কোয়ারেন্টাইনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী, তবে করোনায় আক্রান্ত নন

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: কোয়ারেন্টাইনে আছেন, তবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হননি বলে নিজেই জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রবিবার (২৯ মার্চ) দুপুর ১২টায় মহাখালীতে আইইডিসিআরের সম্মেলন কক্ষ থেকে অনলাইনে লাইভ ব্রিফিংয়ে যুক্ত হয়ে একথা বলেন তিনি। এসময় করোনা ভাইরাস নিয়ে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত, স্বাস্থ্যমন্ত্রী নিজেও কোয়ারেন্টাইনে আছেন কি-না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বড় মন্ত্রণালয়। অনেক লোকজন আসা যাওয়া করে। তাদের কারও হতে পারে। সেটা তো আছেই। আমি তো কাজ করছি। করোনা ভাইরাসে আমি নিজে আক্রান্ত নই। আমি টেস্টও করেছি। কোয়ারেন্টাই বলবো না। তবে অন্যরা যেভাবে আছে আমিও সেভাবেই আছি।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘সাধারণ ছুটি শেষে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন প্রধানমন্ত্রী। জাহিদ মালেক বলেন, বিভিন্ন হাসপাতালে ৩ লাখ পিস ব্যক্তিগত সুরক্ষার সরঞ্জামাদি (পিপিই) বিতরণ করা হচ্ছে। প্রতিদিন ২০-৩০ হাজার করে আমরা পাচ্ছি। ৫ লাখ পিস পিপিই এপ্রিলে চলে আসবে।‘বেসরকারি হাসপাতালে পিপিই বিতরণ আমরা করি না। তাদেরগুলো তাদেরই ব্যবস্থা করতে হবে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে আমাদের আলাপ হয়েছে। তারা কিছু গাইডলাইন দিয়েছে আমরা ইতিমধ্যে হাসপাতাল ব্যবস্থা রয়েছে। ঢাকায় তিন হাজার বেড প্রস্তুত রয়েছে। মন্ত্রী বলেন, পৃথিবীর অন্যান্য দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যাবে বাংলাদেশ এখন অনেক ভালো আছে।

অনেক মিডিয়া নিউজ করছে, আমরা পিপিই সংকটে আছি। আমাদের মেডিকেল ভেন্টিলেটর নাই। সবাইকে বলব এ ধরনের তথ্য সঠিক না। করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় আমরা জানুয়ারি থেকে প্রস্তুতি নিয়েছি। আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করে যাচ্ছি। এক্ষেত্রে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন, যোগ করেন জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, আমাদের সরকারি হাসপাতালগুলোতে ৫০০ মেডিকেল ভেন্টিলেটর আছে। আমার জানার মতে, বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ৭০০ এর মতো ভেল্টিলেটর আছে।

জাহিদ মালিক বলেন, ‘সর্দি বা কাশি হলেই সে করোনা আক্রান্ত এ কথা ঠিক নয়। আপনারা চিন্তিত না হয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ নিন।’এর আগে গতকাল শনিবার করোনা পরিস্থিত জানাতে অনলাইন লাইভ ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (ম্যানেজওয়ে ইনফরমেশন সিস্টেম) মো. হাবিবুর রহমানের কাছে একজন সাংবাদিক জানতে চান, স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কোয়ারেনটাইনে থাকার বিষয়টি সত্যতা সম্পকে।

সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের উত্তরে হাবিবুর রহমান ‘হ্যা’ বা ‘না’ কিছুই বলেননি। তিনি অন্য প্রশ্নের উত্তর দিতে শুরু করেন। সেই প্রশ্নের উত্তর শেষে আবার সাংবাদিক একই প্রশ্ন করেন। এভাবে বারবার তিনি তাকে এই প্রশ্নটি করেন। কিন্তু তিনি ‘হ্যা’ বা ‘না’ কোনো উত্তর না দেয়ায় সেই সাংবাদিক বলেন, ‘আপনাকে একটা প্রশ্ন করা হচ্ছে, আর আপনি বারবার একটি প্রশ্ন এড়িয়ে যাচ্ছেন’। তারপরও হাবিবুর রহমান ‘হ্যা’ বা ‘না’ কোনো উত্তর দেননি।