বিভাগ - খেলাধুলা

দেশে ফিরল পদকজয়ী দল : বিমানবন্দরে সংবর্ধনা

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: ১৬ তম আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডে (আইজেএসও)-তে ছয় পদকজয়ী বাংলাদেশ দল দেশে ফিরেছে। বৃহস্পতিবার বিকেল পাঁচটায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায় দলটি। বিমানবন্দরে বাংলাদেশ জুনিয়ির সায়েন্স অলিম্পিয়াডের (বিডিজেএসও) আয়োজকদের পক্ষ থেকে দলকে সংবর্ধনা দেয়া হয় ও ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন পদকজয়ী ছয় শিক্ষার্থীর অভিভাবিকেরাও। উল্ল্যেখ্য, এবছর বাংলাদেশ চারটি রৌপ্য ও দুইটি ব্রোঞ্জপদক অর্জন করেছে। ৭০টি দেশের অংশগ্রহণে অনুর্ধ্ব-১৬ বয়সীদের আন্তর্জাতিক এই অলিম্পিয়াডটি কাতারের রাজধানী দোহায় ৩-১১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। এতে ৬ সদস্যের বাংলাদেশ দল অংশ নিয়ে সবাইই পদক জয়ের গৌরব অর্জন করে। ১১ ডিসেম্বর দুপুরে দোহায় কাতার ন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে এক জমকালো অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে পদক তুলে দেয়া হয়।

বাংলাদেশের পক্ষে রৌপ্যপদক জয় করেন বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজের অভিষেক মজুমদার সন্তু, বরিশাল ক্যাডেট কলেজের মুহতাসিন আল ক্বাফি, মুমিনুন্নিসা সরকারি মহিলা কলেজের কাজী তাসফিয়া জাহিন, ব্লু-বার্ড স্কুল এন্ড কলেজের জাকিয়া তাজনূর চৌধুরী দিয়া। এছাড়া ব্রোঞ্জপদক অর্জন করে ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের জুহায়ের মাহদিউল আলম আশফি এবং গ্রীন ফিল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের আহমেদ আল-জুবায়ের আনাম।

বাংলাদেশ দল ঢাকা পৌঁছলে অভিভাবক-প্রতিযোগীদের নিয়ে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। উচ্ছ্বসিত অভিভাবকেরা তাদের সন্তানদেরকে জড়িয়ে ধরে বরণ করে নেন। ফুল দিয়ে শিক্ষার্থী ও দলনেতাদেরকে অভিনন্দিত করেন বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির প্রশিক্ষক ও স্বেচ্ছাসেবকেরা। রৌপ্যপদকজয়ী মুহতাসিন আল কাফি বলেন, “ল্যাবে ভালো করার কারণে আমাদের এই সাফল্য অর্জন করা সম্ভব হয়েছে। এবছর ম্যাসল্যাবে আমরা দীর্ঘ প্রশিক্ষণ পেয়েছি।” ব্রোঞ্জপদকজয়ী আহমেদ আল-জুবায়ের আল আনাম এর বাবা বলেন, “সন্তানদের এই অর্জনে বিডিজেএসও এর প্রশিক্ষকদের অবদান অনেক। আমি অভিভাবকদের পক্ষ থেকে বিডিজেএসও-এর আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই”। কাতারে ছয় সদস্যের বাংলাদেশ দলের সঙ্গে বাংলাদেশের কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক ফারসীম মান্নান মোহাম্মদী ছাড়াও ছিলেন দলনেতা ফারহানা মান্নান ও বিডিজেএসও কো-অর্ডিনেটর মাহমুদ মীম।

মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য আয়োজিত এই আন্তর্জাতিক অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ দল পঞ্চমবারের মত অংশ নিয়েছে। ৭০ দেশের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন ও জীববিজ্ঞানের উপর প্রতিযোগিতা করে এই গৌরব অর্জন করে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা। গত ৩ ডিসেম্বর শুরু হওয়া এই অলিম্পিয়াডে শিক্ষার্থীরা এমসিকিউ, থিওরি ও ব্যবহারিক অংশের পরীক্ষা দেয়। উল্লেখ্য, এর আগে চার বছরে বাংলাদেশ দল ৬ টি রৌপ্য ও ১১ টি ব্রোঞ্জ পদক অর্জন করেছিলো।

