বিভাগ - জাতীয়

এমপি ইসমত আরা সাদেকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক মারা গেছেন। মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) বেলা সোয়া ১১টার দিকে রাজধানীর ইউনাইটে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।ইসমত আরার মৃত্যুতে তার নির্বাচনি এলাকা কেশবপুরে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এবং জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।ইসমত আরা সাদেকের স্বামী প্রয়াত এ এস এইচ কে সাদেক ছিলেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী। ২০০৭ সালে মারা যান তিনি। এই দম্পতির এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেকের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আলাদা শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক এর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

ইসমত আরা সাদেক ১৯৪২ সালের ১২ ডিসেম্বর বগুড়া জেলার এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। বগুড়ার সাতানী জমিদার বাড়ির মরহুম মাহবুবুর রহমান চৌধুরী এবং মরহুমা সায়েরা খাতুনের একমাত্র কন্যা ইসমত আরা ১৯৫৬ সালে বগুড়া ভি এম গার্লস স্কুল থেকে ম্যাট্রিক, ১৯৫৮ সালে ঢাকার হলিক্রস কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েড এবং ১৯৬০ সালে ঢাকার ইডেন কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন।

স্বামী প্রয়াত আবু শরাফ হিফজুল কাদের সাদেক ছিলেন সাবেক সচিব, দুইবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও সফল শিক্ষামন্ত্রী।

ইসমত আরা সাদেক যশোর-৬ (কেশবপুর) নির্বাচনী এলাকা থেকে ১০ম জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরে ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে তাকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়। ‘১৪ সালের ১৫ জানুয়ারি তিনি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে এমপি নির্বাচিত হলেও মন্ত্রিসভায় স্থান পাননি।

এদিকে ইসমত আরা সাদেকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমীন। তিনি মরদেহ কেশবপুরে আনা এবং জানাজার সময় নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তীতে জানাবেন বলে উল্লেখ করেন।