হবিগঞ্জে পিকআপ চালক হত্যা আদালতে ঘাতকদের লোমহর্ষক বর্ণনা

প্রকাশিত

মঈনুল হাসান রতন হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জে পিকআপ ভ্যান ছিনতাই করতে চালক সাগর সরকারকে হত্যা করেছে ঘাতকরা। পিকআপ ভ্যানটি ছিনতাইয়ের পর ভারত সীমান্তের মাধবপুর উপজেলার মনতলা এলাকায় বিক্রির জন্য নিয়ে যায়। সেখানে গাড়িটি রেখে তারা আত্মগোপন করে। আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ তথ্য জানিয়েছে গ্রেফতারকৃত বাবুল মিয়া ও আলাউদ্দিন। বুধবার বিকেলে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে ১৬৪ ধারায় তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। জবানবন্দিতে ঘাতকরা হত্যাকান্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা দেয়।

অতিরিক্তি পুলিশ সুপার মো. রবিউল ইসলাম তাদের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে জানান, ঘটনার কয়েকদিন পূর্বে তারা মিটিং করে সাগর সরকার যে পিকআপ ভ্যানটি চালায় সেটি ছিনতাইয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৩ মে দুপুরে ঘাতক বাবুল, আলাউদ্দিন, ফারুকসহ ৪ জন শায়েস্তাগঞ্জ রেলস্টেশনে যায়। সেখান থেকে তারা অলিপুরে চলে যায়। পরে সাগরকে বলে মাধবপুর যাবে। এক পর্যায়ে সাগর তাদেরকে মাধবপুরে নিয়ে যায়। মাধবপুর থেকে বিকেলে তারা হবিগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। এ সময় তারা কৌশলে সাগরকে সরিয়ে বাবুলকে গাড়ি চালাতে দেয়। বাবুল সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান এসে গাড়িটি থামিয়ে জোরপূর্বক সাগরকে গহিন জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে ঘাতকরা সাগরের হাত-পা বেঁধে ঠান্ডা মাথায় শ^াসরোধে হত্যা করে লাশ ফেলে রাখে। পরে ঘাতক ফারুক মিয়া গাড়িটি বিক্রির উদ্দেশ্যে মাধবপুর উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী মনতলা এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে ঘাতক ফারুকের বাড়ি। ঘটনার পর সাগরের বাবা শহরের নোয়াহাটি এলাকার বাসিন্দা প্রদীপ সরকার তার সন্ধান না পেয়ে ১৫ মে সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেন। এর প্রেক্ষিতে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যার তত্বাবধানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে সদর থানার ওসি মো. মাসুক আলী ঘটনার তদন্তে নামেন। প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে অপর পিকআপ চালক শহরের যশেরআব্দা এলাকার বাসিন্দা তাজু মিয়ার ছেলে বাবুল মিয়াকে প্রথমে আটক করা হয়। তার দেয়া তথ্যে শায়েস্তাগঞ্জের আব্দুল কাদিরের ছেলে আলাউদ্দিনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে হত্যার আদ্যোপান্ত বর্ণনা করে। তাদের দেয়া তথ্যে সোমবার বিকেলে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের গহিন বন থেকে চালক সাগরের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে মনতলা থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিনতাই করা পিকআপ ভ্যানটি উদ্ধার করা হয়েছে।