বিভাগ - সারাদেশ

ঘুষ না পেয়ে বেতন বন্ধ করা সেই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে জিডি

প্রকাশিত

আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: ঘুষের টাকা না পেয়ে সহকারী শিক্ষকের বেতন বন্ধ করা লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার সেই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় সাধারন ডায়েরী (জিডি) করেছেন ভুক্তভোগি শিক্ষক।

শনিবার (২৫ জানুয়ারী) সন্ধ্যায় উপজেলার কুমড়ীরহাট এসসি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামরুল ইসলাম কাজলের বিরুদ্ধে আদিতমারী থানায় জিডি করেছেন একই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মনোয়ারুল ইসলাম।

অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার কমলাবাড়ি ইউনিয়নের কুমড়ীরহাট এসসি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামরুল ইসলাম কাজল দাবিকৃত ঘুষের ৮লাখ টাকা না পেয়ে ক্ষমতার অপব্যাবহার করে সহকারী শিক্ষক (গনিত) মনোয়ারুল ইসলামের বেতন বন্ধ করেন। কোন ধরনের নোটিস ছাড়াই বেতন বন্ধ করায় বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ করেন শিক্ষক মনোয়ারুল ইসলাম। এ নিয়ে গত ১৬ জানুয়ারী বাংলানিউজে ‘ঘুষ না পেয়ে শিক্ষকের বেতন বন্ধ করলেন প্রধান শিক্ষক’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। যার ফলে নড়াচাড়া দিয়ে উঠে শিক্ষা বিভাগ। একই সাথে দুর্নীতির তদন্তে মাঠে নেমে পড়েন সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। ঊর্দ্ধতন মহলে নড়াচাড়া দেয়ায় বিদ্যালয়টির অভিভাবক ও স্থানীয়রা প্রধান শিক্ষকের সীমাহীন দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে ২২ জানুয়ারী দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন দফতরে গনপিটিশন দাখিল করে বিচার দাবি করেন।

এ দিকে নিজেকে নির্দোশ দাবি করে শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামরুল ইসলাম কাজল তার বিরুদ্ধে প্রকাশিত নিউজের প্রতিবাদ প্রকাশ করেন। একই সাথে বেতন বন্ধের প্রতিবাদে বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দায়ের করা শিক্ষক মনোয়ারুল ইসলামকে সপরিবারে এলাকা ছাড়ার হুমকী দিচ্ছেন বলে ওই শিক্ষক দাবি করেন। নিজের ও পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে সহকারী শিক্ষক মনোয়ারুল ইসলাম বাদি হয়ে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে শনিবার(২৫ জানুয়ারী) আদিতমারী থানায় একটি সাধারন ডায়েরী (জিডি নং-৯৭১) দায়ের করেন।

জিডিতে বলা হয়, বিদ্যালয়টিতে গনিত বিষয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পান বিশ্ববিদ্যালয় পাস মেধাবী শিক্ষক মনোয়ারুল ইসলাম। গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে তিনি এমপিওভুক্ত হয়ে বেতন ভাতা উত্তোলন করে আসছেন। নিয়োগকালিন সময় দাবিকৃত ৮লাখ টাকা না পেয়ে গত ১ জানুয়ারী বই উৎসবে বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থী ও অভিবকদের সামনে প্রধান শিক্ষক কামরুল ইসলাম কাজল সহকারী শিক্ষক মনোয়ারুলকে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেন। এ সময় তাকে আগামী দিনে বিদ্যালয়ে প্রবেশ ও এটা নিয়ে বাড়াবাড়ি না করতে শাসনগর্জন করেন। বেশি বাড়াবাড়ি করলে পরিবারসহ তাকে মেরে ফেলার হুমকী দেন। বিষয়টি নিয়ে সরকারের বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দায়ের করায় ক্ষিপ্ত হয়ে প্রধান শিক্ষক দলবল নিয়ে শিক্ষক মনোয়ারুলের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের গালিগালাজ করে চাকুরীচ্যুতিসহ হত্যার হুমকী দেন।

জিবন ও পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে সহকারী শিক্ষক মনোয়ারুল ইসলাম বাদি হয়ে আদিতমারী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে থানা পুলিশ ঘটনার তদন্ত করে শনিবার(২৫ জানুয়ারী) সধারন ডায়েরী হিসেবে গন্য করেন।

আদিতমারী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) সাইফুল ইসলাম জিডি’র সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সহকারী শিক্ষক মনোয়ারুল ইসলামের আবেদনটি জিডি হিসেব গ্রহন করা হয়েছে।