বিভাগ - আইন-আদালত

গৃহবধূর চুল কর্তন, আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রশাসন কী ব্যবস্থা নিয়েছে: হাইকোর্ট

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: মিথ্যা অপবাদ দিয়ে সিরাজগঞ্জে এক গৃহবধূর চুল কেটে নেওয়ায় আসামিদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা জানতে চেয়েছেন আদালত।অভিযোগ উঠেছে, গত ২৫ নভেম্বর উল্লাপাড়া উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রশিদ ও তার চার সহযোগী বটি দিয়ে ওই নারীর চুল কেটে দেন। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় মামলাও দায়ের হয়েছে।

রোববার (৮ ডিসেম্বর) অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান বিষয়টি হাইকোর্ট বিভাগের নজরে আনেন। আদালত আগামী ১১ ডিসেম্বরের মধ্যে সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি), পুলিশ সুপার (এসপি) ও উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) সঙ্গে যোগাযোগ করে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে সর্বশেষ তথ্য জানাতে বলেন।

বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) মীর শাহীন শাহ পারভেজ বলেছেন, ভুক্তভোগী নারীর বাড়ি উপজেলার গজাইল গ্রামে। ২৫ নভেম্বর সন্ধ্যায় তিনি আত্মীয় বাড়ি যাচ্ছিলেন। সে সময় স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রশিদ তার পথ রোধ করেন। এরপর মিথ্যা অপবাদে বটি দিয়ে তার মাথার চুল কেটে দেন। এ ঘটনায় তাকে সহায়তা করেন— গজাইল গ্রামের মুনসুর (৩৮), আব্দুস সালাম (৪৫), নাসির উদ্দিন (৪০) ও শহীদুল ইসলাম (৩২)।

মীর শাহীন শাহ পারভেজ আরও বলেন, মামলা করতে গিয়েও ওই গৃহবধূ নানা বাধার সম্মুখীন হয়েছেন। এরপর ২ ডিসেম্বর রাতে সংশ্লিষ্ট থানায় পাঁচ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন তিনি। মামলা নম্বর ২/২০১৯। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

এদিকে গৃহবধূর চুল কেটে দেওয়ার ভিডিওচিত্র ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। তাতে পাঁচ জনকে ওই গৃহবধূর চুল কেটে উল্লাস করতে দেখা যায়।