কাউনিয়ায় তিস্তার জেগে উঠা চরে ভুট্টা চাষ বেড়েছে

প্রকাশিত

সারওয়ার আলম মুকুল,কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি ঃ অল্প খরচ আর অধিক ফলন এবং বেশী লাভ হওয়ায় কাউনিয়ায় তিস্তা নদীর জেগে উঠা চরসহ চরাঞ্চল বেষ্ঠিত গ্রাম গুলোতে ভুট্টা চাষে ঝুকে পড়েছে চাষীরা। চলতি মৌসুমে গতবছরের তুলনায় প্রায় ১০০ হেক্টর বেশী জমিতে ভুট্টার চাষ হয়েছে। ভুট্রার বাম্পার ফলনের আশা করছে কৃষকরা।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে তিস্তা নদী বেষ্ঠিত যে সব চরে কোন ফসল হতো না সে সব চরের জমিতে এখন ভুট্টার চাষ হচ্ছে। উপজেলার প্রাননাথচর, নাজিরদহ চর, আরাজি হরিশ্বর, চর বিশ্বনাথ, চর আজম খাঁ, চর গনাই, চরগদাই, গুপিডাঙ্গা, চর চতুরাসহ ২৯ টি চরে দিগন্ত মাঠ জুড়ে ভুট্টা চাষ হয়েছে। গদাই গ্রামের ভুট্টা চাষি শাহজাহান জানান তিনি ভুট্টা ১ বিঘা জমিতে ভুট্টা চাষ করেছেন। ফলন মোটামুটি ভাল এসেছে, সেই সাথে ভাল দাম পাওয়ার আশা প্রকাশ করছেন। নাজির দহ গ্রামের কৃষক মেনাজ উদ্দিন জানান তিনি এবার ১একর জমিতে ভুট্টা চাষ করেছেন। তার খরচ হয়েছে ৮ হাজার টাকা। সে ৩০ থেকে ৩৫ মন ভুট্রা ফলনের আশা করছেন। বর্তমানে ভুট্রার বাজার মূল্য ৭শ’ থেকে ৯শ’ টাকা। তিনি আরও জানান ভুট্টার পাতা গো-খাদ্য ও গাছ রান্নায় জ্বালানীর কাজে ব্যবহার হয়। ভুট্টা চাষী ছানোর ও ফুল মিয়া জানান ভুট্টা চাষে সামান্য সমস্যা রয়েছে তা হলো মাড়াই ও বাজারজাত করন। এ ছাড়াও সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা ও ব্যাংক ঋনের অভাব। কৃষকরা সহজ শর্তে কিস্তিতে মারাই মেশিন, কৃষি ঋণ, চাষাবাদে আধুনিক প্রযুক্তিগত প্রশিক্ষন, উন্নত মানের বীজ সরবরাহ, সংরক্ষনাগার ও বিপনন ব্যাবস্থা চালুর দাবী জানান। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল আলম জানান, চলতি মৌসুমে উপজেলায় ৬৮৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষ হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্র হেক্টর প্রতি ৭.২৫ মেঃটঃ ধরা হয়েছে। অবহাওয়া ভাল থাকায় ফলন ভাল হবে আশা করছেন। এছাড়া কৃষকদের প্রশিক্ষন দেওয়া হচ্ছে বলেও তিনি জানান।