ব্যাংক গ্রাহকদের অর্থ হাতিয়ে নেওয়া প্রতারক চক্রের ৩ সদস্য আটক

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: অনলাইনে জালিয়াতির মাধ্যমে ব্যাংক গ্রাহকদের অর্থ হাতিয়ে নেওয়া প্রতারক চক্রের তিন সদস্যকে আটক করেছে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগ। আটকরা হলেন- মামুন তালুকদার, রাজু ফারাজী ও মিঠু মৃধা। রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, কক্সবাজার ও ফরিদপুরের ভাঙ্গা এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

রোববার (২২ মার্চ) সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) নাজমুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গত ২০ মার্চ ভোরে কক্সবাজারের একটি হোটেল থেকে প্রতারক চক্রের প্রধান মামুন তালুকদারকে আটক করা হয়। একই দিন সন্ধ্যায় রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে রাজু ও পরদিন ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে মিঠুকে আটক করা হয়।

এ সময়ে তাদের কাছ থেকে ব্যাংকিং প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত একটি প্রাইভেটকার, সাতটি বিশেষ অ্যাপসযুক্ত মোবাইল ফোন, বেশকিছু ভুয়া রেজিস্ট্রেশন করা সিমকার্ড, একাধিক ব্যাংকের কার্ড, মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট ও স্ক্রিল অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়।

প্রতারণার ধরন প্রসঙ্গে এডিসি নাজমুল বলেন, এ চক্রের সদস্যরা অভিনব কায়দায় বিভিন্ন ডায়লার অ্যাপস দিয়ে কয়েকটি ব্যাংকের হেড অফিসের কার্ড ডিভিশনের মোবাইল নম্বর স্পুফিং করে শাখা-ম্যানেজারদের কল দিয়ে নতুন কার্ড ব্যবহারকারীদের নাম, কার্ড নম্বর ও মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করতেন। এরপর তারা ব্যাংকের কাস্টমার কেয়ার এজেন্ট সেজে গ্রাহকদের কল করে নতুন কার্ডটি অ্যাকটিভ করা বা অন্য কিছু ফিক্স করার জন্য কল করেছেন বলে জানাতেন।

কৌশলে স্পুফিং মোবাইল কলের মাধ্যমেই গ্রাহকদের কার্ডের মেয়াদ, গোপন কোড ও প্রয়োজন সাপেক্ষে মোবাইলের ওটিপি সংগ্রহ করতেন। এরপর গ্রাহকদের কার্ড থেকে টাকা/ডলার প্রতারকদের লন্ডন ভিত্তিক ই-কমার্স অ্যাপ স্ক্রিল অ্যাকাউন্ট, মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করে নিতেন। যা পরবর্তীতে এটিএম বুথ, মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্ট থেকে ক্যাশ আউট করে নিতো চক্রটি।

দেশের একাধিক শীর্ষ স্থানীয় ব্যাংকের শতাধিক গ্রাহকদের অর্ধ কোটি টাকা চুরি হওয়ায় কয়েকটি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অভিযোগ জানায়। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে প্রতারক চক্রটিকে শনাক্ত করে তিনজনকে আটক করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা অপরাধের কথা স্বীকার করেছেন। আটকদের ধানমন্ডি থানায় দায়ের করা একটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান এডিসি নাজমুল।