ছাতক এখনো করোনা মুক্ত : হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৫২জন

প্রকাশিত

ছাতক প্রতিনিধিঃ ছাতকে এখন পর্যন্ত কারো মধ্যে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত বা করোনা ভাইরাসের লক্ষণ পরিলক্ষিত হয়নি। রোববার পর্যন্ত এ উপজেলায় কারো মধ্যে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত বা ভাইরাসের লক্ষণ শনাক্ত হয়নি বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। অভিজ্ঞ জনের মতে এ পর্যন্ত এ উপজেলা করোনা ভাইরাস মুক্ত রয়েছে। বিষয়টি ছাতকবাসীর জন্য সৃষ্টিকর্তার নেয়ামত বলেও তারা মনে করছেন। পাশপাশি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ও গণসচেতনতা বৃদ্ধিতে উপজেলা প্রশাসন, পৌরসভা ও পুলিশ প্রশাসনের জোরালো ভুমিকায় এখানে স্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে। একই সাথে উপজেলার সর্বস্থরের মানুষ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সজাগ থাকায় এখন পর্যন্ত গোটা উপজেলা করোনা ভাইরাস মুক্ত রয়েছে।

এদিকে, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডাঃ রাজীব চক্রবর্ত্তী জানিয়েছেন, উপজেলার মধ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কোন রোগী সনাক্ত হয়নি। বিষয়টি উপজেলাবাসীর জন্য সু-সংবাদও বটে। তবে বিদেশ ফেরত ১০৭জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল। এরমধ্যে ৫২জন প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৪দিন থাকার পর তাদের মধ্যে কোন করোনা ভাইরাসের লক্ষন না থাকায় তাদের হোম কোয়ারেন্টাইন মুক্ত করা হয়েছে। বাকী ৫৫জন এখানো হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। অপরদিকে, বর্তমানে ছাতক শহর ও শহরের বাইরে ফার্মেসী, কাঁচামাল ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান ছাড়া সকল দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। ছাতকে সব ধরনের গণপরিবহনও বন্ধ রয়েছে। শহরে লোকসমাগম নেই বললেই চলে। যারা প্রয়োজনের তাগিদে আসছেন তারা মাস্ক ব্যবহার করে স্বাভাবিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করছেন। সরকারী বাহিনী, উপজেলা প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষের জোরদার টহল ও মনিটরিং অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া গ্রামীণ বাজার-হাটগুলোতে লোক সমাগম বন্ধে সরকারী বাহিনী ও উপজেলা প্রশাসন প্রত্যহ জোরদার টহল দিচ্ছেন। তবে সরকারী বাহিনীর কোন জোর-জবরদস্তি এখানে পরিলক্ষিত হয়নি। ইতি মধ্যেই নি¤œ আয়ের মানুষের মধ্যে সরকারী খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শুরু করা হয়েছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন এবং পারিবারিকভাবেও চাল, ডাল, তেল, আলু, পিঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বিতরণ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আরো সচেতন ও সকলের সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ সম্ভব বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করছেন।