ছয় সদস্যের বাংলাদেশ দলের এ বাছাইপর্ব শুরু হয় জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক ৫ম বাংলাদেশ জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের (বিডিজেএসও) আঞ্চলিক পর্বের মধ্য দিয়ে। ৮ টি আঞ্চলি​ক পর্ব, ৭ টি স্কুল অলিম্পিয়াড ও একটি ই-অলিম্পিয়াডে অংশ নেয় প্রায় ৯ হাজার শিক্ষার্থী। এদের মধ্য হতে বিজয়ী ৬০০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয় ৫ম বাংলাদেশ জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের জাতীয় পর্বে। জাতীয় পর্বে বিজয়ী হয় ৫২ জনকে নিয়ে ১১-১৩ সেপ্টেম্বর তিন দিনব্যাপী আয়োজন করা হয় ৫ম বিডিজেএসও ক্যাম্প। ক্যাম্পের ফলাফল বিবেচনা করে বাছাই করা ১৩ জন শিক্ষার্থীদের নিয়ে ১৪-১৭ সেপ্টেম্বর আয়োজন করা হয় বিডিজেএসও এক্সটেনশন ক্যাম্প। এরপর ক্যাম্পে অনুষ্ঠিত টিম সিলেকশন টেস্টের ফলাফল ও তাদের অলিম্পিয়াডের পারফর্মেন্স বিবেচনা করে ঘোষণা করা হয় ছয় সদস্যের বাংলাদেশ দল।

সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর পর্যন্ত কয়েকটি ধাপে প্রশিক্ষণ দেয়া হয় বাংলাদেশ দলকে। ভলান্টিয়ারস এসোসিয়েশন ফর বাংলাদেশ ও আপন উদ্যোগ ফাউন্ডেশনের ডরমিটরিতে তিন ধাপে মোট ২১ দিনের আবাসিক ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া মাকসুদুল আলম বিজ্ঞান ল্যাবরেটরি (ম্যাসল্যাব)-এ আয়োজিত হয় তিন দফায় ১৫ দিনের অনাবাসিক ক্যাম্প। ল্যাবরেটরি ক্লাসগুলো অনুষ্ঠিত হয় ম্যাসল্যাবে। এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচীতে ১০০ ঘণ্টার বেশি থিওরি ক্লাস, ৫০ ঘণ্টার বেশি ল্যাবরেটরি ক্লাস ও প্রায় ৭০ ঘণ্টার প্রশ্ন সমাধান ক্লাসে অংশ নেয় ১৬তম আইজেএসও-তে অংশ নিতে যাওয়া বাংলাদেশ দলের ছয় সদস্য। ক্লাসগুলি পরিচালনা করেন বিডিজেএসও এর স্বেচ্ছাসেবকেরা ।

উল্লেখ্য, আল আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষকতায় আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডের জন্য বাংলাদেশ দল নির্বাচন করে যৌথভাবে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি ও বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশন। অনুষ্ঠানটির সহযোগী হিসেবে রয়েছে প্রথম আলো। ম্যাগাজিন পার্টনার হিসেবে আছে কিশোর আলো ও বিজ্ঞানচিন্তা। টেলিভিশন পার্টনার হিসেবে নাগরিক টিভি ও নলেজ পার্টনার হিসেবে আছে ম্যাসল্যাব, ইন্টারনেট পার্টনার অ্যাম্বার আইটি এবং রেডিও পার্টনার হিসেবে ছিল ঢাকা এফ এম। বিশেষ সহযোগী হিসেবে ছিল ভলান্টিয়ার্স এ্যাসোসিয়েশন ফর বাংলাদেশ।