করোনায় ব্যবহৃত ২৩ পণ্য আমদানিতে সব ধরনের কর ছাড়, প্রজ্ঞাপন জারি

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাভাইরাসের মহামারি রোধে ব্যবহার্য ২৩টি পণ্য আমদানিতে সব ধরনের কর ও ভ্যাট ছাড় দিয়েছে সরকার। এই সুবিধা আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। সোমবার (১৮ মে) অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, জনস্বার্থে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করে করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) বৈশ্বিক মহামারি মোকাবিলায় এসব পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে আরোপিত সমুদয় আমদানি শুল্ক, রেগুলেটরি ডিউটি, সম্পূরক শুল্ক, মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট), আগাম কর ও অগ্রিম আয়কর থেকে অব্যাহতি দেয়া হলো।

‘তবে যারা এসব পণ্য আমদানি করবে তাদের জন্য বেশ কিছু শর্ত আরোপ করেছে সরকার। এসব পণ্যের মধ্যে কিছু পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে আবশ্যকভাবে ইন্ডাস্ট্রিয়াল আইআরসি হোল্ডার ফার্মাসিউটিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি অথবা ইন্ডাস্ট্রিয়াল আইআরসি হোল্ডার ইনস্ট্রুমেন্ট ম্যানুফেকচারার অথবা ইন্ডাস্ট্রিয়াল আইআরসি হোল্ডার গার্মেন্টস ম্যানুফেকচারার হতে হবে।’

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর অনুমোদিত পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে এই সুধিবা পাবে। ইন্ডাস্ট্রিয়াল আইআরসি হোল্ডার গার্মেন্টস ম্যানুফেকচারারের পণ্যগুলো আমদানির ক্ষেত্রে শুল্কায়নের সময় আমদানিকারককে সংশ্লিষ্ট কাস্টম হাউজে বিজিএমইএ’র প্রত্যয়নপত্র দাখিল করতে হবে।

আমদানি করা পণ্য মানসম্মত কি না, তা ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর নিশ্চিত ও নিয়মিত মনিটরিং করবে। মেয়াদ শেষে এই প্রজ্ঞাপনের আওতায় শুল্কমুক্ত সুবিধায় আমাদানি পণ্যগুলোর আমদানিকারক এবং অনুমোদিত পরিমাণের তথ্যসম্বলিত প্রতিবেদন ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের এনবিআরে দাখিল করতে হবে।

কর ও ভ্যাট ছাড় দেয়া পণ্যগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো- কভিড-১৯ টেস্ট কিটবেজড অন ইমিউনোলোজিক্যাল রিঅ্যাকশনস, কভিড-১৯ টেস্ট কিটবেজড অন পলিমেজার চেইন রিঅ্যাকশন (পিসিআর) নিউক্লিক এসিড টেস্ট, আইসো প্রোফাইল অ্যালকোহল, প্রোটেকটিভ গার্মেন্টস মেড ফর্ম প্লাস্টিক শিটিং, প্লাস্টিক ফেস শিলড, মেডিক্যাল প্রোটেকটিভ গিয়ার, প্রোটেকটিভ গার্মেন্টস ফর সার্জিক্যাল বা মেডিক্যাল ইউজ, ফুল বডি ওভেন স্যুট ইমপ্রেগনেটেড উইথ প্লাস্টিক প্রভৃতি।