বিভাগ - অর্থনীতি

বিমানে করে পেঁয়াজ আসছে না আজ, আরও একদিন লাগবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: কার্গো বিমানে করে মিশর, তুরস্ক ও চীন থেকে পেঁয়াজ আসার কথা থাকলেও তা নির্ধারিত সময়ে আসছে না। পেঁয়াজ দেশে আসতে আরও ২৪ ঘণ্টা, অর্থাৎ একদিন অপেক্ষা করতে হবে বলে জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, কার্গো বিমানযোগে মিশর, তুরস্ক ও চীন থেকে পেঁয়াজ আজ (মঙ্গলবার) পৌঁছানোর কথা থাকলেও তা আসছে না। বুধবার (২০ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৬টায় পেঁয়াজের প্রথম এই চালান দেশে আসবে।

মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী এ তথ্য জানান। আজ রাতে কার্গো বিমানে করে পেঁয়াজের ওই চালান আসার কথা ছিল। পেঁয়াজ নিয়ে বিপদে রয়েছেন উল্লেখ করে টিপু মুনশি বলেন, বাজারে পেঁয়াজের দাম অনেকটাই কমেছে। তবে আমদানি করা পেঁয়াজ লোডিংয়ে সমস্যা হওয়ায় ২৪ ঘণ্টা পিছিয়েছে।

মন্ত্রী জানান, ২০ নভেম্বর পেঁয়াজবাহী প্লেন দেশে পৌছাঁলেই চার থেকে পাঁচশ ট্রাকে করে সারাদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। এই পেঁয়াজ টিসিবির মাধ্যমে বিক্রি করা হবে। এ ক্ষেত্রে সরকার ভর্তুকি দেবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দুয়েকদিনের মধ্যে পেঁয়াজের দাম আরও কমবে। এসময় তিনি বিভিন্ন বাজারে পেঁয়াজের দাম তুলে ধরে বলেন, পাবনা ছাড়া দেশের সব জায়গায় ১২০ থেকে ১৪০ টাকার মধ্যে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে ঢাকার যাত্রাবাড়ী বাজারে দেশি পেঁয়াজের পাইকারি দাম ১২০ টাকা। অন্যদিকে খুচরা বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়। এছাড়া মিশরের পেঁয়াজের পাইকারি দাম ১২০ টাকা, খুচরা দাম ১২৫ টাকা। কারওয়ান বাজারে মিয়ানমারের পেঁয়াজের পাইকারি দাম ১২০ টাকা, খুচরা বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায়। আগামী ২০ থেকে ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন দেশ থেকে বিমানযোগে পেঁয়াজ আসবে বলে জানান মন্ত্রী।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, গত ১৩ সেপ্টেম্বর ভারত পেঁয়াজের রফতানি মূল্য বাড়িয়ে দেয়। আমরা ধারণা করেছিলাম, এটা সাময়িক। তবে ২৯ সেপ্টেম্বর তারা রফতানি পুরোপুরি বন্ধ করে দিলো। সেসময় তাদের বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছিলাম। আমরা বলেছিলাম, বন্ধ করে দিলে সমস্যায় পড়ব। সেসময় ভারতের বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, ২৪ অক্টোবর তারা ফের পেঁয়াজ রফতানি শুরু করবেন। কিন্তু তারা সেটা করেননি।

ঈদুল আজহার সময় পশুর চামড়া, পরবর্তী সময়ে চাল ও সর্বশেষ পেঁয়াজের দাম বাড়ানোর ক্ষেত্রে বাণিজ্যমন্ত্রীর অনভিজ্ঞতার কোনোভাবে দায়ী কি না— সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে টিপু মুনশি বলেন, ভারত যে এভাবে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেবে, সেটা তাদের সিদ্ধান্ত। এর সঙ্গে আমার অনভিজ্ঞতার কোনো সম্পর্ক নেই। অনেক সময় অনেক কিছু আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকে না। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে যে ক্ষতি হলো, সেটাও তো আমার অনভিজ্ঞতার জন্য নয়। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে অসাধু ব্যবসায়ীরা সমস্যা তৈরি করে। আমরা সেদিকেও কঠোরভাবে নজর রাখছি।

এর আগে, দেশে পেঁয়াজের দাম বাড়তে বাড়তে প্রতিকেজি আড়াইশ টাকা পেরিয়ে গেলে সরকার বড় বড় শিল্প গ্রুপগুলোকে পেঁয়াজ আমদানির নির্দেশ দেয়। বাণিজ্য সচিব ড. মোহাম্মদ জাফর উদ্দীন সোমবার (১৮ নভেম্বর) জানান, সেই নির্দেশ অনুযায়ী এস আলম গ্রুপ পেঁয়াজ আমদানি করছে। আজ মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় পৌঁছানোর কথা ছিল পেঁয়াজবাহী কার্গো বিমানের। তবে মন্ত্রী জানালেন, সেই পেঁয়াজের জন্য আরও একদিন অপেক্ষা করতে হবে।