবার থেকে মেলা পরিপূর্ণ ভাবে জমে উঠবে ।

পরোক্ষভাবে দেখা যাচ্ছে অন্যবারের তুলনায় এবারের মেলা সফলতার দিকে অনেক দূর এগিয়ে যাবে । প্রসঙ্গক্রমে মেলায় আগত ঢাবিঃ এস এম হলের শিক্ষার্থী তানজিল চৌধুরী বলেন এবার বইমেলা সোহরাওয়ার্দী মাঠে আমার কাছে খুবই আনন্দপুর্ণ লাগছে । তানজিল বলেন জনপ্রিয় লেখকের পাশাপাশি নবীন লেখকদের বই নিয়ে চাহিদা বাড়ছে । সেই হিসেবে স্টলে স্টলে ঘুরে ঘুরে বেড়াচ্ছি আর বইগুলো দেখছি । পছন্দের টেকসই বইগুলো নেওয়ার জন্য এসেছি । প্রত্যক্ষভাবে দেখা যাচ্ছে ” ক্রেতারা যতটা না বই কিনছেন, তার চেয়ে বেশি সংগ্রহ করছেন বইয়ের তালিকা । হয়তো আগামী সপ্তাহে থেকে জমে উঠবে প্রাণের মেলা।

error0