নৌকার প্রচারকারীদের ওপরে হামলা, নির্বাচন বানচালের ইঙ্গিত: আওয়ামী লীগ

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মেয়ের ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের পক্ষে প্রচারকারীদের ওপরে হামলা নির্বাচন বানচালের একটি ইঙ্গিত বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণের সময় যুবলীগের নেতাকর্মীদের ওপরে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর নেতৃত্বে একটি মিছিল এসে আমাদেরকে কর্মীদের ওপর এ হামলা করে। আইন-শৃঙ্খলা কর্তৃপক্ষ বলেছে ওখানের বিএনপি’র নির্বাচনীয় প্রচারণার কোনো শিডিউল ছিল না। এটা হামলা তাদের সুপরিকল্পিত। এটা নির্বাচন বানচালের একটি ইঙ্গিত।’

দলের পক্ষে রবিবার (২৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। আমির হোসেন আমু বলেন, ‘সিটি নির্বাচনকে সারা দেশের মানুষ উৎসবমুখর পরিবেশের লক্ষ্য করছে। বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ঘোষণা দেয়ায় আমি তাদেরকে স্বাগত জানিয়েছিলাম। বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ধারা থাকবে, সুষ্টু ভাবে চলবে। এটাই আমাদের আশা আকাঙ্ক্ষা ছিল।’

আওয়ামী লীগে উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য বলেন, ‘নির্বাচন নিয়ে যখন তারা (বিএনপি) কথাবার্তা শুরু করল, তখন তারা স্বপ্ন দেখা শুরু করল নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে না। তারপরে বলা শুরু করল নির্বাচনে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ হতে পারে। এমনকি তারা চ্যালেঞ্জ দিয়ে ঘোষণা দিলো ‘শেষ পর্যন্ত দেখে নেবে’। এই সমস্ত কথা বার্তা বলার মধ্য দিয়ে আমরা আচঁ করতে পারছিলাম; তারা সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অংশগ্রহণ করবে নাকি নির্বাচন বানচাল করবে? বারবার এসব কথা তারা বলে আসছে আজকে আবার তারা (হামলা) শুরু করলো। ঘটনাস্থলে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়েছে। সেখানে আমাদের নেতাকর্মীরা আহত হয়েছে।’

কয়জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি আছে জানিয়ে সাবেক শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এ হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানাই। আমরা মনে করি— সারা দেশের মানুষের আকাঙ্ক্ষা বাস্তবায়নের জন্য তাদের শুভবুদ্ধির উদয় হবে। এখনে তারা নির্বাচনে সক্রিয় ভাবে অংশগ্রহণ করবে। নির্বাচন বানচাল করার জন্য নয়; নির্বাচনকে সুষ্ঠু করার জন্য অংশগ্রহণ করুক— সেটাই আমরা চাই। আপনারা লক্ষ্য করেছেন— বিগত দিনে বিএনপি নির্বাচন বয়কট অথবা নির্বাচন বানচাল করার জন্য পেট্রোল বোমা মারাসহ ভিন্ন রকম কাজ করেছে। আজকে তারই একটা অংশ তারা (বিএনপি) নতুনভাবে শুরু করেছে। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। ’

আমু বলেন, ‘এই ঘটনায় যারা সত্যিকারের দায়ী তাদের ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন বিধি-বিধান অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করুক— এটাই আমাদের দাবি। জনগণ যাতে সুষ্ঠু ভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে তার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও সতর্ক হতে হবে। এবং কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।’

এক প্রশ্নের জবাবে যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমাদের পক্ষ থেকে থানায় মামলা করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের কাছে এ ব্যাপারে প্রতিবাদ দেয়া হবে। নির্বাচন কমিশন যেটা ভালো মনে করে সেটা করে।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, উপ-দফতর সম্পাদক সায়েম খান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফি, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাঈনুল হোসেন খান লিখিলসহ অনেক।

error0