লকডাউনে বাড়ি-অফিসের কাজ সমন্বয় করবেন যেভাবে

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ ডেস্ক: করোনাভাইরাসের কারণে বেশিরভাগ মানুষকে গৃহবন্দী হয়ে সময় কাটাতে হচ্ছে। অনেককে আবার অফিসের কাজও করতে হচ্ছে বাড়ি থেকে। যারা অফিসের কাজ ছাড়াই বাড়িতে বন্দী হয়ে আছেন তারা অস্থির হয়ে পড়েছেন। আবার যাদের বাড়ি থেকে অফিসের কাজ চালিয়ে যেতে হচ্ছে, তারা এমন আতঙ্কময় পরিস্থিতিতে বাড়ি, পোশাকআশাক, নিজেদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার সঙ্গে সঙ্গে অফিসের কাজ করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন। ঘর ও অফিসের কাজ সমন্বয় করতে হলে এ সময় টাইম ম্যানেজমেন্টটা জরুরি। সেটা করতে হবে ঘুম থেকে ওঠার পর থেকেই।

সকাল ৬ থেকে ৭ টা : ঘুম ভাঙার পরেই চোখ, মুখ ধুয়ে হালকা ব্যায়াম করে নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে স্কিপিং, জগিং করতে পারেন। না পারলে বেশ কয়েক বার সিঁড়ি ধরে ওঠা নামা করুন। পিঠ, কোমর, হাত ও পায়ের পেশিকে যথেষ্ট কর্মক্ষম রাখার ব্যায়াম ও যোগাসন খুব জরুরি। এটি শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখতেও সাহায্য করে।

সকাল ৭টা থেকে ৯টা : খালি প্লেটে এক গ্লাস পানি করুন। এরপর ঘরগুলি ভাল ভাবে ঝাড়ু দিয়ে দিন। প্রতিদিন না পারলে একদিন পর পর ঘরের মেঝে ভালভাবে ভিজে কাপড় দিয়ে মুছে নিন। এর মধ্যে খবরের কাগজ বা ইন্টারনেটে বিভিন্ন খবরের সাইট দেখে নিতে পারেন। আপডেট থাকতে চাইলে টেলিভিশনের সকালের নিউজটাও দেখে নিতে পারেন। এসবের মধ্যে ঘুম থেকে উঠিয়ে দিন সন্তানদের। তাদের সকালের খাবারদাবার দিন। নিজেও সেরে নিন সকালের নাস্তা।

সকাল ৯টা থেকে ১০টা : কোনো বাড়িতে এখন গৃহকর্মী আসছে না। তাই নাস্তার পর রান্নাবান্নার প্রস্তুতি নিন। ছেলেমেয়েদের পড়তে বসিয়ে দিন। রান্নার পর পরই গোসল সেরে পরিষ্কার জামাকাপড় পরুন। ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ এর জন্য নিজেকে প্রস্তুত করুন।
সকাল ১০টা থেকে ১২টা : অফিসের কাজ শুরু করে করুন। এর ফাকে ছেলেমেয়ে কি করছে তার খবর নিন।
১২ টা থেকে ১ টা : অফিসে বসকে জানিয়ে এক ঘন্টার সময় নিন। এর মধ্যে নিজে খেয়ে নিন, সন্তান ও বাড়ির লোকজনকে খেতে দিন।
বেলা ১টা থেকে ৪টা : সন্তান, বাড়ির অন্যদের ঘুমোতে বা বিশ্রাম নিতে বলে আবারও অফিসের কাজে মনোযোগ দিন।
৪টা থেকে সাড়ে ৪ট : কিছুটা বিরতি দিয়ে চা খেতে পারেন। বাড়ির লোকজনদেরও হালকা কিছু খেতে দিন। বাড়িতে বারান্দা থাকলে সেখানে সন্তানদের বসতে বলতে পারেন।

সাড়ে ৪টা থেকে ৬টা : আবারও অফিসের কাজে মনোযোগ দিন।
সন্ধ্যা ৬টা থেকে ৭টা : অফিসের কাজ শেষে বাড়ির লোকজন, সন্তানদের সময় দিন।
সন্ধ্যা ৭টা থেকে ৮টা : রাতের রান্না থাকলে এ সময় সেরে নিতে পারেন। ছেলেমেয়েদের পড়তে বসিয়ে দিন। রান্না না থাকলে তাদের সময় দিন।
রাত ৮টা থেকে ৯টা : এসময় ঘর গুছিয়ে নিতে পারেন। সেই সঙ্গে টিভি বা ইন্টারনেটে দেখতে পারেন।
রাত ৯টা থেকে ১০টা : ছেলেমেয়ে ও বাড়ির প্রবীণদের রাতের খাবার দিয়ে নিজেরাও খেয়ে নিন।
রাত ১০টা থেকে ১১টা : ঘুমোনোর প্রস্তুতি নিন। ঘর গুছানোর কিছু কাজ বাকি থাকলে সেরে নিতে পারেন। পরের দিনের কাজের পরিকল্পনাও সেরে ফেলতে পারেন।

যে দিন অফিসের কাজ করতে হবে না বাড়ি থেকে
অন্যান্য দিনের মতোই দিনের প্রথমভাগের কাজ শুরু করতে পারেন। অফিসের কাজ নেই বলে একটু বেশি সময় দিন পরিবারের লোকজন ও ছেলেমেয়েদের। ঘরের কাজকর্ম গুছিয়ে নিন। এদিন দুপুরে হালকা ঘুমিয়ে নিতে পারেন। আত্মীয় ও বন্ধুবান্ধবদের খোজ নিন। নিজের পছন্দের কোনো মুভি দেখুন, বই পড়ুন। ছেলেমেয়েদের কথা শুনুন। রাত ১১টার মধ্যে ঘুমাতে যান।