বিভাগ - অর্থনীতি

ফের কেন বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হচ্ছে, ব্যাখ্যা চেয়েছে বিএনপি

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: গ্যাসের দাম বাড়লেও বিদ্যুতের দাম বাড়বে না- সরকারের এমন বক্তব্যের পরও ফের কেন দাম বাড়ানো হচ্ছে তার ব্যাখ্যা চেয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) রাজধানীর ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) অডিটোরিয়ামে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) প্রস্তাবিত পাইকারি বিদ্যুতে দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর শুনানিতে তিনি এ ব্যাখ্যা জানতে চান। শুনানিতে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম, সদস্য মিজানুর রহমান, আব্দুল আজিজ, রহমান মুরশেদ ও মাহমুদউল হক ভুইয়া উপস্থিত ছিলেন।

শুনানিতে সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল কমিশনকে মনে করিয়ে দেন, ২০১৮ সালে গ্যাসের দাম বাড়ানোর শুনানিতে কমিশন বলেছিল- গ্যাসের দাম বাড়লেও বিদ্যুতের দাম বাড়বে না। তাহলে এখন কেন বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর শুনানি হচ্ছে। এই প্রশ্নের জবাবে কমিশনের সদস্য মিজানুর রহমান বলেন, ‘এ বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত দাম না বাড়ানোর কথা বলা হয়েছিল, তা তো বাড়েনি। গ্যাসের দাম বাড়ানোর ক্ষেত্রে এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) আমদানির কথা বলা হয়েছিল। এলএনজি আসায় বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ কমেছে।’

এর পরিপ্রেক্ষিতে আলাল বলেন, ‘জেলখানায় না গেলে আবার শুনানিতে এসে এসব কথা মনে করিয়ে দেবো।’ তিনি কুইক রেন্টালের মেয়াদ নিয়ে প্রশ্ন করলে পিডিবির পক্ষ থেকে জানানো হয়, কুইক রেন্টালের একেকটির মেয়াদ একেক সময়ের। ফলে একই সঙ্গে সব বন্ধ হবে না। কিন্তু ধীরে ধীরে বন্ধ করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বেশ কিছু কেন্দ্র বন্ধ হয়েছে। আর এই কেন্দ্রগুলো নবায়ন করা হচ্ছে না। এ সময় আলাল প্রশ্ন করেন, তাহলে কি অনন্তকাল ধরে এসব চুক্তি চলতে থাকবে?

প্রসঙ্গত, দুপুর ১ টা পর্যন্ত পিডিবি প্রস্তাবিত পাইকারি মূল্যহার পরিবর্তনের ওপর গণশুনানি হয়। এরপর দুপুর ২ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশের (পিজিসিবি) প্রস্তাবিত সঞ্চালন মূল্যহার পরিবর্তন নিয়ে শুনানি হবে। এরপর ১ ডিসেম্বর রবিবার থেকে শুরু হবে গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানোর জন্য বিতরণ কোম্পানিগুলোর প্রস্তাবিত দামের ওপর শুনানি। প্রথমদিন ১ ডিসেম্বর সকাল ১০ টায় শুরু হবে পিডিবির গ্রাহক পর্যায়ের মূল্যহার পরিবর্তনের ওপর শুনানি। একই দিন দুপুর ২ টায় শুরু হবে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (নেসকো) শুনানি। ২ ডিসেম্বর সকালে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ডিপিডিসি) এবং দুপুরে ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (ডেসকো) শুনানি। এরপর ৩ ডিসেম্বর সকালে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) এবং দুপুরে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ওজোপাডিকো) গ্রাহক পর্যায়ের মূল্যহার পরিবর্তনের ওপর গণশুনানি অনুষ্ঠিত হবে।