বিভাগ - শিক্ষা

কারাগার এখন সংশোধনাগারে রূপান্তর করা হয়েছে: কারা মহাপরিদর্শক

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: বাংলাদেশের কারাবন্দীদের মধ্যে ৩৫ শতাংশের বেশি মাদক সংক্রান্ত অপরাধের সাথে জড়িত। এদের মধ্যে কেউ কেউ মাদক নির্ভরশীল আবার কেউ পাচার ও ব্যবসার সাথে জড়িত। কারাগারের ভেতরে মাদক নির্ভরশীলদের চিকিৎসার সংকট আছে। তাই মাদক নির্ভরশীল কারাবন্দীদের সুচিকিৎসা ও কারা মুক্তি পরবর্তী পুনর্বাসনের জন্য ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ও কারা অধিদপ্তরের যৌথ আয়োজনে চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক ২ দিন ব্যাপি মৌলিক প্রশিক্ষণ ঢাকার কারা সদর দপ্তরের প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট ২৫ নভেম্বর, সোমবার শুরু হয়েছে। জার্মান দাতা সংস্থা জিআইজেড ইমপ্রুভমেন্ট আফ দ্যা রিয়েল সিচুয়েশন অফ ওভার ক্রাউডিং ইন প্রিজন ইন বাংলাদেশ (আইআরএসওপি) প্রকল্পের মাধ্যমে এই প্রশিক্ষণের সহায়তা প্রদান করছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কারা মহাপরিদর্শক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক কর্ণেল মোঃ আবরার হোসেন, কারা উপ-মহাপরিদর্শক (ঢাকা বিভাগ) টিপু সুলতান ও জি আই জেড বাংলাদেশের রুল অফ ল প্রোগ্রামের অপারেশন ডিরেক্টর তাহেরা ইয়াছমিন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য সেক্টারের পরিচালক ইকবাল মাসুদ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি কারা মহাপরিদর্শক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা বলেন, কারা অভ্যান্তরে মাদক নির্ভরশীলদের সুচিকিৎসার জন্য কারা কর্মকর্তাদের এই ধরনের প্রশিক্ষণের আয়োজন খুবই প্রয়োজন এবং এ উদ্যোগ প্রশংসনীয়। তিনি এই প্রশিক্ষণের ধারাবহিকতা রক্ষা করে প্রয়োজনে আগামীতে এ্যাডভান্স লেভেল প্রশিক্ষণের উদ্যোগ গ্রহণ করবেন। তিনি আরো বলেন, কারাগার এখন সংশোধনাগারে রূপান্তর করা হয়েছে। কারাগারের ভেতরে কারা বন্দিদের জন্য বিভিন্ন বিষয়ে কারিগরি প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হচ্ছে যাতে বন্দিরা মুক্তির পরে সমাজিক ও আর্থিক ভাবে পুনর্বাসিত হতে পারে। প্রশিক্ষণ আয়োজনে সহযোগিতার জন্য তিনি ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ও জিআইজেডকে ধন্যবাদ জানান।

উল্লেখ্য স্বরাষ্ট মন্ত্রলয়ের ও কারা অধিদপ্তরের অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে জি জেড বাংলাদেশের এর কারিগরী সহযোগিতায় ২০১৪ সাল থেকে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে আসছে।