দেশের প্রথম নারী জাতীয় অধ্যাপক ড. সুফিয়া আহমেদ মারা গেছেন

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: দেশের প্রথম নারী জাতীয় অধ্যাপক, ভাষা সৈনিক ও একুশে পদকপ্রাপ্ত ড. সুফিয়া আহমেদ আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর।

গতকাল (৯ এপ্রিল) রাতে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তিনি এক পুত্র সৈয়দ রেফাত আহমেদ (হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি), এক কন্যা ডা. রাইনা আহমেদ, তিনজন নাতি-নাতনি রেখে গেছেন

ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠায় ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর ১৪৪ ধারা ভেঙে যে মিছিল বের হয়, তার অগ্রসেনানী ছিলেন সুফিয়া আহমেদ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সান্ধ্য আইন জারির প্রতিবাদে মিছিলকারী নারীদের মধ্যেও তিনি ছিলেন অগ্রগণ্য। তিনি তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার সৈয়দ ইশতিয়াক আহমেদের স্ত্রী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও বিচারপতি মুহাম্মদ ইব্রাহিমের কন্যা।

দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে পড়াশোনা করা সুফিয়া আহমেদ ১৯৬০ সালে লন্ডনের একটি প্রতিষ্ঠান থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৬১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৮৩ সালে এ বিভাগে অধ্যাপক হন তিনি।

দেশের বাইরেও তিনি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাদান করেছেন। অধ্যাপক সুফিয়া আহমেদ বাংলাদেশ ব্যাংকের বোর্ড অব ডিরেক্টরের সদস্য হিসেবেও কর্মরত ছিলেন।

ভাষা আন্দোলনে অবদানের জন্য ২০০২ সালে তিনি দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার একুশে পদক লাভ করেন। ২০১৫ সালে সুফিয়া কামাল পুরস্কার লাভ করেন এ ভাষাসৈনিক।