বিভাগ - সারাদেশ

কলাপাড়ায় মহিপুর সড়কের প্রবেশ পথটি এখন মরন ফাঁদে পরিনত

প্রকাশিত

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি ঃ কলাপাড়ার মৎস্য বন্দর মহিপুর বাজারের প্রবেশের সড়কটি এখন মৎস্য ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসীর জন্য মরন ফাঁদে পরিনত হয়েছে। সড়কের ওপরের অংশ কার্পেটিংয়ে ভেঙ্গে ইটের খোয়া বেরিয়ে পড়েছে এবং সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য বড় বড় গর্ত। স্থানীয় প্রশাসনের নজরদারির অভাবে গুরুত্বপুর্ন এ সড়কটি বেহাল দশায় রয়েছে দীর্ঘ দিন ধরে। জনবহুল রাস্তটি ভেঙ্গে যাওয়ায় চরম জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। এরফলে রাজস্ব আয় ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা করছে এলাকার সচেতন মহল।

মহিপুর বাজার একটি ঐতিহ্যবাহী বাজার। এখানে সপ্তাহে প্রতি বৃহস্পতিবার দিন হাট বসে। এবং প্রতিদিন সকাল-বিকাল বাজার বসে। এখানে বিভিন্ন এলাকা থেকে মাছ কিনতে প্রতিদিন ক্রেতারা আসেন। কলাপাড়া-মহিপুরের পাকা সড়কের সাথে বাজারটি হলেও মহিপুরে বাজার দিক থেকে হেটে ঢুকতে প্রবেশের রাস্তাটি পুরোপুরি ভেেেঙ্গ গেছে, ঘটছে একের পর এক দুর্ঘটনা। দুঘটনাকবলিত হচ্ছে মালবাহী পিকআপ ভ্যান, ট্রাক,কার্ভাডভ্যান,ভ্যানসহ যানবাহন। ইলিশ মাছ ব্যবসায়ীরাও মালামাল আনা-নেয়া করতে গিয়ে মারাত্নক দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। ভাঙ্গাচোরা রাস্তার কারনে প্রায়ই মালামাল পরিবহনকারী যানবাহন দুর্ঘটনায় ব্যবসায়ীরা আর্থিক ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। বাজারে আসা ক্রেতারা পোহাচ্ছেন দুর্ভোগ । এই বাজার থেকে প্রতি বছর সরকারের বিপুল পরিমান রাজস্ব আয় হলেও এ রাস্তাটি মেরামতে কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ নেই। ফলে দীর্ঘ দিন ধরে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এলাকার হাজার হাজার মানুষকে। মহিপুর নবগঠিত থানা হয়েছে তাই পুলিশ প্রশাসনকে গাড়ী নিয়ে তাদের ওই রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে হয়। প্রতি বছর মৎস্য বন্দর থেকে কোটি কোটি টাকার ইলিশ মাছ ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় কিনতে আসে এবং বিভিন্ন জেলায় পাইকারি বিক্রি করা হয়। এছাড়া সোনালী ব্যাংক, কৃষি ব্যাংক, পোষ্ট অফিস, ভুমি অফিস, স্বাস্থ্য কেন্দ্র, মহিপুর কো-অপারেটিভ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কিন্ডার গার্টেন স্কুলের শতশত কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ রাস্তায় চলাচল করতে হয়। এলাকা বাসীর দীর্ঘদিনের দাবি ভাঙ্গা এ রাস্তাটি সংস্কার হলে এলাকাবাসীর জন্য এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন ঘটবে।

মহিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দিপ্তি রানী ভেীমিক বলেন, মহিপুর বাজারে প্রবেশের রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে জরাজীর্ন অবস্থায় রয়েছে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের চলাচলের জন্য এই রাস্তাটি একমাত্র পথ। এ রাস্তা ওপর দিয়ে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের চলাচলের জন্য এই রাস্তাটি একমাত্র পথ। বাজারের দিন ছাড়াও প্রতিদিনই জনসাধারকে এ রাস্তা দিয়ে বাজারে আসতে হয়। বাজারে প্রবেশের প্রধান রাস্তাটি ভেঙ্গে জরাজীর্ন হওয়ায় কৃষকদের উৎপাদিত পন্য বাজারজাত করা কষ্টকর হয়ে পড়েছে। তাছাড়া রাস্তাটির সামনে রয়েছে মহিপুর কো অপারটিভ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মহিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিদিন ছাত্র-ছাত্রীদের বিদ্যালয় যাতায়ত করতে হয়। তাই দ্রুত রাস্তাটি নির্মানের জন্য উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

মহিপুর মৎস্য ব্যবসাযী সমিতির একাধিক ব্যবসায়ী জানান, দক্ষিনাঞ্চলের একমাত্র মৎস্য বন্দর আলীপুর ও মহীপুর। মহিপুর থেকে সবচেয়ে বেশি মাছ রপ্তানি করা হয়। দু:েেখর বিষয় ট্রাক বা গাড়ীতে মাছ ভর্তি করে নিয়ে আসা যাওয়ার রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। যেখানে সরকার বছরে কোটি কোটি রাজস্ব আয় করে। কিন্তু ট্রাক বা গাড়ী চলাচল তো দূরের কথা মানুষ হেঁটে পর্যন্ত চলাচল করতে কষ্ট হয়।

কলাপাড়া উপজেলা স্থানীয় সরকার উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো.দেলোয়ার হোসেন বলেন, এ বছরে কোনো পরিকল্পনা নেই রাস্তাটি করার। তবে আই আর আই ডিপি প্রজেক্ট ওই কাজটি করার ব্যবস্থা করছে। সেখান থেকে কাঠাবাড়ানি পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তা কিছু দিনের মধ্যে করার পরিকল্পনা রয়েছে সেই সাথে মহিপুরে প্রবেশ মুখের সড়কটি করার সম্ভবনা রয়েছে।