বিভাগ - ধর্ম

পবিত্র শবে বরাত আজ, ঘরে বসে ইবাদতের আহ্বান

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: আজ বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) দিবাগত রাতে পবিত্র লাইলাতুল বরাত বা শবে বরাত। এবারও রাতটি যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ পরিবেশে পালিত হবে। তবে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় যার যার ঘরে নামাজ পড়তে হবে মুসল্লিদের। গত ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় ৯ এপ্রিল লাইলাতুল বরাত পালনের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

তবে করোনাভাইরাসের কারণে এবার নিজ নিজ বাসায় পবিত্র শবে বরাতের ইবাদত যথাযথ মর্যাদায় আদায় করার জন্য সবাইকে বিশেষভাবে আহ্বান জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। এ ছাড়া ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় মসজিদে না গিয়ে বাসায় নামাজ পড়তে বলা হয়েছে।

বছরে পাঁচটি পুণ্যময় রজনীর মধ্যে শবে বরাত অন্যতম একটি। শবে বরাতের শাব্দিক অর্থ হচ্ছে মুক্তির রজনী। এই রাতকে বলা হয় লাইলাতুল বরাত বা মুক্তির রজনী। নফল ইবাদতের মাধ্যমে মুসল্লিরা এ রাতে আল্লাহর সান্নিধ্য প্রার্থনা করেন।

এছাড়া পবিত্র শবে বরাতের রাতে মসজিদে না গিয়ে নিজ নিজ ঘরে একাকি ইবাদত করার জন্য দেশবাসী প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমির আহমদ শফী। বুধবার (৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃ‌তিতে তি‌নি এ আহ্বান জানান।

বিবৃতিতে আহমদ শফী বলেন, ‘ম‌হিমা‌ন্বিত রজনী হি‌সে‌বে মুস‌লিম সমা‌জে শ‌বে বরা‌তের গুরুত্ব অনেক। এ রা‌তে মানুষ ইবাদত ব‌ন্দেগী‌তে সময় পার করেন এবং ‌দি‌নে রোজা রা‌খেন। আল্লাহর দরবা‌রে ক্ষমা প্রার্থনা ক‌রে, কান্নাকা‌টি ক‌রে শ‌বে বরাত পালন করেন।’

‘কিন্তু ক‌রোনাভাইরাসের ক্ষ‌তি থে‌কে বাঁচ‌তে বর্তমা‌নে অ‌নেক জেলা-উপ‌জেলায় লকডাউন ঘোষণা করা হ‌য়ে‌ছে। এম‌নকি মস‌জি‌দে পাঁচ ওয়াক্ত নামা‌জের জামা‌তে সীমিত উপ‌স্থি‌তির পরামর্শ দি‌য়ে‌ছেন দে‌শের শীর্ষ আ‌লেম সমাজ। এই প‌রি‌স্থি‌তি‌তে একাকিভা‌বে শ‌বে বরা‌তের যাবতীয় আমল ঘ‌রে করা উচিত। আর সুন্নাহর তাকাজাও এটাই।’

শবে বরাতের রাতে বিশ্বব্যাপী ছ‌ড়ি‌য়ে পড়া ক‌রোনাসহ সকল রোগ থে‌কে মুক্তির জন্য বি‌শেষ দোয়ার আহ্বান জানিয়ে শফী বলেন, ‘শ‌বে বরা‌তে একাকি ইবাদত করা রাসূলের সহীহ হাদীস ও সাহাবী‌দের আমল থে‌কে প্রমা‌ণিত। তাই বেশি বে‌শি কুরআন তেলাওয়াত করুন। নি‌জে‌দের কৃত গুনাহ থে‌কে তওবা করুন। মহান আল্লাহর দরবা‌রে কায়ম‌নোবাক্যে ক্ষমা প্রার্থনা করুন। যিকির করুন। দান-সদকা করুন। কবর জেয়ারত করুন। প‌রিবার প‌রিজন‌কে দ্বী‌নি কা‌জে বে‌শি বে‌শি সম্পৃক্ত করুন।’

হেফাজত আমির আরও বলেন, ‘শ‌বে বরাতকে কেন্দ্র ক‌রে আমা‌দের দে‌শে বেশ কিছু কুসংস্কার চালু হ‌য়ে‌ছে। অনে‌কে হালুয়া রু‌টির ব্যবস্থা ও মস‌জিদ আলোকসজ্জা করে থা‌কেন। নি‌র্দিষ্ট প‌রিমা‌ণ রাকা‌তে জামাত সহকা‌রে নামাজ প‌ড়ে থা‌কেন। এসব বিদআত কাজ। বাড়াবা‌ড়িতে না গি‌য়ে ‌নিজ নিজ ঘ‌রে একাকি ইবাদ‌তের মাধ্য‌মে শ‌বে বরাত পালন করা উ‌চিত।’