ভয়াবহ অবস্থা চীনে, করোনা ভাইরাসে মৃত বেড়ে ২১৩

প্রকাশিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে চীনে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। এই ভাইরাসে নতুনভাবে ঝরে গেলো আরও ৪২টি প্রাণ। সবমিলিয়ে দেশটির মূল ভূখণ্ডেই মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ২১৩ জনে। একইসঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে নতুন করে ভাইরাসটিতে আক্রান্তের সংখ্যাও, যা প্রায় নয় হাজারে ছাড়িয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো এ তথ্য জানিয়েছে। হুবেই প্রদেশ স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ বলছে, বৃহস্পতিবার আরও ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে আর ভাইরাসটির কেন্দ্রস্থল উহান প্রদেশে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০৪ জনে।

এদিকে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাতে বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসটির মোকাবিলায় বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় ‘হু’র মহাপরিচালক অ্যাডানোম গ্রেবিয়াসিস এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন।

সংস্থাটির প্রধান বলেন, এ ঘোষণার মাধ্যমে দুর্বল স্বাস্থ্যসেবার দেশগুলোকে সুরক্ষা দেওয়া এবং তাদের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া হবে। তবে, চীনে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া শুরু করলেও এক সপ্তাহ আগেও গ্লোবাল ইমার্জেন্সি ঘোষণা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলো হু।

হু’র কর্মকর্তারা বলছেন, নতুন করে চীনে হাজার হাজার মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কয়েকটি দেশে একে একে করে এই রোগ ছড়িয়ে পড়ছে। আমরা এই বিষয়ে স্পষ্ট উদাহরণ দেখেছি। ফলে সবকিছু পর্যালোচনা করে সংস্থাটির বিশেষজ্ঞ কমিটি জরুরি অবস্থা ঘোষণা করলো।

হু ডিজি বলেন, চীনে যা ঘটছে এই কারণে নয়, বরং অন্য দেশে যা ঘটছে সেই কারণেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উদ্বেগের বিষয় হলো দুর্বল স্বাস্থ্যব্যবস্থার দেশগুলোতে ছড়িয়ে পড়ছে ভাইরাসটি।

চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে উৎপত্তি হওয়া করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব অন্য দেশগুলোতেও দেখা যাচ্ছে। ইতোমধ্যে চীনের সবগুলো প্রদেশ ছাড়াও অন্তত ২০টি দেশে এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে চীনে এ পর্যন্ত ২১৩ জন মানুষ মারা গেছে। এ রোগ মানুষের মাধ্যমেই দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে চীন থেকে বাংলাদেশে আসা যাত্রীদের পরীক্ষা করা হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। এদিকে প্রায় ৫শ জন বাংলাদেশি চীনে আটকা পড়েছে বলে জানা গেছে।