বিভাগ - সারাদেশ

ছাতকে হামলার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের

প্রকাশিত

ছাতক প্রতিনিধিঃ ছাতকের সিংচাপইড় ইউনিয়নের কামারগাঁও পীরবাড়ি গ্রামে প্রতিপক্ষের লোকজন কর্তৃক হামলা, লুটপাট, ভাঙচুর ও শ্লীলতাহানীর ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত ৫ জুলাই গ্রামের মৃত উকিল আলীর পুত্র রুবেল আহমদ শাহ বখত বাদি হয়ে ১০জনকে আসামী করে এ মামলা নং-৮ দায়ের করেন। মামলায় কামারগাঁও গ্রামের আবাছ আলীর পুত্র তৌরিছ আলী, তাজ উদ্দিনের পুত্র লালু মিয়া ও ইসলাম উদ্দিন, মৃত বাহরাম আলীর পুত্র ফটিক মিয়া, মৃত আছদ্দর আলীর পুত্র শইরত, শইরত আলীর পুত্র রুহুল আমীন, ছুরত আলীর পুত্র রাহিম, ফটিক মিয়ার পুত্র জুয়েল মিয়া, আবাছ আলীর কন্যা রাছনা বেগম, শইরত আলীর পুত্র বদরুলকে আসামী করা হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ২জুলাই দুপুরে রুবেল আহমদ শাহ বখত এর বন্যায় প্লাবিত বাড়ির পুকুর পার দিয়ে নৌকা নিয়ে যাবার সময় প্রতিপক্ষ গ্রামের তাজ উদ্দিনের পুত্র লালু মিয়া ও শইরত আলীর পুত্র রুহুল আমীন পুকুর ঘাটে থাকা মহিলাদের উদ্দেশ্য করে অশ্লীল কথা-বার্তা বলতে থাকে। এসময় শাহ বখত এর প্রতিবাদ করলে বাকবিতন্ডার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে রুহুল ও লালুর পক্ষ নিয়ে সংঘবদ্ধরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে শাহ বখত এর উপর হামলা চালিয়ে আহত করে। হামলাকারীদের হাত থেকে তাকে বাঁচাতে মা তাহমিনা বেগম, স্ত্রী তাসলিমা বেগম, শিশু কন্যা ফাহমিদা বেগম, বোন শারমিন বেগম ও রাহেনা বেগম, ফুফু নার্গিস বেগমসহ পরিবারের লোকজন এগিয়ে আসলে তাদেরকে ব্যাপক মারপিট করে আহত করে। ভয়ে নারীরা বসতঘরে আশ্রয় নিতে গেলে ধাওয়া করে হামলাকারীরা তাদের টানা হিঁচড়ে প্রায় বিবস্ত্র অবস্থায় শ্লীলতাহানি ঘটিয়ে ৩ভরি ওজনের স্বর্ণালঙ্কার, একটি মোবাইল ফোনসহ দু’লক্ষাধিক টাকা মূল্যের মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। যাবার সময় আসবাবপত্র, বসতঘর ও দরজা ভাঙচুর করে তান্ডব চালায়। পরে আহতদের স্থানীয় কৈতক ২০শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। আসামীদের অব্যাহত হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন বাদিসহ তার পরিবার। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সোহেল রানা বলেন, মামলাটি তদন্তাধিন আছে এবং আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।