পাইকগাছায় শ্বাসরোধ করে বিধবাকে হত্যা

প্রকাশিত

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ঃ পাইকগাছায় আলেয়া বেগম (৪৫) নামে এক বিধবাকে হত্যা করা হয়েছে। রোববার গভীর রাতে কে বা কারা হাত-পা ও মুখ বেঁধে হত্যা করা হয়েছে বলে থানা পুলিশ ও স্থানীয়রা জানিয়েছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার রাড়–লী ইউনিয়নের কলমিবুনিয়া গুচ্ছ গ্রামে। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। মৃত আলেয়া রাড়–লী আশ্রয়ণ প্রকল্পের মৃত শাজাহানের স্ত্রী।

নিহতের ছেলে আলমগীর জানায়, ঘটনার দিন রাতে ঘরের পিছনের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে তার মায়ের মুখ-মন্ডল ওড়না দিয়ে বেঁধে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এ ঘটনার সাথে উপজেলার শ্রীকন্ঠপুর গ্রামের আরশাদ বিশ্বাস, তার সহযোগী হাফিজুর ও আমান সরদার জড়িত আছে বলে জানায়। আরশাদ বিশ্বাসের চিংড়ি ঘেরে দীর্ঘদিন আলমগীর ঘেরের কর্মচারী হিসেবে ছিল। চলে আসার পর টাকা-পয়সা লেনদেন নিয়ে পরস্পর কয়েকটি মামলায় জড়িয়ে পড়ে। উক্ত মামলার কারণে আরশাদ বিশ্বাস বিভিন্ন সময় তার মা ও তাকে নানাভাবে হুমকি দেয় বলে থানায় সাধারণ ডায়েরীও করা হয়।

থানা পুলিশ সুত্রে জানাযায়, সোমবার খুব সকালে প্রতিবেশীরা বসত ঘরের বারান্দায় গলায় ওড়না পেচানো এবং মুখের ওপর কম্বল চাপা অবস্থায় আলেয়া বেগমের মৃতদেহ দেখতে পেয়ে থানা পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে ওসি মোঃ এমদাদুল হক শেখের নেতৃত্বে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করেন। লাশের সুরত হাল রিপোর্ট তৈরী করে পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিল। এ ব্যাপারে আরশাদ আলী বিশ্বাস জানান, আমার কাছে চারিদিক থেকে ফোন আসছে, পারলে আমার নামে মামলা করিয়ে দেন।

এব্যাপারে থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ জানান, আলেয়া বেগমের গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক ধারনা করছি। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর তাকে কিভাবে হত্যা করা হয়েছে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে। এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরী হয়েছে তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ মামলা করেননি বলে থানা পুলিশ জানিয়েছেন।

error0