বিভাগ - খেলাধুলা

দুই দায়িত্বকে একসূত্রে বাঁধলেন ‘মা’ খেলোয়াড়, নেটদুনিয়ায় প্রসংশায় ভাসছেন ভেনি

প্রকাশিত

স্পোর্টস ডেস্ক: কথায় বলে, যে রাঁধে সে চুলও বাঁধে। ঠিক যেমন এই ভলিবল খেলোয়াড়। সন্তান জন্ম যখন দিয়েছেন, তখন মা হিসেবে কিছু দায়িত্ব তো থেকেই যায়। আর পেশার সঙ্গে পারফেক্ট ব্যালেন্স করে যিনি মায়ের ভূমিকা পালন করতে সফল, তিনিই হয়ে ওঠেন আদর্শ নারী। মিজোরামের এই মহিলা খেলোয়াড় সেটাই করে দেখালেন। তাই তো আজ তিনি শিরোনামে।

একদিকে অধিনায়কত্ব, অন্যদিকে মাতৃত্ব। দুই বড় দায়িত্বকে একসূত্রে বেঁধে নজির গড়লেন ভারতের মিজোরাম রাজ্যের রাজ্যস্তরের ভলিবল খেলোয়াড় লালভেন্টলুয়াঙ্গি ওরফে ভেনি। মিজোরাম রাজ্য গেমস ২০১৯-এর উদ্ধোধনী দিনে তুইকুম ভলিবল দলের অধিনায়ক ভেনি ম্যাচের বিরতির সময় কোর্টের বাইরে এসে তাঁর সাত মাসের সন্তানকে স্তন্যপান করিয়ে আবার ম্যাচে ফেরেন। মাঠের বাইরের এই দায়িত্ব মাঠের ভেতরের পারফরমেন্সে প্রভাব ফেলেনি। তাঁর নেতৃত্বে সেই ম্যাচে জয় তুলে নেয় তুইকুম।

ভেনি যখন তাঁর সাতমাসের সন্তানকে স্তন্যপান করাচ্ছিলেন, সেটি চোখ এড়ায়নি চিত্র-সাংবাদিকদের। খেলা আর মাতৃত্বের অসাধারন মুহূর্ত্বকে ফ্রেমবন্দী করেন তাঁরা । সেই নজরকাড়া মুহূর্ত্বের ছবি সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট হওয়ার পরপরই শুরু হয়েছে তোলপাড়। একই অঙ্গে দুই রূপ ভেনির।

ফেসবুকে নিনগ্লুন হাঙ্ঘাল ছবিটি পোস্ট করেন। লিখে দেন, ছবির সোর্স লিন্ডা ছাকছুয়াক। ছবিটি পোস্ট হওয়ার পর থেকেই খেলোয়াড়কে প্রশংসায় ভরিয়েছেন নেটিজেনরা।

টুইকাম ভলিবল দলের হয়ে লেখেন ওই মহিলা। সাত মাসের সন্তানকে সঙ্গে নিয়েই দলের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে যোগ দিয়েছেন তিনি। তবে খেলার ফাঁকে সন্তানের দেখভালে কোনও ত্রুটি রাখছেন না। বিমানবন্দর কিংবা শপিং মলে স্তন্যদান নিয়ে নানা বিতর্ক এর আগে শোনা গিয়েছে। প্রকাশ্যে স্তন্যপান করানোয় মহিলাদেরই কাঠগড়ায় তোলা হয়েছে বারবার। কিন্তু ভলিবল খেলোয়াড়ের ছবি সর্বত্র প্রশংসিতই হচ্ছে। মহিলার সাহসিকতা, দায়িত্ববোধ ও আত্মত্যাগকে বাহবা জানাচ্ছেন নেটদুনিয়ার বাসিন্দারা। অনেকে বলছেন, মায়েরা এমনই হন।

ছবিটি পোস্ট করে হাঙ্ঘাল লিখেছেন, “খেলার ফাঁকে সাত মাসের শিশুকে স্তন্যপান করাচ্ছেন মা। ছবিটিকে মিজোরাম রাজ্য গেমস ২০১৯-এর ম্যাসকট করা হোক।” ইতিমধ্যেই মিজোরামের ক্রীড়ামন্ত্রী রবার্ট রোমায়িয়ার চোখেও পড়েছে ছবিটি। তিনি লালভেন্টলুয়াঙ্গির প্রশংসা করে বলেন, “প্রশংসা স্বরূপ ওকে ১০ হাজার টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।” সত্যিই, খেলার মাঠে মাতৃত্বের অনবদ্য দৃষ্টান্ত গড়লেন মহিলা। মাতৃস্নেহের এমন দৃশ্যকে কুর্নিশ।