রাজাপুরে একই পরিবারের ৪জনকে অজ্ঞান করে লুটপাট

প্রকাশিত

মো.অহিদ সাইফুল: ঝালকাঠির রাজাপুরে একই পরিবারের ৪ জনকে চেতনানাশক ঔষুধ খাইয়ে অজ্ঞান করে নগদ টাকা ও স্বার্ণালঙ্কার লুটে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা।গত শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার মঠবাড়ি ইউনিয়নের বদরপুর গ্রামের আলহাজ্ব মোঃ জালাল উদ্দিন খান এর পাকা বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৮ বছরের এক শিশুসহ ৪ জনই রাজাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। রবিবার সকালে সহকারি পুলিশ সুপার (রাজাপুর-কাঠালিয়া) সার্কেল মোঃ সাখওয়াত হোসেন ও ঝালকাঠি পুলিশের বিশেষ একটি টিম পিবিআই ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেন।

স্বজনরা জানায়, মোঃ জালাল উদ্দিন খান তার তিন ছেলে নিয়ে একই ভবনের মধ্যে বসবাস করেন। ছেলেরা দীর্ঘদিন থেকেই ওমান প্রবাসি। ঘটনার সময় ওই ভবনে জালাল উদ্দিন (৭৫) তার স্ত্রী মোসাঃ কহিনুর বেগম (৬০), পুত্রবধু মোসাঃ মুন্নী বেগম (৩০) ও নাতি মোঃ সেইব খান (৮) ভবনেই ছিলেন। দুর্বৃত্তরা ঐ দিন কোন এক সময় ভবনের মধ্যে লুকিয়ে থাকে এবং রাতের খাবারের মধ্যে ঘুমের ঔষুধ মিশিয়ে দেয়। রাতের ঐ খাবার খেয়ে তারা সবাই ঘুমিয়ে পরেন। এ সময় দৃর্বৃত্তরা আলমিরা ওয়ারড্রফ ভেঙ্গে নগদ টাকা,স্বর্ণলঙ্কার,মোবাইল ফোনসহ ম্যুল্যবান মালামাল নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় বাহির থেকে দড়জা লক করে রেখে যায়। পুত্রবধু মুন্নী বেগম সজাগ হয়ে এ অবস্থা দেখে ডাকচিৎকার দিলে স্থানীয়রা ছুটে এসে রাজাপুর থানা পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে রাতে পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌছলে স্থানীয়রা পুলিশের সহায়তার ভবনের মধ্যে থাকা ৪ জনকে উদ্ধার করে রাজাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। তাদের মধ্যে জালাল উদ্দিন খানের অবস্থা আরো অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য গতকাল দুপুরে তাকে বরিশাল শের-এ বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাকিরা রাজাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছে।

সকলেই অচেতন থাকার কারনে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দুর্বৃত্তদের লুটে নেয়া টাকা এবং মালা মালের পরিমান জানা যায়নি। এব্যাপারে সহকারি পুলিশ সুপার (রাজাপুর-কাঠালিয়া) সার্কেল মোঃ সাখাওয়াত হোসেন জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ঘটনার তদন্ত চলছে।এর সাথে জড়িতদের আটকের প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।

error0