বিভাগ - কলাম

ডিইউজের ডাকে ঈদের দিনেও রাজধানীর সার্ক ফোয়ারা মোড়ে সাংবাদিকদের সমাবেশ

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: ঈদের আগে বকেয়া বেতন ও বোনাস পরিশোধ না করায় এবং করোনা দুর্যোগের মধ্যেও বিভিন্ন গণমাধ্যমে ছাটাই বন্ধের দাবিতে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজের ডাকে ঈদের দিন দুপুরে সমাবেশ ও মিছিল করেছেন ঢাকার সাংবাদিকরা।

পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের দিন সোমবার (২৫ মে) দুপুরে রাজধানীর কারওরান বাজারের সার্ক ফোয়ারার মোড়ে ডিইউজে’র সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদের সভাপতিত্বে আয়োজিত সমাবেশে ঈদের আগে যে সব সংবাদমাধ্যম সাংবাদিকদের বেতন-বোনাস ঠিক সময়ে পরিশোধ করেছে, তাদের ধন্যবাদ আর যে সব প্রতিষ্ঠান বেতন-বোনাস দেননি তাদের ধিক্কার জানানো হয়। একই সঙ্গে সংবাদপত্র ও টিভি মালিকদের হুঁশিয়ারি দিয়ে ডিইউজে’র নেতারা বলেছেন, করোনা মহামারীর এই দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে গণমাধ্যমকর্মীদের কোনও অজুহাত দিয়ে চাকরীচ্যুত বরদাস্ত করা হবে না। ইতিমধ্যে যাদের চাকরীচ্যুত করা হয়েছে, তাদেরকে অবিলম্বে পুণ:বহালের দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে ডিইউজে’র সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ বলেছেন, ‘করোনা মহামারির দু:সময়ে যেখানে গোটা বিশ্বে যেখানে মানুষ মানুষের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে, সেখানে এ দেশের গণমাধ্যম মালিকেরা বিভিন্ন অজুহাতে সাংবাদিকদের চাকরিচ্যুতসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত করছে। যা অন্যায় ও মানবাধিকার লংঘনের শামিল।’ তিনি চাকরিচ্যুত গণমাধ্যমকর্মীদের চাকরিতে পুনর্বহালের দাবি জানান। অন্যথায় ডিইউজে কঠিন পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবে বলেও হুঁশিয়ারী দেন তিনি।

ডিইউজে’র সভাপতি বলেন, আজ ঈদের এই আনন্দঘন দিনে আমরা পরিবার-পরিজন নিয়ে বন্ধু মহলে সময় কাটাতে পারতাম। কিন্তু আমরা দেখছি এই করোনার ভাইরাসের সময়েও অনেক প্রতিষ্ঠান, আমাদের-সাংবাদিকদের বেতন-বোনাস দেয়নি, অপরদিকে চলছে অবৈধ চাকরিচ্যুতি। আজ পবিত্র ঈদের দিনেও আগামী নিউজ নামের এক অনলাইন পোর্টাল থেকে ৬ জনকে চাকরিচ্যুত করা হয়। করোনাকালে এই প্রতিষ্ঠানে আরও দু’দফা চাকরিচ্যুত করা হয়েছে আরও কয়েকজনকে। এই অবস্থা চলতে পারে না। সাংবাদিকদের চাকরিচ্যুত বন্ধ করতে হবে, বেতন বোনাস দিতে হবে, যারা দিবেন না তাদের বিরুদ্ধে আগামীতে ভয়াবহ কর্মসুচিসহ ধর্মঘটের মত কঠিন কর্মসূচির ডাক আসতে পারে।

বিভিন্ন মিডিয়ার মালিকদের প্রতি হুশিয়ারি দিয়ে সিনিয়র এই সাংবাদিক বলেন, ‘ইউনিয়ন কিন্তু আগের জায়গায় নেই। যে সকল মালিকেরা মনে করেন ইউনিয়নকে তাদের মতো করে পুষতে পারবেন, তারা ভুল জায়গায় আছেন। যারা সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মালিকদের কাছে দালালি করে, সাংবাদিক কমিউনিটিকে ক্ষতিগ্রস্থ করে, ভুঁইফোড় কিছু সংগঠনের ব্যানারে চ্যারিটি করে সাংবাদিকদের রুটি-রুজির আন্দোলনকে বাধাগ্রস্ত করছেন, এগুলো বন্ধ করেন, ইউনিয়নের মাধ্যমে সংগঠিত হোন, ইউনিয়নকে শক্তিশালী করেন। ইউনিয়ন শক্তিশালী হলে সাংবাদিকদের দাবি আদায় সহজ হবে।

তিনি বলেন, সরকার যদি তার কর্মিকে করোনা আক্রান্ত হলে ক্ষতিপুরণ দিতে পারে, তাহলে গণমাধ্যমের মালিকেরা কেন তার কর্মির জন্য ক্ষতিপুরণ দেবে না ? যে সকল সাংবাদিক এরই মধ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের চিকিৎসার ব্যয় বহন ও ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানান ডিইউজে সভাপতি। তিনি বলেন, করোনা উপসর্গ নিয়ে ইতিমধ্যে যারা মারা গেছেন তাদের প্রত্যেককে ৫০ লাখ টাকার ক্ষতিপূরণ দিতে হবে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানকে।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু বলেন, করোনা কালে ছাটাই আমরা মানি না। যারা ছাটাই করছেন তাদের বিরুদ্ধে হুশিয়ারি বার্তা, আপনারা নিজেদের বিলাশিতায় অর্থ খরচ করছেন অথচ সাংবাদিকদের ন্যায্য বেতন বোনাস দিচ্ছেন না। যা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার লঙ্ঘন। তিনি বলেন, ‘আলোকিত বাংলাদেশ, এসএ টিভি, গাজী টিভি, আগামী নিউজ, যায়যায়দিন, এনটিভি, এই প্রতিষ্ঠানগুলো ঢালাও ভাবে সাংবাদিকদের ছাটাই করে অমানবিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে। আপাতত আমাদের এই প্রতীকী কর্মসুচী, আগামীতে আরও বৃহতর কর্মসুচি আসবে’।

ডিইউজে’র যুগ্ম সম্পাদক খায়রুল আলমের সঞ্চালনায় ঈদের দিনের এই সমাবেশ আরও বক্তব্য রাখেন, , সাংগঠনিক সম্পাদক এ জিহাদুর রহমান, বিএফইউজের সাবেক যুগ্ম মহাসচিব অমিও ঘটক পুলক, ডিইউজের প্রচার সম্পাদক আছাদুজ্জামান, জনকল্যাণ সম্পাদক পদে সোহেলী চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস চৌধুরী সোহেল, নির্বাহী সদস্য রাজু হামিদ, সাব এডিটর কাউন্সিলের সাবেক কোষাধ্যক্ষ শামসুল আলম সেতু, আলোকিত বাংলাদেশের ইউনিট প্রধান মতলু মল্লিক, শফিক বাশার, এম জহিরুল ইসলাম প্রমুখ।

সমাবেশ শেষে মিছিল নিয়ে বেতন-বোনাস খেলাপী এনটিভি দপ্তরের নিচে প্রতীকী অবস্থান গ্রহণ করা হয়।