বিভাগ - সারাদেশ

ষড়যন্ত্রের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার আবদেন জানিয়ে পিতার সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি: মিথ্যা ঘটনা ও ষড়যন্ত্রের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার আবদেন জানিয়ে কলাপাড়া রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন পিতা জাকির হোসেন। সোমবার সকাল এগারটায় ইউনিটির কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি, সম্পাদকসহ সকল সদস্যবৃন্দ ও নীলগঞ্জ ইউনিয়নের প্রায় অর্ধশতাধিক মানুষ উপস্থিত ছিলেন ।

লিখিত বক্তব্যে জাকির হোসেন বলেন, আমি নীলগঞ্জ ইউনিয়ের একজন স্থায়ী বাসিন্দা। দীর্ঘদিন যাবৎ দেশের বাইরে ছিলাম। দেশে আসার পর জানতে পারি আমার বড় ছেলে জাফরের সাথে প্রতিবেশি সেলিম মুশুল্লীর মেজো মেয়ে লামিয়ার সাথে প্রেমের সম্পর্ক রহিয়াছে। এঘটনা শোনার পর ছেলেকে সাবধান করি এবং ইহা যেন সামনে আর না বাড়ে সেজন্য মেয়ের বাবাকে সজাগ থাকতে বলি। মাঝে বেশ কিছুদিন অতিবাহিত হওয়ার পর হঠাৎ করে শুনতে পেলাম চতুর্থ শ্রেনীর ছাত্রীকে ইভটিজিং এবং ঢাকায় গমন শিরোনামে ফেইসবুক, অনলাইন মিডিয়া এবং কয়েকটি পত্রিকায় যে খবর প্রকাশিত হয়েছে তাতে সেলিম মিয়ার ছোট মেয়ে আছিয়াকে উত্তপ্ত করার অভিযোগে আমার বড় ছেলেকে অহেতুতভাবে জড়ানো হয়েছে। আসলে উক্ত ইভটিজিংয়ের সাথে আমার পুত্র কোনভাবেই জড়িত নয়। একতরফা অভিযোগ করে আমাকে ও আমার পরিবারকে সমাজিকভাবে ছোট করার জন্যই এঘটনা ঘটানো হয়েছে এবং উক্ত উল্লেখিত ইভটিজিং স্পর্ট কলাপটি,্র খেয়াঘাটসহ নদীর এপার-ওপার সরেজমিনে তথ্য নিলে জানতে পারবেন আমার পুত্রের প্রেম ঘটিত ঘটনা ছাড়া অন্য সকল অভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট ও ষড়যন্ত্র। আসল ও সত্যি ঘটনা উদঘাটন করার জন্য তিনি সাংবাদিকদের কাছে বিনীত অনুরোধ জানান।

অন্যদিকে আছিয়া আক্তার দোলার মা ঝর্না বেগম জানান, উপরন্ত তার মোঝো মেয়ে লামিয়াকে প্রায়ই উত্যক্ত করত জাফর। বিষয়টি জাফরের বাবাকে কয়েকবার জানানো হয়েছে। এছাড়া লামিয়া জাফরের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় জাফরসহ তার কয়েকজন বন্ধু মিলে ছোট মেয়ে আছিয়াকে উত্যক্ত করে।