বিভাগ - সারাদেশ

যশোরে দুর্নীতির অভিযোগে প্রধান শিক্ষককে বরখাস্ত

প্রকাশিত

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ যশোরে মনিরামপুর উপজেলার মনোহরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইউনুস আলীকে অর্থ আত্মসাতসহ নানাবিধ দুর্নীতির অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সোমবার বিকালে ইউনুস আলীকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কালিপদ মন্ডল নিশ্চিত করেছেন। তবে প্রধান শিক্ষক বরখস্ত্রপত্র এখনও হাতে পাননি বলে জানান।

ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কালিপদ মন্ডল জানান, ২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি বর্তমান ম্যানেজিং কমিটি গঠনের পর চলতি বছর ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত বিদ্যালয়ের যাবতীয় আয়-ব্যয়ের হিসাব নিরীক্ষা করা হয়। বিদ্যালয়ের দুজন শিক্ষক এবং তিনজন অভিভাবক সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত কমিটি তা সম্পন্ন করেন। কিন্তু অভিযোগ করা হয় প্রধান শিক্ষক ইউনুস আলী ৬৮ হাজার ৮১৩ টাকার হিসাব প্রদানে ব্যর্থ হন। এছাড়া সরকারি বিধি অমান্য করে চলতি বছরে আন্তঃস্কুল পর্যায়ে অনুষ্ঠিত গ্রীষ্মকালীন ফুটবল প্রতিযোগিতায় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ করা থেকে বিরত রাখেন প্রধান শিক্ষক। এছাড়া পরীক্ষার খাতা অন্যদের দিয়ে মূল্যায়নসহ নানা অভিযোগে গত ১১ সেপ্টেম্বর ম্যানেজিং কমিটির সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। কিন্তু নোটিশের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় গত ৫ ডিসেম্বর বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রধান শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তিনি জানান, নানা অনিয়মসহ বিভিন্ন ঘটনায় একাধিকবার প্রধান শিক্ষককে মৌখিক এবং লিখিতভাবে অবগত করা হলেও তিনি সুধরাননি। যে কারণে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে সাময়িক বরখাস্তপত্র এখনও হাতে না পাবার কথা উল্লেখ করে প্রধান শিক্ষক ইউনুচ আলী দাবি করেন, সভাপতি কালিপদ’র কাছে ধার দেওয়া ৫০ হাজার টাকা পরিশোধের তাগিদ দেওয়ায় তিনি বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করছেন। তিনি বলেন, এ ব্যাপারে সভাপতির বিরুদ্ধে খুব শীঘ্রই উচ্চ আদালতে মামলা করা হবে। তবে কালিপদ মন্ডল ৫০ হাজার টাকা ধার নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বিকাশ চন্দ্র সরকার জানান, প্রধান শিক্ষককে বরখাস্তকরণের একটি চিঠির অনুলিপি ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সোমবার তাকে দিয়েছেন।