শ্রীপুরে নষ্ট হয়ে গেছে সবজী ক্ষেত, কৃষকের চোখে মুখে হতাশ!

প্রকাশিত

টি.আই সানি,গাজীপুরঃ নদী ভাঙ্গন বা বন্যা প্লাবন নয়,ফসল ফলিয়ে বৃথা গেলো আজ শরীরের যতো বল, হাটবাজারে দাম নাহি পায় মাঠ ভরা ফসল,একটু লাভের আশায় বেধে ছিলো বুক,নষ্ট হয়ে গেল ফসল এই দৃশ্য দেখে কৃষকের চোখের কোণে জল।

জৈষ্ঠ্য মাসের শেষের দিকে ও আষাঢ় মাসের প্রথম দিকেই বৃষ্টি হয়েছে আর বৃষ্টি হওয়ার পর সাথে সাথে মাটিতে জো আসে। ফলে সাথে সাথে যখন মাঠে বোনা হয় পাট শসা,ঝিংগা, চিচিংগা, মিষ্টি কুমড়া, চাল কুমড়া, মরিচ, বেগুন, কলা, পেঁপে, করলা, চিচিংঙ্গা। জীবিকার জীবন সংগ্রামে বর্তমান করোনার লকডাউনের মধ্যে বাড়ীতে থেকে একটু লাভের আশায় বুক বেধেছিলো গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের বালিয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা কৃষক নুরু মিয়া শেখ।

এবছর তিনি প্রায় তিন বিঘার ও অধিক জমি কৃষি আবাদ করেন। তার উৎপাদিত সবজি গুলোর মধ্যে ছিল করলা, চিচিঙ্গা, শসা, ইত্যাদি। কৃষক নুরু মিয়া জানান এই কৃষি আবাদ করতে বাশ, সুতা,জাল,বীজ,সার কামলাসহ খরচ হয় ১লক্ষ টাকার অধিক। বৈরি আবহাওয়া ও করোনার জন্য বাজারে দাম নাই,কিছু সবজি পানির দামে বিক্রি করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন,অনেক ফসল কীটনাশক দেওয়ার পরও নষ্ট হয়ে গেছে’ এতে ৬০ হাজার টাকার অধিক ক্ষতি হয়।

এখনো অনেক সবজি বিক্রি করতে না পেরে সবজি বাগানেই নষ্ট হয়ে আছে। কৃষক নুরু মিয়া প্রায় ৫০ হাজার টাকা ঋণ আছে এখনো এই ফসল আবাদ করে। এত টাকা ঋণ নিয়ে তিনি বিপাকেই আছেন,তাই তিনি সরকারের উপর মহল শ্রীপুর কৃষি অফিসার ও চেয়ারম্যানসহ উধ্বর্তন কর্মকতার কাছে দাবি জানিয়ে বলেন তাকে কিছু আর্থিক অনুদান দিয়ে সহায়তা করলে, কৃষি কাজ করে আবার ক্ষতি হওয়া অভাব পুরন করে আরো সম্বৃদ্ধি লাভবান হয়ে ঘুরে দাড়াতে পারবেন বলে আশা করেন তিনি।