বিভাগ - সারাদেশ

পাইকগাছার পাতড়াবুনিয়ার ৩ কিলোমিটার রাস্তা আজও পাকা হয়নি

প্রকাশিত

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ঃ পাইকগাছায় গড়ইখালী ইউনিয়নের মিনহাজ নদীর তীরে অবস্থিত পাতড়াবুনিয়ার জনবহুল ৩ কিলোমিটারের অধীক রাস্তাটি আংশিক ইটের সোলিং হলেও অধিকাংশ রয়ে গেছে কাঁচা। জনপ্রতিনিধিদের কাছে বার বার লিখিত অভিযোগ করলেও তা আমলে নেয়নি কেউ! এদিকে, মিনহাজ নদীর ঢেউয়ে রাস্তাটি ভাঙ্গন ধরেছে। এলাকাবাসী বাঁশ-খুঁটি দিয়ে সংস্কার করলেও তা টিকিয়ে রাখা কঠিন হয়ে পড়েছে। অপরদিকে, রাস্তাটি ভাঙ্গনে সরু হওয়ায় ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কমলমতি শিক্ষার্থীদের যাতায়াতে অনুপযোগী হয়ে পড়ে। শুষ্ক মৌসুমে ভাঙ্গন কবলিত এলাকা সংস্কার ও পাকা করণ না করলে বর্ষা মৌসুমে দুর্ভোগ পোহাতে হবে এলাকার জনসাধারণের। এলাকাবাসী পাকা করণের জন্য সংসদ সদস্য সহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার গড়ইখালী ইউনিয়নের মধ্য দিয়ে বহমান মিনহাজ নদী। তার পাশ দিয়ে অবস্থিত পাতড়াবুনিয়া রাস্তা। বগুলারচক মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে বিশ্বাস বাড়ী পর্যন্ত ৩ কিলোমিটারের অধিক রাস্তা আজও পর্যন্ত পাকা করণের কোন উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এ এলাকায় ১টি দাখিল মাদরাসা, ১টি আলিম মাদরাসা, ১টি হাফিজিয়া মাদরাসা, ১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ১টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এছাড়া রয়েছে ২টি হাট-বাজার, কয়েকটি মসজিদ, মন্দির। একমাত্র ব্যস্ততম এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার লোক যাতায়াত করে। চলাচল করে সাইকেল, ভ্যান ও মটরসাইকেল। পাশ দিয়ে বহনমান মিনহাজ নদীর ভাঙ্গনে রাস্তাটি একদিকে যেমন সংকীর্ণ, তেমনি ভাঙ্গনের কারণে রাস্তাটি বিলিন হতে চলেছে। একটু বর্ষা হলেই রাস্তা দিয়ে চলাচল একেবারেই অনুপযোগী হয়ে পড়ে। ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। দুর-দুরন্তে যাতায়াতের মাধ্যম হিসেবে নদী পথই বেছে নেয় এলাকাবাসী। গড়ইখালী ইউনিয়নের এক প্রান্ত থেকে চাঁদখালীর চৌমুহনী বাজার পর্যন্ত রাস্তাটি বার বার পাকা করণের জন্য কর্তৃপক্ষকে বিভিন্নভাবে অবহিত করা হয়েছে। বিভিন্ন এলাকার ছোট-খাটো রাস্তা ইট বা পিচ দিয়ে পাকা করণ করা হলেও অতি গুরুত্বপূর্ণ দীর্ঘ এ সড়কটি পাকা না করার কারণ খুঁজে পায়নি এলাকাবাসী। শুষ্ক মৌসুমে রাস্তাটি মেরামত বা পাকা করণ না হলে বর্ষা মৌষুমে রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়বে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বিশ্বাস জানান, সাবেক দুই এমপি ও বর্তমান এমপির কাছে রাস্তাটির ব্যাপারে প্রকল্প দেয়া হয়েছে। কিন্তু কোন কাজ হয়নি। বর্তমান এমপি আক্তারুজ্জামান বাবু আশ্বাস দিয়েছেন অতি দ্রুত রাস্তাটি যাতে হয় সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবেন। তিনি আরো বলেন, অতিসম্প্রতি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব শেখ ইউসুফ হারুন পাইকগাছায় আসলে তার কাছে লিখিতভাবে বিষয়টি জানানো হয়েছে।