শহীদ আসাদ-মতিউরের আত্মদানের মধ্য দিয়ে সূচিত হয় গণঅভ্যুত্থান : মোস্তফা

প্রকাশিত

এওয়ান নিউজ: ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের আন্দোলনের মধ্য দিয়েই আসাদের রক্তের সিঁড়ি বেয়ে শহীদ কিশোর মতিউরের আত্মদানের মধ্য দিয়ে সূচিত হয় মহান গণঅভ্যুত্থান ২৪ জানুয়ারি ১৯৬৯ বলে মন্তব্য করেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া।

তিনি বলেন, গণঅভ্যুত্থান দমন করতে ব্যর্থ হয়ে স্বৈরশাসক আইয়ুব খান সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে বাধ্য হন। কিন্তু তাতেও জনতার বাঁধভাঙা জোয়ার ঠেকানো যায়নি। এই গণঅভ্যুত্থানের পথ ধরেই মুক্ত হন কারাবন্দি আগরতলা মামলার প্রধান আসামি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ অন্যান্যরা।

শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ ঢাকা মহানগর আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ১৯৬২ সালে শিক্ষার আন্দোলন, ১৯৬৫ সালের পাক-ভারত যুদ্ধ বাঙালি জাতির মধ্যে এই উপলব্ধি এনে দেয় যে, পশ্চিমাদের হাতে বাঙালির নাগরিক অধিকার শিক্ষা, কৃষ্টি, সংস্কৃতি, জাতিগত পরিচয় কোনোটাই নিরাপদ নয়। ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী অলি আহাদ, তোয়াহা, আবদুল মতিন, গাজিউল হকসহ অনেক ভাষাসৈনিক সেই আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। সেসময় মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানী পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে এক আপসহীন সংগ্রাম পরিচালনা করেন।

তিনি আরো বলেন, আজকের প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে ৬৯-এর মহান গণঅভ্যুত্থানের চেতনায় প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশে আমাদের বিস্মৃত হলে চলবে না। যে গণতান্ত্রিক-শোষণমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেছে জাতি, তা পূরনে সংগ্রাম অব্যাহত রাখতে হবে। তাই গণঅভ্যুত্থান দিবসে আমাদের শপথ গ্রহণ করতে হবে সব ধরনের বিচ্যুতি, আপস, নৈরাজ্য, দুর্নীতি ও অমানবিকতার বিরুদ্ধে চূড়ান্ত লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।

বাংলাদেশ ন্যাপ ঢাকা মহানগর সভাপতি মো. শহীদুননবী ডাবলু’র সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহন করেন এনডিপি মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, ন্যাপ ভাইস চেয়ারম্যান স্বপন কুমার সাহা, যুগ্ম মহাসচিব মো. আতিকুর রহমান, এহসানুল হক জসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল ভুইয়া, নগর সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা শাহ মো. শাহ আলম, নারী নেত্রী সাদিয়া ইসলাম ইমন, যুব ন্যাপ যুগ্ম সমন্বয়কারী বাহাদুর শামিম আহমেদ পিন্টু প্রমুখ।