বিভাগ - সারাদেশ

রংপুরে নানা আয়োজনে সারথির ৪৯ তম প্রতিষ্ঠাদিবস পালিত

প্রকাশিত

কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি ঃ রংপুর সারথি একাডেমী ৪৯ তম প্রতিষ্ঠা দিবস গত শনিবার বিকালে পালন করে সাতমাথা শহীদ মিনার সংলগ্ন কার্যালয়ে। প্রতিষ্ঠা দিবসে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ রংপুর মহানগর সভাপতি সাফিউর রহমান সফি। সারথির আজীবন সদস্য আব্দুস সোবহানের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ২৮নং ওয়ার্ডের সভাপতি রায়হান আহম্মেদ মানিক, ৩০ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন আনু, চন্ডিপুর মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক নাট্যকর্মী শামসুল আলম, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক নাট্যকর্মী হালিমুর রহমান পলাশ, মোকতাদিরুল আলম ডলার, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সহ সম্পাদক মোতাহার ডালু, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ রংপুর মহানগরের সাধারণ সম্পাদক নাট্যকর্মী ইসমত আরা বন্যা প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সমন্বয় করেন সারথির প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজ। শুরুতে সারথি পরিবারের প্রয়াত শুভাকাঙ্খি ও সদস্যদের আত্বার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করেন বীরভদ্র বালাটারী জামে মসজিদের খতিব মোস্তাফিজুর রহমান। প্রধান অতিথি সারথির দীর্ঘদীনের কর্মকান্ড কাছে থেকে দেখার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আরো শাণিত হবার আহবান রাখেন। একাত্তরের পরাজিত শক্তির দোসরেরা রং বদল করে সংস্কৃতি অঙ্গনকে যাতে প্রশ্নবিদ্ধ করতে না পারে সেদিকে দৃষ্টি রাখার কথা বলেন। মুজিববর্ষকে ঘিরে সারথির গৃহীত কর্মসূচীর তিনি সফলতা কামনা করেন। ১৯৭২ সালে পূর্ব খাসবাগ এলাকায় সেবা সংমদ নামে সারথির যাত্রা শুরু। ১৯৮৪ সালে সেবা থেকে সারথি নামকরণ এবং বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সদস্যভুক্ত হয়। প্রধানত নাট্য সংগঠন হলেও স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন সামাজিক কাজে সারথি সম্পৃক্ত থেকেছে। সাতমাথা শহীদ মিনার, হাজী এমারত আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণে সারথি মূখ্য ভূমিকা পালন করে। দেশবরেণ্য সাংবাদিক মোনাজাতউদ্দিন স্মৃতি পাঠাগার পরিচালনা করছে লাইলী-জালাল ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায়। শিশু-কিশোরদের নাট্যকর্মে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে সারথি লিটল থিয়েটার পরিচালনা এবং “রংপুরের নাটক” শিরোনামে ৩ খন্ডের প্রকাশনা ছাড়াও ৬ টি প্রকাশনায় সমৃদ্ধ সারথি। দলীয় নাট্যকার সিরাজুল ইসলাম সিরাজ রচিত মঞ্চ, বেতার ও টেলিভিশনে সারথি ৫০ টির অধিক নাটকের ৪০০ টির মত প্রদর্শনী করেছে। একাধিকার জাতীয় নাট্যেৎসব এবং বিভিন্ন জেলার নাট্য উৎসবে সারথি সফলতার সাথে অংশ নেয়। সারথির কর্মীরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হৃদয়ে ধারণ করে জনশিক্ষায় সহায়ক নাটক প্রযোজনা করায় বদ্ধ পরিকর।