কেবল সার নয়, বিদ্যুৎ ও ডিজেলের মূল্য হ্রাসে সরকার ব্যবস্থা নেবে আশা ন্যাপ’র

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: সরকার কর্তৃক ডাই অ্যামুনিয়াম ফসফেট (ডিএপি) সারের দাম ২৫ টাকা থেকে কমিয়ে ১৬ টাকায় আনার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ আশা প্রকাশ করেছেন কেবল সার নয়, এর পাশাপাশি বিদ্যুৎ এবং ডিজেল যেটা সেচের জন্য প্রয়োজনীয় এবং পানির মূল্য হ্রাস করার ক্ষেত্রে সরকারের তরফ থেকে উদ্যোগ নেয়া হবে।

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এই আশা প্রকাশ করেন।তারা বলেন, সারের মূল্য হ্রাসের ফলে কৃষকের উৎপাদন খরচ কমে আসবে এবং কৃষক উৎপাদন করতে আরও উৎসাহিত হবে। এ দেশের কৃষকের অতীত অভিজ্ঞতা বলে, বিভিন্ন সরকারের সারের দাবিতে কৃষককে প্রাণ দিতে হয়েছিল এবং তারপরও কৃষক সার পায়নি। সেক্ষেত্রে সারের দাম কমিয়ে আনা এবং সেটা ভোক্তা পর্যায়ে তাদের কাছে পৌঁছে দেয়ার এ উদ্যোগ অবশ্যই একটি সরকারের ইতিবাচক পদক্ষেপ।

তারা বলেন, সরকার বেশ আগেই যে আমন ধানের মূল্য ও ক্রয় লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে তাতে কৃষকদের উপকৃত হওয়ার কথা। কিন্তু এখনো দুর্ভাগ্যজনকভাবে কৃষক এখনো তার ধানের দাম পাচ্ছে না। বরঞ্চ উৎপাদিত ধানের দাম কমে গেছে। অন্যদিকে ভোক্তা পর্যায়ে মিল মালিক এবং চালের ব্যবসায়ীরা তারা ইতিমধ্যে চালের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। একদিকে কৃষকের ধানের মূল্য কম হওয়া অন্যদিকে চালের মূল্য বৃদ্ধি এই যে, বিপরীতধর্মী বিষয় এ বিষয়টি সুরাহা করা অতি জরুরী এবং এর ফলে যে সিন্ডিকেট বা মধ্যসত্ত্বভোগীরা যে সুবিধা পাচ্ছে সেটাও ভেঙে দিতে হবে কৃষকের স্বার্থে, রাষ্ট্রের স্বার্থে এবং জনগনের স্বার্থে।