বিভাগ - খেলাধুলা

শেখ হাসিনাকে সোনায় মোড়ানো বঙ্গবন্ধুর ছবি উপহার, ঢাকায় আসছেন সৌরভ

প্রকাশিত

ক্রীড়া প্রতিবেদক: গোলাপি বলে দিবা-রাত্রির টেস্টকে ঘিরে ভারতের ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল। এর অংশ হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে । গত শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী কলকাতায় এসে ঘণ্টা বাজিয়ে ঐতিহাসিক টেস্টের উদ্বোধন ঘোষণা করেছিলেন। সেদিনই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনায় মোড়ানো একটি ছবি প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দিয়েছেন বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী স্মরণীয় করে রাখতে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তার মধ্যে একটি বিশ্বের সেরা ক্রিকেটারদের জড়ো করে দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের আয়োজন। ২০২০ সালের ১৮ থেকে ২১ মার্চের মধ্যে মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অল স্টার এশিয়া ও বিশ্ব একাদশের দুটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ওই ম্যাচে সৌরভ গাঙ্গুলী উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছেন, ‘আমরা প্রধানমন্ত্রীকে তার বাবার (শেখ মুজিবর রহমান) সোনায় মোড়ানো ছবি দিয়েছি। তার জন্ম শতবার্ষিকী নিয়ে অনেক বড় উৎসব হচ্ছে। আমি জানি, দুটো ম্যাচও হবে বিশ্ব একাদশ ও এশিয়া একাদশের মধ্যে। আমি অবশ্যই যাব।’

অল স্টার এশিয়া দলে খেলবেন ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। বিশ্ব একাদশে খেলবেন বাকি বিশ্বের ক্রিকেটাররা। একটু ভিন্ন রকমের আয়োজন হলেও এই দুই ম্যাচের জন্য বাকি সব বোর্ডের আপত্তি না থাকায় মিলতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও। তবে বিদেশি লিগে না খেললেও বিশেষ এই দুটি ম্যাচে ভারতীয় ক্রিকেটারদের পাওয়ার আশা করাই যায়। বিশেষ করে সৌরভ গাঙ্গুলী বিসিসিআইয়ের সভাপতি হওয়ার পর ভারতীয় ক্রিকেটারদের পাওয়ার আশা বেড়েছে।

গোলাপি বলের টেস্টের উদ্বোধন করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতে আসায় তাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন গাঙ্গুলী, ‘প্রধানমন্ত্রীকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। এক কথায় আমাদের এখানে চলে এসেছেন। আমার সঙ্গে অনেকদিন ধরেই উনার সম্পর্ক আছে এবং সেটি খুবই ভালো। ২০০০ সালে যখন ভারত-বাংলাদেশ টেস্ট ম্যাচ হয়, তখন প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন তিনি। তখন থেকেই উনার সঙ্গে আমার ভালো সম্পর্ক।’

গোলাপি টেস্টের উদ্বোধনী দিনে ২০০০ সালে বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টে খেলা ক্রিকেটাররাও ছিলেন ইডেন গার্ডেনসে। শান্ত, দুর্জয়দের সম্মাননা দিয়েছে ভারতের ক্রিকেট বোর্ড। সেই বোর্ডের সভাপতি জানালেন, ‘ওরা প্রথম টেস্টেই অসাধারণ খেলেছিল। আমি ভারতের নতুন অধিনায়ক ছিলাম। তারা প্রথম টেস্টে ৪০০ রান করেছিল।’

দিবা-রাত্রির টেস্টকে ঘিরে যে উন্মাদনা ছিল সেটা ২০১৬ বিশ্বকাপে ভারত ও পাকিস্তানের ম্যাচকেও ছাড়িয়ে গেছে। এ প্রসঙ্গে গাঙ্গুলী তার প্রতিক্রিয়ায় বললেন, ‘ ২০১৬ পাকিস্তান ম্যাচটাও বড় ম্যাচ ছিল। এই আয়োজনতো অনেক বড়। সবমিলিয়ে দারুণ ব্যাপার।’

এই টেস্টে ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে সবার আগে সেঞ্চুরি করার রেকর্ড করেছেন বিরাট কোহলি। এই সেঞ্চুরিতে তার নামের পাশে শতকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৭টিতে। তাইতো কোহলিকে রান মেশিনে আখ্যায়িত করেলেন সৌরভ, ‘সেতো রান মেশিন। একের পর এক সেঞ্চুরি করেই যাচ্ছে।’

চলমান টেস্টে ইতোমধ্যেই ইনিংস হারের শঙ্কায় মুমিনুলরা। তবে বাংলাদেশের এমন পারফরম্যান্সে হতাশ নন গাঙ্গুলী। তিনি মনে করেন সেরা দল না থাকাতেই সমস্যা হচ্ছে বাংলাদেশের, ‘খেলা দেখেতো লাল বলের চেয়ে গোলাপি বলের টেস্টকেই সহজ মনে হচ্ছে! তবে তোমাদের অনেকগুলো ক্রিকেটার নেই। তিন-চারজন ভালো ক্রিকেটার না থাকলে, সেরাটা খেলা কঠিন।’